প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বর্তমান পরিস্থিতি মোকাবেলায় জাতীয় সরকারের বিকল্প নেই: ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী

শিমুল মাহমুদ: [২] বর্তমানে দেশে যে সকল সমস্যা তৈরি হয়েছে তা একমাত্র সমাধান করতে পারে একটি জাতীয় সরকার। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা ও মানুষের ভোটের অধিকার ফিরিয়ে একটি কার্যকর রাষ্ট্র গঠনের মাধ্যমে মানুষের অধিকারগুলোকে ফিরিয়ে দিতে জাতীয় সরকারের বিকল্প নেই।

[৩] বুধবার ২১ সদস্যের টিম নিয়ে রংপুরের পীরগঞ্জের মাঝিপাড়ায় পরিদর্শন যান এবং ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চোধুরী। এ সময় সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

[৪] ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, আজকে আগুনের যে লেলিহান শিখা এখনে দেখছি আমার মনে হয় ১৯৭১ সালেও এ ধরনের ঘটনা দেখি নাই। আজকে এ ধরনের ঘটনা সরকারের ব্যর্থতা। তা না হলে কুমিল্লার ঘটনার পর আর একটা ঘটনাও ঘটার কথা ছিল না।

[৫] তিনি বলেন, দু’এক জন পাগল একটা দেশে থাকতে পারে। তারা কিছু মানুষকে বিভ্রান্ত করতে পারে। কিন্তু আমার কাছে মনে হয়েছে পুরো জাতিকে বিভ্রান্ত করা হয়েছে। আমি শুধু সরকারকে বলছি না। সরকারী দল, বিরোধী দল আপনারা সবাই যদি কুমিল্লার ঘটনার পর সেদিন সেখানে যেতেন তবে আজকে এই ঘটনাগুলো ঘটতো না, সাহস পেত না।

[৬] ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, আমরা সবাই দায়িত্বহীনতার পরিচয় দিয়েছি। সরকার সবচাইতে বেশি দায়িত্বহীনতার পরিচয় দিয়েছে, তারপর আমরা। তাই আমাদের এখনি ক্ষতিগ্রস্তদের কাছে ক্ষমা চেয়ে তাদের পাশে দাঁড়ানো উচিৎ। আমরা ছোট সংগঠন, আমাদের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্তদের এক মাসের খাবার উপহার দিচ্ছি। ট্রাকে করে আমরা খাবার নিয়ে এসেছি।

[৭] এ সময় তিনি আরো বলেন, আজকে সকল মন্ত্রীদের এখানে আসা উচিৎ ছিল। আজকে প্রধানমন্ত্রীকে আবারো আহ্বান করছি অনুগ্রহ করে আপনি এখানে নিজে আসুন। আপনি একজন মা। আপনাকে দেখলে এদের দুঃখ অর্ধেক কমে যাবে। আপনাকে দেখলে পুলিশের সাহস বাড়বে। স্থানীয়রা বুঝবে আমরা সবাই তাদের পাশে আছি। আমার আরেকটি পার্থনা আপনি রেহানাকে সাথে নিয়ে আসবেন। তারও দেখা উচিৎ।

[৮] অন্যান্য সদস্যরা হলেন, নারী পক্ষের নেত্রী শিরিন হক ভাসানী অনুসারী পরিষদ মহাসচিব শেখ রফিকুল ইসলাম বাবলু , গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি, মুক্তিযোদ্ধা নঈম জাহাঙ্গীর ,রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলনের এডভোকেট হাসনাত কাইয়ুম, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রেস উপদেষ্টা জাহাঙ্গীর আলম মিন্টু, ৬৯‘ গণঅভ্যুত্থানের শহীদ আসাদের ছোট ভাই ডা. নুরুজ্জামান, অর্থ বিষয়ক সমন্বয়ক, রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলন দিদারুল হক ভূঁইয়া, মো. ইসমাইল, সাংগঠনিক সম্পাদক, ভাষানী অনুসারী টাংগাইল জেলা সাধারণ সম্পাদক হেদায়েত খানশুর শুভা, ভাসানী অনুসারী পরিষদের সদস্য চাষী এনামুল হক, ভাষানী অনুসারী পরিষদ যুব ও ক্রিয়া বিষয়ক সম্পাদক, মোঃ আল মুকিত, ভাসানী অনুসারী পরিষদের কেন্দ্রীয় সদস্য মুহিব্বুল্লাহ বাহার, ভাসানী অনুসারী পরিষদের ছাত্র ফ্রন্টের নেতা ইসমাইল হোসেন সম্রাট, রাস্ট্র সংস্কার আন্দোলনের মাহবুব হক মিলটন, ছাত্র ফেডারেশনের ঢাকা মহানগর সভাপতি সৈকত আরিফ, ছাত্র ফেডারেশনের হামিদুল হক মিয়া ও মো. নিজাম, রংপুর জেলা গণসংহতি আন্দোলনের আহ্বায়ক তৌহিদুর রহমান প্রমূখ নেতৃবৃন্দ।

[৯] এ সময় তিনি পীরগঞ্জ বড় করিমপুর শ্রী শ্রী রাধা গোবিন্দ মন্দির ও তার পাশে ক্ষতিগ্রস্ত কয়েকটি বাড়ি পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি ক্ষতিগ্রস্তদের কাছ থেকে ঘটনার বর্ননা শোনেন।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত