প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

শাহরুখপুত্রকে দেখতে গিয়ে ১০ জনের মোবাইল চুরি!

বিনোদন ডেস্ক: মুম্বাইয়ের আর্থার রোড জেলে ২৮ দিনের বন্দিদশা পেরিয়ে শনিবার (৩০ অক্টোবর) সকালে ঘরে ফিরেছেন শাহরুখপুত্র আরিয়ান খান। তাকে এক নজর দেখতে কারাফটক থেকে মান্নাতের রাস্তাজুড়ে ছিল হাজারো মানুষ। গাড়ির পেছনেও ছুটেছে অনেকে। এমন খুশির মুহূর্তেই ঘটলো বিপত্তি। ভিড়ের মধ্যে অন্তত ১০ জনের মোবাইল ফোন চুরি হয়েছে।

এদিকে সকাল থেকেই আরিয়ানের পথ চেয়ে এক সাধু বসেছিলেন মান্নাতের সামনে। তিনি নিমগ্ন হয়ে পড়ে গেছেন হনুমান চালিশা। এমন এক ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

আরিয়ান খানের ঘরে ফেরার সঙ্গেই মেঘ কাটছে ‘মান্নাত’-এ। ফিরতে চলেছে স্বস্তির হাওয়া। দীপাবলির আলোয় সাজবে গোটা বাড়ি। মুখে হাসি ফুটবে শাহরুখ-গৌরীর। আর আঁধারে থাকবে না শাহরুখ খানের অট্টালিকা। সেজে উঠবে নানা রঙে। ঝলমলিয়ে উঠবে উৎসবের আলোয়।

কিন্তু বন্দিদশার ইতি টানলেও জামিন খুব সহজ হবে না ২৩ বছর বয়সী এই তারকা সন্তানের। আদালতের বেশ কিছু নির্দেশ মেনে চলতে হবে তাকে। তিনি আর দশজনের মতো স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করতে পারবেন না। হিন্দুস্তান টাইমসের প্রতিবেদনে জানানো হয়, শাহরুখপুত্রের জন্য পাঁচ পাতাজুড়ে রয়েছে নির্দেশ, যা মেনে চলতে হবে তাকে। শুক্রবার ভারতের মুম্বাই হাইকোর্টের পক্ষ থেকে আরিয়ানের জামিনের জন্য নানান শর্তারোপ করা হয়। বিস্তারিত ওই শর্তাবলি জেনে নিন-

১. এক লাখ টাকার ব্যক্তিগত বন্ডে জামিন পাবেন আরিয়ান, সঙ্গে থাকতে হবে একজন সিউরিটি। উল্লেখ্য, আরিয়ানের সিউরিটি হয়েছেন জুহি চাওলা।

২. এই ধরনের কোনো পার্টির অংশ হতে পারবেন না আরিয়ান খান।

৩. এই মামলার সহ-অভিযুক্তর সঙ্গে কোনোরকম যোগাযোগ রাখা যাবে না। সুতরাং, ছেলেবেলার বন্ধু আরবাজের সঙ্গে কথা বন্ধ আরিয়ানের। এই মামলার সঙ্গে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে যোগাযোগ রয়েছে এমন কারও সঙ্গেই যোগাযোগ রাখা যাবে না।

৪. এনডিপিএস আদালতে পাসপোর্ট জমা দিতে হবে আরিয়ানকে, ছাড়া যাবে না দেশ। প্রয়োজনে নিতে হবে এনডিপিএস আদালতের অনুমতি।

৫. তদন্তের সঙ্গে জড়িত কোনো সাক্ষীকে প্রভাবিত করা বা তথ্যপ্রমাণ লোপাটের চেষ্টা থেকে বিরত থাকবে অভিযুক্ত।

৬. সংবাদমাধ্যম বা সোশ্যাল মিডিয়ায় কোনোরকম মন্তব্য করা যাবে না।

৭. মুম্বাইয়ের বাইরে যেতে হলে এই মামলার তদন্তকারী অফিসারকে আগে থেকে জানাতে হবে এবং তার অনুমতি নিতে হবে।

৮. প্রত্যেক শুক্রবার এনসিবির দপ্তরে হাজিরা দিতে হবে আরিয়ান খানকে। সকাল ১১টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত উপস্থিত থাকতে হবে।

৯. মামলার শুনানির দিন অবশ্যই আদালতে হাজিরা দিতে হবে।

১০. তদন্তে যোগ দিতে এনসিবি কর্মকর্তাদের ডাকে সাড়া দিতে হবে, তাদের সঙ্গে সবরকম সহায়তা করতে হবে।

১১. ট্রায়াল শুরু হলে কোনোভাবেই সেই প্রক্রিয়াকে বিলম্বিত করবার চেষ্টা করা যাবে না।

১২. উপরোক্ত কোনো শর্ত যদি অমান্য করা হয়, তাহলে এনসিবির পক্ষে এনডিপিএস আদালতে আবেদন জানানো যাবে অভিযুক্তর জামিন খারিজের জন্য।

ওপরের প্রত্যেকটি নির্দেশই বর্তমানে মেনে চলতে হবে আরিয়ান খানকে। মুম্বাইয়ের আর্থার রোড জেল থেকে মুক্তি পেয়ে ‘মান্নত’-এ ফিরলেও আপাতত পুরোপুরি নিশ্চিন্তে থাকতে পারবেন না আরিয়ান। তবে দীপাবলি এবং শাহরুখের জন্মদিনের আগেই ছেলে বাড়ি ফেরায় স্বস্তির হাওয়া লেগেছে পরিবারে।

সর্বাধিক পঠিত