প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ভ্যাকসিন নিয়ে দু’দেশের আলোচনা হয়েছে, চুক্তি হয়নি তবে দ্রুতই বাংলাদেশ ভাকসিন পাবে: চীন

তরিকুল ইসলাম: [২] ঢাকায় চীন দূতাবাসের ডেপুটি চিফ অব মিশন হুয়ালং ইয়ান এ তথ্য জানিয়ে বলেছেন, ভ্যাকসিন আমদানিতে কোনো চুক্তিই হয়নি। বাণিজ্যিকভাবে ভ্যাকসিন আমদানিতে এখন পর্যন্ত চীন অথবা সিনোফার্মের সঙ্গে কোনো চুক্তিই করেনি বাংলাদেশ।

[৩] এ নিয়ে বাংলাদেশ থেকে যা কিছুই শোনা যাচ্ছে তা মোটেই ঠিক নয় এবং এখানকার গণমাধ্যমগুলো যা লিখে তা সম্পূর্ণ অসত্য।

[৪] হুয়ালং ইয়ান জানান, উভয় দেশের মাঝে ভ্যাকসিন ইস্যুতে আলোচনা হয়েছে। এর বাইরে এ নিয়ে চূড়ান্ত কোনো অগ্রগতি হয়নি এবং দ্রুতই বাংলাদেশ ভাকসিন পেতে যাচ্ছে।

[৫] এর আগে প্রথম দফায় গত ১২ মে বাংলাদেশকে সিনোফার্মের পাঁচ লাখ ডোজ ভ্যাকসিা উপহার দেয় দেশটি। চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই ২১ মে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনকে টেলিফোনে জানান, চীন বাংলাদেশকে উপহার হিসেবে এই ছয় লাখ ডোজ ভ্যাকসিন বন্ধুত্বের নিদর্শন স্বরুপ দেবে।

[৬] ১৩ জুন ছয় লাখ ডোজ ভ্যাকসিন উপহার এলে দেশটি থেকে উপহারের প্রাপ্ত ভ্যাকসিন ১১ লাখ ডোজ হবে।

[৭] বাংলাদেশ-চীনের টিকা কূটনীতির প্রক্রিয়ার মাঝেই বাংলাদেশে নিযুক্ত দেশটির রাষ্ট্রদূত লি জিমিং দাবি করেন, দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে না পারা ও সময়ক্ষেপণের কারণে টিকা কিনতে দেরি হয়েছে বাংলাদেশের।

[৮] চীন বন্ধু দেশ হিসেবে বাংলাদেশের করোনা পরিস্থিতি গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে এবং বাংলাদেশের জনগণের পাশে দাঁড়িয়েছে।

[৯] পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, সম্প্রতি চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং কোভিড-১৯ এর টিকা সবার জন্য সহজলভ্য করার তাগিদ দিয়েছেন। আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও অনেকদিন ধরে একই কথা বলে আসছেন।

[১০] দক্ষিণ এশিয়ার কোন দেশে যদি কোভিড ১৯ এর টিকা জরুরি ভিত্তিতে দরকার হয় তা যেন দ্রুততার সঙ্গে সরবরাহ করা যায় চীন এখন সেদিকে নজর দিচ্ছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত