শিরোনাম

প্রকাশিত : ২২ মার্চ, ২০২৩, ০৮:৫৬ রাত
আপডেট : ২২ মার্চ, ২০২৩, ০৮:৫৬ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অস্থিরতা, ২২দিনে ৯খুন

ফরহাদ আমিন, কক্সবাজার: উখিয়া ও টেকনাফের ৩৩ টি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আধিপত্য বিস্তারে মরিয়া হয়ে উঠেছে ক্যাম্পে সক্রিয় ১০টি সশস্ত্র গোষ্টি। ক্যাম্প ভিত্তিক মাদক চোরাচালান, মানবপাচার, হাট বাজারের চাঁদাবাজি, অপহরণ-মুক্তিপন আদায় নিয়ন্ত্রণে হামলা, খুন, আগুন সন্ত্রাস মিলে অস্থির হয়ে উঠেছে ক্যাম্প। এই অস্থিরতায় চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে ২২মার্চ পর্যন্ত ক্যাম্পে খুনের ঘটনা ঘটেছে ১৮টি। যার মধ্যে মার্চে ২২দিনে খুন হয়েছে ৯জন।

উখিয়া থানার ওসি শেখ মোহাম্মদ আলী বলেন, মঙ্গলবার দুপুরে ৫-৬ জন অজ্ঞাত সশস্ত্র দুস্কৃতিকারি ১৩ নম্বর ক্যাম্পে হামলা চালায়। এসময় রফিক নামের ২ জন এবং ইয়াছিনকে লক্ষ্য করে গুলি করে। এসময় মো. রফিক (৩২) এর বুকের বাম পাশে গুলি লাগে। তাকে পাশের এনজিও হাসপাতালে আনা হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করে। অপর রফিক (৩০) এর ডান চোখের উপরে গুলি লেগে মাথার পিছন দিয়ে বের হয়ে যায় এবং বাম হাতের কব্জির উপরে গুলি লাগে। তিনি ঘটনাস্থলে মারা যান। এছাড়া ইয়াছিন গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হন। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

ওসি আরো বলেন, নিহতদের মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনার পর থেকে এপিবিএন ও জেলা পুলিশ ক্যাম্পে অভিযান অব্যাহত রেখেছে বলে জানান তিনি।

কক্সবাজার জেলা পুলিশের তথ্য বলছে, চলতি মাসের এর ১৮মার্চ, ১৭মার্চ, ১৬ মার্চ, ১৫ মার্চ, ৮মার্চ, ৭ মার্চ, ৩ মার্চ একজন করে ৭ টি খুনের ঘটনা ঘটে। আর এসব ঘটনায় নিহতদের বেশিভাগ রোহিঙ্গা ক্যাম্পের কমিউনিটি নেতা ও স্বেচ্ছাসেবক। পুলিশের দেয়া তথ্য মতে, ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট থেকে ২০২২ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ১২৯ টি হত্যাকান্ড সংঘটিত হয়েছে। এর সাথে জানুয়ারি থেকে ২১ মার্চ পর্যন্ত ১৮টি হত্যাকান্ড হল। ক্যাম্পের নিরাপত্তায় নিয়োজিত এপিবিএন,জেলা পুলিশ প্রতিটি ঘটনার জন্য আধিপত্য বিস্তারের জেরে সশস্ত্র গোষ্টিকে দায়ি করে আসছে।

সম্প্রতি প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির এক প্রতিবেদনে, রোহিঙ্গা ক্যাম্পের অস্থিরতার জন্য আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মিসহ (আরসা) ৩টি সন্ত্রাসী গ্রুপ ও ৭টি ডাকাত দল রোহিঙ্গা ক্যাম্প এলাকায় সক্রিয় রয়েছে বলা হয়েছে। এসব সশস্ত্র গোষ্টি আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে হত্যা সহ নানা অপরাধ হচ্ছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

এদিকে রোহিঙ্গা নেতাদের দাবি, এসব ঘটনার পেছনে কথিত সন্ত্রাসী সংগঠনগুলো জড়িত। আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটসের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ জোবায়ের বলেন, দুটি কারণে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কমিউনিটি নেতাদের খুন করছে কথিত সন্ত্রাসী সংগঠনগুলো। এক হচ্ছে, কথিত সন্ত্রাসী সংগঠনগুলোর ব্যাপারে কেউ তথ্য দিলে তা তারা জেনে যায়। তারপর নির্দিষ্ট সময়ে গিয়ে তথ্য দাতাকে ধরে গুলি ও কুপিয়ে হত্যা করছে। কারণ ক্যাম্পে তাদের অসংখ্য নের্টওয়াক রয়েছে। আর দ্বিতীয় হচ্ছে, আগে অনেক কমিউনিটি নেতা কথিত সন্ত্রাসী সংগঠনগুলোকে সহযোগিতা করত।কিন্তু এখন না করাতে মুনাফিক হয়ে গেছে বলে টার্গেট করে হত্যা করছে।

উখিয়াস্থ ১৪আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) অধিনায়ক অতিরিক্ত উপ-মহাপরিদর্শক (এডিআইজি) ছৈয়দ হারুন অর রশিদ বলেন, রোহিঙ্গা শিবিরে কয়েকটি দুষ্কৃতিকারি দল সক্রিয় রয়েছে। আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে একের পর এক হত্যাকান্ড হচ্ছে। সাধারণ রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের সশস্ত্র গোষ্টি আরসা’র সন্ত্রাসীরা এ ঘটনার নেপথ্যে রয়েছে বলে দাবি করে আসছে। বিষয়টি নিয়ে এপিবিএন তৎপর রয়েছে। ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করে গ্রেপ্তারে অভিযান চালানো হচ্ছে।

শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মো. মিজানুর রহমান বলেন, ক্যাম্পে আইনশৃঙ্খলার অবনতি হলে তো আমরা অবশ্যই চিন্তিত। তবে, ক্যাম্পে ৩টি আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন) রয়েছে। সিনিয়র পুলিশ কর্মকর্তা রয়েছে ডিআইজি ও অতিরিক্ত ডিআইজি। তারা প্রতিনিয়ত কাজ করছে। আমরা তাদের সঙ্গে সমন্বয় করছি। এছাড়াও বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থাগুলো কাজ করছে। তারপরও কিছু ঘটনা ঘটছে। তবে, এসব ঘটনা নিয়ে আমরা কিছুটা চিন্তিত। আমরা সবাই চেষ্টা করছি, কিভাবে ক্যাম্পে অপরাধ নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে দায়িত্বে থাকা ৮-আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক (অতিরিক্ত ডিআইজি) মো.আমির জাফর বলেন, ক্যাম্পে বেশ কিছু গ্রুপ কাজ করে। যাদের কাজ হচ্ছে মাদক ব্যবসা, চাঁদাবাজি, অপহরণসহ নানা অপরাধ নিয়ন্ত্রণ।আর এসব নিয়ন্ত্রণ করতে গেলে আধিপত্য বিস্তার একটা বিষয় থাকে। এরা নিজেদের আধিপত্য বিস্তার করতে এসব অপরাধের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট হচ্ছে। 

তিনি আরো বলেন, আমরা প্রতিনিয়ত অভিযান পরিচালনা করছি। কখনো এপিবিএন পুলিশ একা করছে, কখনো জেলা পুলিশ বা র‌্যাবকে সঙ্গে নিয়ে কাজ করছে। তবে সবার সমন্বিত প্রচেষ্টায় আশা করি, ক্যাম্পের এই অপরাধ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে। সম্পাদনা: ইস্রাফিল ফকির 

প্রতিনিধি/আইএফ/এসবি২ 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়