প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ৮৮’র অসমাপ্ত বিপ্লব সম্পূর্ণ করতে মিয়ানমারের রাজপথে জান্তাবিরোধী বিক্ষোভকারীরা

লিহান লিমা: [২] ১৯৮৮ সালে সামরিক জান্তা সরকারের বিরুদ্ধে মিয়ানমারের রক্তাক্ত বিপ্লবের বার্ষিকীতে রোববার দেশজুড়ে প্রতিবাদ-বিক্ষোভ করে জনতা। ১৯৬২ সাল থেকে চলমান সেনা শাসন ৮৮ সালের অভ্যুত্থানে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছিলো। ওই বিপ্লবে কমপক্ষে ৩ হাজার মানুষ প্রাণ হারিয়েছিলেন। রয়টার্স

[৩] রোববার বিক্ষোভকারীরা ‘৮-৮-৮৮ গণতন্ত্রের অভ্যূত্থান’ এর কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘এইদিনই সামরিক শাসন চূর্ণ হয়েছিলো।’ মান্দালয় অঞ্চলের উন্ডউইন শহরের বিক্ষোভকারীরা বলেন, ‘৮৮-র ঋণ ২১ এ পরিশোধ করতে হবে।’ মিয়াং শহরের এক বিক্ষোভকারীর প্ল্যাকার্ডে লেখা ছিলো, ‘৮-৮-৮৮ এর অসমাপ্ত কাজ শেষ করতে চলুন সংগ্রাম করি।’

[৪] এশিয়া টাইমসে লেখা এক বিশ্লেষণে ইয়াঙ্গুন ভিত্তিক তাগুং ইনস্টিটিউট অব পলিটিক্যাল স্টাডিজ (টিআইপিএস) এর নির্বাহী পরিচালক ইয়ে মায়ো হেন বলেন, ‘১৯৯০ সাল থেকেই নানা ছদ্মবেশে দেশের ক্ষমতা দখল করে রেখেছে তাতমাদাও। ২০১৯ সালের নভেম্বরের নির্বাচনে অং সান সু চির দল ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এনএলডি) বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করার পর সেনাবাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তারা মনে করেন, এনএলডি এবার তাতমাদাওয়ের অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক কার্যক্রমে লাগাম টানতে চাইবে। সেনাবাহিনীর মধ্যে ২০০৮ সালে সংবিধান সংশোধন বা বাতিলে আশঙ্কা ঢুকে যায়। জান্তা সরকার এনএলডি এবং সুু চিকে নির্মূল করার দীর্ঘ পরিকল্পনা আঁটে। কিন্তু গণধর্মঘট, সশস্ত্র সহিংসতা, আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা, ভঙ্গুর অর্থনীতি ও মহামারী মিয়ানমারকে দ্রুত ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করেছে এবং এর দায় স্পষ্টতই সেনাবাহিনীর। কোনো ধরণের নৈতিক অবস্থান না রেখে শুধুমাত্র জোর-জবরদস্তি দিয়ে দেশ দখলের ভয়ঙ্কর পদ্ধতি বেছে নিয়েছে তাতমাদাও।’

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত