প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ড. এমদাদুল হক: পরিশ্রম না করলে খাবো কী-তা গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন নয়!


ড. এমদাদুল হক : পরিশ্রম না করলে খাবো কী? খুব গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন কিন্তু এই প্রশ্নটির মধ্যে যে উত্তর লুকিয়ে আছে তাতে গুরুত্বের কিছু নেই। প্রশ্নটি উত্তর দিচ্ছে: আনন্দের জন্য কাজের প্রয়োজন নেই, খাদ্য জোগানের জন্যই কাজের প্রয়োজন। প্রয়োজন খুবই কম। একজন মানুষের যে পরিমাণ খাদ্য প্রয়োজন তা উৎপাদন করতে দৈনিক দু’ঘণ্টা পরিশ্রম করাই যথেষ্ট। অনেকেই প্রয়োজন ও বাসনার পার্থক্য বোঝে না।

তৃষ্ণা নিবারণের জন্য জল প্রয়োজন কিন্তু ওয়াইন, বিয়ার, কোকাকোলা, কফি, চা ইত্যাদি প্রয়োজন নয়, বাসনা। ক্ষুধা নিবারণের জন্য খাদ্য প্রয়োজন কিন্তু বার্গার, পিজা, চকলেট, কাচ্ছি, লাচ্ছি প্রয়োজন নয়, বাসনা। শীত নিবারণের জন্য বস্ত্র প্রয়োজন কিন্তু কুমির মার্কা, পাণ্ডা মার্কা, নাইকি মার্কা বস্ত্র প্রয়োজন নয়, বাসনা। সুতরাং ক্ষুধার নিবৃত্তি অতি পরিশ্রমের মূল কারণ নয়, বাসনা পূরণ করাই অতি পরিশ্রমের মূল কারণ। প্রয়োজনের সীমা আছে কিন্তু বাসনার সীমা নেই। প্রয়োজন মেটানো সম্ভব, কিন্তু বাসনা মেটানো কখনো সম্ভব নয়।

সুতরাং পরিশ্রম না করলে খাবো কী? এটি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন নয়। প্রশ্ন হলো তোমার বাড়ি আছে, গাড়ি আছে, জমি আছে, যে পরিমাণ অর্থ তুমি সঞ্চয় করে রেখেছো তা সারাজীবনেও খেয়ে শেষ করতে পারবে না। তবে তুমি কাজ করছো কেন? কার জন্য? তুমি ক্ষুধা নিবারণের জন্য কাজ করছো না। তুমি কাজ করছো বাসনা পূরণের জন্য, তুমি কাজ করছো কারণ, কাজ ছাড়া জীবন তোমার কাছে বোঝা, তুমি কাজ করছো কারণ, তুমি খেলতে পারো না, আঁকতে পারো না, গাইতে পারো না, নাচতে পারো না, লিখতে পারো না, পড়তে পারো না, বিশ্রাম নিতে পারো না। তুমি কাজ করছো কারণ তোমার একমাত্র নির্মুক্তি হলো কাম, কাম মানে পরিশ্রম, আহার, নিদ্রা, মৈথুন। ঊসফধফঁষ যয়-র ফেসবুক ওয়ালে লেখাটি পড়ুন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত