প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

১৮ বছরের ক্যারিয়ারে করছো টা কি তুমি?! সেই নোবেলকে তুমি বাপ তুলে গালি দাও

ডেস্ক রিপোর্ট : কণ্ঠশিল্পী নোবেল যেনো নিয়মিত এক বিতর্কের নাম। ভারতের সারেগামাপা থেকে পরিচিত পাওয়ার পর থেকেই একের পর এক বিতর্কের জন্ম দিচ্ছেন এই শিল্পী। হচ্ছেন সমালোচিতও। সে বিতর্ক কখনও অন্যকে বাজে মন্তব্য করে, কখনো গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি বা বিষয় নিয়ে কটূক্তি করে ।

এবারও তার ব্যতিক্রম হলো না। সম্প্রতি নোবেলের ফেসবুজ পেজে কখনো রকস্টার জেমসকে নিয়ে বাজে মন্তব্য করেন। এ নিয়ে সমালোচনা শুরু হলে পরে জানা যায় আইডি হ্যাক হয়েছে নোবেলের। দিন কয়েক আগেও একই ঘটনা দেখা যায় নোবেলের ফেসবুক পেজে। পেজ হ্যাকড হওয়ার পর শনিবার সেটি উদ্ধার হয়েছে বলে জানান নোবেল। তবে বারবার পেজ হ্যাক হওয়া ও রহস্যজনকভাবে উদ্ধার হওয়াকে নোবেলের নাটক বলছেন নেটিজনরা।

বিষয়টি নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার সময়েই নতুন বিতর্কে জড়ালেন নোবেল। এবার তিনি সংগীত পরিচালক আহমেদ হুমায়ূনের সঙ্গে বিবাদে জড়িয়েছেন৷ এর মূলে আছে গানের সুর ও সংগীতায়োজনের মালিকানা৷

ঈদের দিন থেকে নোবেল তার পেজে নতুন গান ‘মেহেরবান’ এর প্রচারণা চালাচ্ছেন। সেখানে গানটির পরিচয় দিতে গিয়ে তিনি সুর ও সংগীতে নিজের নাম উল্লেখ করেন৷ তবে বেশ অনেকদিন ধরেই এটা প্রকাশিত যে ‘মেহেরবান’ গানটি নোবেল গাইছেন আহমেদ হুমায়ূনের সুর ও সংগীতে৷ তাই তার নাম বাদ পড়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন আহমেদ হুমায়ূন।

ফেসবুকে তিনি লিখেছেন, ‘এই শাস্তি আমার জন্য খুব দরকার ছিলো। কারণ পাপ আমি করেছি শাস্তিতো আমাকেই পেতে হবে। এক অমানুষ মানুষ করার দায়িত্ব নিয়েছিলাম। কিন্তু ভুলেই গেছিলাম অমানুষ তো আর মানুষ হবার নয়।এই অপরাধে আপনারা আমাকে শাস্তি দিন। যার যা মন চায় তাই শাস্তি দিন। আমি মাথা পেতে নেবো। আমার সুর সংগীত করা গান তার নামে পোস্ট দিয়েছে। অথচ সারাদেশ জানে আপকামিং এই মেহেরবান গান আমার সুর সংগীত করা। আমিও দেখি এই গান তোর মত অমানুষের নামে কেমনে রিলিজ হয়।’

 

নোবেল আইডি হ্যাকের নামে প্রতারণা করেন দাবি করে হুমায়ূন আরও লেখেন, ‘আর হ্যাঁ আইডি হ্যাক করার নামে যে নতুন নাটক চলতেছে এগুলা কেউ বিশ্বাস কইরেন না প্লিজ। এগুলো ও নিজেই করে। আমি সত্যিই এই জাতির কাছে লজ্জিত। পারলে আমাকে ক্ষমা করে দিয়েন সবাই।’

এই আহমেদ হুমায়ূনের হাত ধরেই দেশের ঐতিহ্যবাহী সংগীত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান সাউন্ডেটেকের সঙ্গে একাধিক গানের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন নোবেল।

এদিকে এ সংগীত পরিচালকের বিরুদ্ধে মামলার হুমকি দিয়ে পালটা দীর্ঘ এক স্ট্যাটাস দিয়েছেন নোবেল৷ সেখানে তিনি লেখেন, ‘হায়রে হুমায়ূন! তুমি জানি কে? কোনোদিন তো তোমার নামও শুনি নাই আগে! তিনবার রিজেক্ট করার পর হাতে পায়ে ধরে ‘অভিনয়’ গাওয়াইছো! তাও আবার ৯ লাখ টাকা খরচ করে। জীবনে ৬০০ গান করছো! পরে শুনে দেখলাম, অর্ধেকের বেশি গানের সুর নকল! হাহাহা!! ‘কিং খান’ থেকে শুরু করে ডিরেক্টর ‘ইফতেখার চৌধুরী’ সবার সাথেই কাজ করছো। ভালো কথা। তবুও একটা হিট গানের নাম জিজ্ঞাস করলে এক বাক্যে বলতে বাধ্য তুমি! বলো তো কি গান? ‘অভিনয়!!’ তাইনা ছোটো ভাই?

১৮ বছরের ক্যারিয়ারে করছো টা কি তুমি?! সেই নোবেলকে তুমি বাপ তুলে গালি দাও?! কত বড় অকৃতজ্ঞ মানুষ তুমি!! তোমার কত মাসের বাড়ি ভাড়া দিছি আমি, ভুলে গেছো? ব্যাপার না। গরীবদের দান করতে আমি ভালোবাসি। নিজে তো অভাবে পড়ে রাজশাহী ভাগছো ঘটিবাটি নিয়ে। বউও ভাগছে অন্য পোলার সাথে। গাড়িটাও নিয়ে গেছে। তোমার পুরুষত্য নিয়ে প্রশ্ন আছে আমার! ‘মেহেরবান’ গানের ৫০% সুর-সঙ্গীত আমার করা লাগছে। তুমি নিজে স্বীকার করেছো হুমায়ূন! মামলা খাওয়ার জন্য রেডি থাকো! স্ক্রিনশট দিয়ে দিলাম! সবাই দেখো, কি নোংরা কথা বলছে আমাকে!’

সূত্র- সমকাল

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত