প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আরিফ রহমান: প্রকৃতই একটা জাতি হয়ে উঠতে চাইলে তার তরিকাগুলো আমাদের আদিবাসীদের কাছ থেকেই শিখে নিতে হবে!

আরিফ রহমান: যারা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ পেয়েছে অথচ ‘ঞজওইঅখ’ শব্দের অর্থ করে ‘উপজাতি’ তাদের আমার থাপড়াইতে ইচ্ছা করে। ইংরেজি ট্রাইব শব্দের বাংলা কোন ভাবেই ‘উপজাতি’ হয় না। ‘উপ’ বলতেই চোখের সামনে ভাসে যারা এখনো জাতি হয়ে ওঠেনি। জাতি আবার ‘উপ’ কীভাবে হয়?

আমাদের থেকে ভিন্ন একটি জাতি কেবল সংখ্যায় ছোট বলে আমরা তাদের উপজাতি বলতে পারি কি? সংখ্যায় কম হলে জাতি গঠনে কোন সমস্যা আছে, বা জাতি হতে হলে নির্দিষ্ট সংখ্যক মানুষের জমায়েত হতে হবে এমন কোনো দলিল কি আছে? নাকি জাতি গঠন করতে হলে রাষ্ট্র কায়েম করতে হবে? তাহলে কি পশ্চিমবঙ্গের বাঙালিরা উপজাতি? উপজাতি শব্দটা কি যাদের বলা হচ্ছে তাদের জন্য খুবই অপমানজনক এবং অসম্মানজনক নয়?

যাদের মনসপটে জাতির শাখা আছে, ‘উপ’ আছে, উপজাতি মানে যারা মনে করে একটা পুরো জাতি হয়ে উঠতে না পারা গ্রুপ, তারাই যুগে যুগে মানুষের মধ্যে শ্রেণি তৈরি করেছে। উচ্চ জাত, নিচু জাত, বনেদী রক্ত এইসব কনসেপ্ট তারাই বানিয়েছে। একসময় কালো মানুষদের পুরোপুরি মানুষ না হয়ে ওঠার দোহাই দিয়ে দাস করে রাখা হয়েছে, খাঁচায় ঢুকিয়ে চিড়িয়াখানায় প্রদর্শনী করা হয়েছে। একই কায়দায় আমরা মহান জাতির মানুষেরা আবার দল বেঁধে ক্যালাতে ক্যালাতে ‘উপজাতি’ দেখতে যাই! তাঁদের হিউম্যান ডিগনিটিকে ডিগ্রেড করি। শেইম অন আজ। একদিন না একদিন মানুষকে এভাবে ডিগ্রেড করার অপরাধে আমাদের বিচার হবে! হবেই হবে!

যাই হোক, এই মহান বাঙালি জাতিসত্বার মানুষ আমরা আবার আমাদের জাতীয়তা কি ‘বাঙালি’ না ‘বাংলাদেশি’ এই প্রশ্নে খুন-খারাবি করে ফেলি। আমাদের কালচারের প্রতীক পহেলা বৈশাখে রেগুলার বোমা ফাটায় এই জাতিরই অন্য পক্ষ। এই জাতির সবেধন নীলমণি কমনালিটির জায়গা বাংলা ভাষা, সেই বাংলা ভাষার মহান ভাষা আন্দোলনের প্রতীক শহীদ মিনার প্রতিনিয়ত ভাঙে এই জাতির মানুষেরাই। এই হচ্ছে তথাকথিত মহান ‘পুরো জাতি’র অবস্থা। কালচার, ভাষা, সিম্বল, নেশন, ইতিহাস, পূর্বপুরুষ, ধর্মীয় পরিচয় একটা বিষয়ে আমাদের মতৈক্য নেই।

৯০ শতাংশ কমন ধর্মীয় আইডিনটিটির মানুষেরা পর্যন্ত নামাজে হাত বাঁধা, যাকাত দেওয়ার মতো প্রশ্নে খুন করে ফেলে একই ধর্মের অন্য তরিকার মানুষদের। মানে ধর্মটাকেও তারা নিজেদের আইডেনটিটি করতে পারেনি। অথচ যাদের আমরা উপজাতি বলি তারা কিন্তু ইথনিসিটির প্রশ্নে সবসময় ঐক্যমতে থাকে। তাহলে বাই ডেফিনেশন আমরা মহান বাঙালি জাতির লোকজন আমাদের নিজেদের একটা ‘জাতি’ কতোটুকু প্রমাণ করতে পারি সেটাই বিরাট প্রশ্নের মুখে পড়ে যায় আরকি। সেই আমরাই আবার অন্যদের বলি উপজাতি? বিষয়টা হাস্যকর। প্রকৃতই একটা জাতি হয়ে উঠতে চাইলে তার তরিকাগুলো আমাদের আদিবাসীদের কাছ থেকেই শিখে নিতে হবে। ফেসবুক থেকে

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত