শিরোনাম

প্রকাশিত : ১৬ জুন, ২০২১, ১২:১১ দুপুর
আপডেট : ১৬ জুন, ২০২১, ১২:১১ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

[১] ক্লি‌নি‌কে সিজা‌রের ৮ মাস প‌র রামেকে অপা‌রেশ ক‌রে পাওয়া গেলো গজ, রোগীর অবস্থা সংকটাপন্ন

মোঃ ইউসুফ মিয়া: [২] রাজবাড়ী জেলার পাংশা মর্ডান ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে সিজারের ৮ মাস ৮ দিন পর তাসলিমা (৩৪) নামের এক গৃহবধূর পেট থেকে ব্যান্ডেজর গজ আবা‌রো অপা‌রেশন ক‌রে ব্যা‌ন্ডে‌জের গজ বের করা হয়েছে। এতে দীর্ঘ সময় গজটি পেটে থাকায় পে‌টের ম‌ধ্যে পচন ধরার কারণে তার শরীরে আর কোনো এন্টিবায়োটিক পুশ কর‌লেও তা‌তেও কোনো কা‌জে আস‌ছে না।গৃহবধূর জীবন সঙ্কটাপন্ন জানিয়েছেন চিকিৎসক।

[৩] পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের ৪ জুলাই মা‌সে পাংশা উপজেলার মর্ডান ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে তাসলিমার সিজার করানো হয়েছিলো। তার সিজার করান হাসপাতালের খণ্ডকালীন চিকিৎসক এবং পাংশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ও গাইনি বিশেষজ্ঞ ডা. শর্মী আহমেদ। গত বছরের ৯ জুলাই তাকে ক্লিনিক থেকে রিলিজ দেয়া হয়।

[৪] তাসলিমার স্বামী মোঃ সাইদুল ইসলাম বলেন গত বছ‌রের ২০ সালের (৪ জুলাই) দুপুরে তাসলিমাকে মর্ডান ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে তার স্ত্রীকে ভর্তির পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে দেখে জরুরি সিজার করতে পরামর্শ দেন। ডাক্তারের কথা শুনে আমরা সিজারে রাজি হলে ৪ জুলাই ডাঃ শর্মিলী আহমেদ ও তার সহযোগী ডা. বিনা আক্তার অন্যান্য নার্স এবং ওটি বয় মিলে আমার স্ত্রীর সিজার করেন। তার গ‌র্ভে জন্ম নেয় পুত্র সন্তান।

[৫] তিনি আরও বলেন, ‘সিজারের দু’দিন পর থেকে তাসলিমার পেটে প্রচন্ড ব্যথা হতে থাকে, হাসপাতাল থেকে এ সময় কিছু ওষুধ দেয়া হয়। হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফেরার পর অস্ত্রোপচারের ক্ষত স্থান থেকে পুঁজ বের হতে থাকে। পরে ব্যথা আরও বেড়ে রায়। তাকে কুষ্টিয়া ফরিদপুর সহ বিভিন্ন হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা প্রচুর ওষুধ খেতে দেন। এক পর্যায়ে তার জীবন সঙ্কাটাপন্ন দেখে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে বলেন, পেটের মধ্যে গজ ব্যান্ডেজ রয়েছে। এ বছরের ১ মার্চ অপারেশন করে তাসলিমার পেট থেকে বের করা হয় গজ ব্যান্ডেজ। ৩০ মার্চ পাংশা মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করি।

[৬] তাসলিমার স্বামী সাইদুল ইসলাম বলেন, আমি একজন সামান্য এনজিও কর্মী। অপারেশনের পর থেকে আমার স্ত্রীর চিকিৎসা বাবদ প্রায় ৭ লাখ টাকা ব্যয় হয়েছে। স্ত্রী-সন্তান নিয়ে কষ্টের মধ্যে দিন কাটছে আমার। উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আমাকে ক্ষতিপূরণের আশ্বাস দিলেও এখন পর্যন্ত কোনো ক্ষতিপূরণ পায়নি এবং দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি।

[৭] সিজার অপারেশন কারী পাংশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জুনিয়র কনসালটেন্ট ডাঃ শর্মী আহমেদের বলেন, মানুষ মাত্রই ভুল হয় আমারও ভুল হয়েছে আমি ভুল স্বীকার করেছি এবং রোগীর পরিবারকে কিছু ক্ষতিপূরণ দিতে চেয়েছি।

[৮] উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ হাসানাত আল মতিন বলেন, ঘটনাটি আমি শুনেছি এবং দু’পক্ষকে ডেকে একটি মীমাংসা করা হয়েছিলো। মর্ডান ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের পরিচালক রাজ্জাক দিবেন ১ লাখ এবং ডা. শর্মিন আহমেদ ১ লাখ টাকা। কিন্তু ক্লিনিক মালিক পক্ষ টাকা না দিয়ে ক্লিনিকটি অন্যথায় বিক্রি করে দি‌য়ে পা‌লি‌য়ে‌ছে। ক্লিনিক মালিক পক্ষের সঙ্গে বহুবার যোগাযোগ চেষ্টায় ব্যর্থ হয়েছি।

[৯] রাজবাড়ীর সিভিল সার্জন ডাঃ‌ মোহন্মদ ইব্রা‌হিম টিটন বলেন, বিষয়টি আমি অবগত আছি। সংশ্লিষ্ট চিকিৎসক ও যে হাসপাতালে এমন ভুলের ঘটনাটি ঘটি‌য়ে‌ছে তা উল্লেখ করে স্বজনরা লিখিত অভিযোগ করলে তদন্ত করে জড়িতদের বিরুদ্ধে বিধিমোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ ক‌রা হ‌বে।

[১০] পাংশা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন বলেন, এ বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলেছি, বিষয়টি তদন্তধীন রয়েছে। দ্রুত সম‌য়ের ম‌ধ্যেই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হ‌বে। সম্পাদনা: হ্যাপি

  • সর্বশেষ