প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] রাজশাহীর মার্কেটে মার্কেটে কেনাকাটার ধুম, উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি

ইফতেখার আলম: [২] করোনা শঙ্কা ভুলে বিধিনিষেধের মধ্যেও রমজানের শেষ সপ্তাহে এসে ঈদের কেনাকাটার ধুম পড়েছে রাজশাহীর বিপনী বিতানগুলোতে। তবে কোথাও মানা হচ্ছে না করোনাভাইরাস সংক্রমনের বিধিনিষেধ। ক্রেতা বিক্রেতার অনেকেই স্বাস্থ্যবিধি না মেনে কেনাকাটা করছেন।

[৩] রাজশাহীর নগরীর সবচেয়ে বড় বিপনী বিতান আরডিএ মার্কেট। শুক্রবার দুপুরে এ মার্কেটে গিয়ে দেখা গেছে সেখানে মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি। বিশেষ করে অনেকেই শিশুদের নিয়ে গেছেন মার্কেটে। আবার তাদের মুখে মাস্কও নেই। এছাড়াও অনেক ব্যবসায়ীরা মাস্ক না পরে ও সঠিক ভাবে মাস্ক না পরে ব্যবসা পরিচালনা করছেন। ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়ে উদাসীন বিক্রেতারা। আর ক্রেতারা বলছেন, স্বাস্থ্যবিধি মানতে মার্কেট কর্তৃপক্ষকে নিশ্চিত করতে হবে।

[৪] সকাল থেকে রাজশাহী নগরীর আরডিএ, গণকপাড়া এলাকার বেশ কয়েকটি শপিংমল ঘুরে স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়ে উদাসীনতা দেখা যায় সর্বত্র। মার্কেটে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতের কোনও মনিটরিং ব্যবস্থা চোখে পড়েনি। স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে মার্কেট খোলার প্রথম দিকে হ্যান্ড মাকিং করে হ্যান্ড স্যনিটাইজার দিয়ে ক্রেতাদের মার্কেটে প্রবেশ করানো হতো।

[৫] মার্কেট গুলোতে অনেক বিক্রেতা ও ক্রেতারা মাস্ক পড়েই কেনা-টাকা করছেন। শুক্রবার আরডিএ মার্কেট ঘুরে এখন অনেক পরিবর্তন দেখা যায়। নেই সামাজিক দূরত্ব, মাস্ক না পড়া ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার না করেই ব্যবসা পরিচালনা করা হচ্ছে। কিছু ব্যবসায়ী নিজ উদ্যেগে হ্যান্ড স্যানিটাইজার রেখেছেন দোকানে।

[৬] মার্কেটে আসা কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কয়েকদিন আগেও গেটের প্রবেশ পথে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করে মার্কেটে প্রবেশ করতে হতো, এখন তার ভিন্ন চিত্র। হাত ধোয়া কিংবা স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা নেই। আর মার্কেটের ভেতরেও মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি। স্বাস্থ্যবিধি মানাতে মার্কেট কর্তৃপক্ষের কোনও তৎপরতাও চোখে পড়েনি।

[৭] রাজশাহী জেলা প্রশাসক আব্দুল বলেন, স্বাস্থ্যবিধি ঠিক রাখতে আমাদের কয়েকটি ম্যজিস্টেটসহ টিম নগরীর বিভিন্ন জায়গায় নজরদারি রেখেছে। এই বিষয়ে আমরা মানুষকে সচেতন করছি।

[৮] এদিকে মার্কেটগামী মানুষের চাপে রাজশাহী নগরীতে বেড়েছে তীব্র যানজট। কোথাও কোনো বিধি নিষেশ মানার বালায় নেই। ঈদের কেনাকাটায় মানুষ লাইন ধরে ভীড় করছে দোকানে দোকানে। সম্পাদনা: হ্যাপি

সর্বাধিক পঠিত