প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বাইশ গজে দুটো আক্ষেপের কথা স্বীকার করলেন শচীন টেন্ডুলকার

স্পোর্টস ডেস্ক: [২] তার ব্যাটে রয়েছে ১০০টি আন্তর্জাতিক শতরান। দেশের হয়ে জিতেছেন বিশ্বকাপ। বাইশ গজে এমন কোনও কৃতিত্ব নেই যা তিনি পাননি। তাকে বাইশ গজ চেনে ক্রিকেটের ঈশ্বর বলে, তিনি হলেন শচীন টেন্ডুলকার। ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সাফল্য পাওয়ার পরেও আক্ষেপে দিন কাটছে শচীনের। বিশ্বাস না হলেও এটাই সত্যি, নিজের আক্ষেপের কথা জানিয়েছেন শচীন নিজেই। ক্রিকেট ডট কমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারের তিনি জানিয়েছেন নিজের আক্ষেপের কথা।

[৩] শচীন জানিয়েছেন, আমার দুটো আক্ষেপ রয়েছে। প্রথমটা হল আমি কখনও সুনীল গাভাস্করের সঙ্গে খেলতে পারিনি। যখন আমি বড় হয়ে উঠছি তখন থেকেই মাননীয় গাভাস্কর হলেন আমার ব্যাটিং নায়ক। এবং তার সঙ্গে এক দলে এক সঙ্গে না খেলার আক্ষেপটা থেকে যাবে। আমি আমার অভিষেক করার বেশ কয়েক বছর আগে তিনি অবসর নিয়ে নিয়েছিলেন।

[৪] সুনীল গাভাস্করের সঙ্গে টিম ইন্ডিয়ার জার্সি পড়ে সাজঘর ভাগ করার অভিজ্ঞতা থেকে বঞ্চিত থেকেছেন মাস্টার ব্লাস্টার। সেই যন্ত্রনা সারা জীবন বয়ে বেরাতে হচ্ছে তাকে। ছোট বয়সের নায়কের সঙ্গে বাইশ গজে না নামার আক্ষেপ যেমন শচীনের রয়েছে তেমনই ভারতীয় ক্রিকেটের দুই নায়ককে একসঙ্গে না দেখার আক্ষেপ ভারতীয় ক্রিকেট প্রেমীদেরও রয়েছে। বিশ্ব ক্রিকেটও এই দুই কিংবদন্তিকে একসঙ্গে বাইশ গজে ব্যাট হাতে নিয়ে নামতে দেখতে পেল না।

[৫] শচীনের অন্য আরও একটি আক্ষেপ হল তিনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে স্যার ভিভ রিচার্ডসের বিরুদ্ধে খেলতে পারলেন না। দেশের হয়ে ভিভ রিচার্ডসের বিরুদ্ধে খেলতে পারেননি তিনি। শচীন জানিয়েছেন, আমার অন্য আরও একটি আক্ষেপ হল যে, আমি আমার ছোট বয়সের আর এক নায়ক স্যার ভিভ রিচার্ডসের বিরুদ্ধে খেলতে পারিনি।

[৬] যদিও আমি ভাগ্যবান ছিলাম যে কাউন্টি ক্রিকেটে আমি তার বিরুদ্ধে খেলেছিলাম। তবু আন্তর্জাতিক ম্যাচে তার বিরুদ্ধে ম্যাচ না খেলার অনুতাপ আমার মধ্যে রয়েছে। যদিও স্যার রিচার্ডস ১৯৯১ সালে অবসর নিয়েছিলেন এবং কয়েক বছর আমরা একই সময় মাঠে নেমেছিলাম তবু একে অপরের বিরুদ্ধে আমরা কখনও খেলিনি। – হিন্দুস্তানটাইমস

সর্বাধিক পঠিত