প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বিশ্ব গণমাধ্যম সূচকে আরও এক ধাপ পিছিয়ে ১৮০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ১৫২তম, ভারত-পাকিস্তান কিছুটা এগিয়ে 

আসিফুজ্জামান পৃথিল: [২] মহামারিকালীন আয় কমায় স্বাধীনতা খর্ব হচ্ছে। মঙ্গলবার রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারস (আরএসএফ) ২০২১ সালের এই সূচক প্রকাশ করে। ২০২০ সালের সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১৫১তম। আর ২০১৯ সালের সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১৫০তম। এবারের সূচকে প্রতিবেশী দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান সবার নিচে।

[৩] এই সূচকে পাকিস্তান ১৪৫, ভারত ১৪২, মিয়ানমার ১৪০, শ্রীলঙ্কা ১২৭, আফগানিস্তান ১২২, নেপাল ১০৬, মালদ্বীপ ৭৯ ও ভুটান ৬৫তম অবস্থানে রয়েছে। বিশ^ সবচেয়ে স্বাধীন নরওয়ের গণমাধ্যম। এরপরেই আছে ফিনল্যান্ড সুইডেন, ডেনমার্ক ও কোস্টারিকা। যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান ৪৪।

[৪] প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাংলাদেশে ২০২০ সালে লকডাউন চলাকালে সাংবাদিকদের ওপর পুলিশ ও বেসামরিক সহিংসতা উদ্বেগজনকভাবে বেড়েছে। মহামারি ও সমাজে তার প্রভাব নিয়ে প্রতিবেদনের জন্য অনেক সাংবাদিক, বøগার, কার্টুনিস্ট গ্রেপ্তার ও বিচারের মুখোমুখি হয়েছেন।

[৫] বিশেষ উদ্দেশ্য অর্জনে সাংবাদিকদের মুখ বন্ধ করতে সরকারের কাছে এখন একটি বিচারিক অস্ত্র আছে। তা হলো, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন। এই আইনে ‘নেতিবাচক প্রচারণা’র দায়ে সর্বোচ্চ সাজা ১৪ বছরের কারাদণ্ড। ফলে আত্মনিয়ন্ত্রণ বেড়ে গেছে। সম্পাদকেরা সংগত কারণেই জেল বা গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠান বন্ধের ঝুঁকি এড়াতে চান।

[৫] সরকার গণমাধ্যমের বিরুদ্ধে লক্ষণীয় কঠোর অবস্থান নিয়েছে। দলীয় নেতা-কর্মীদের হাতে সহিংসতার শিকার হয়েছেন সাংবাদিকেরা। তাদের নির্বিচারে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এছাড়াও গণমাধ্যমের আয় কমার প্রভাবও পড়ছে স্বাধীনতায়। আর্থিক সঙ্গতি না থাকায় অনেকেই মুক্তভাবে কথা বলতে পারছেন না।

[৬] এই তালিকায় সবার নিচে আছে ইরিত্রিয়া। এরপরেই আছে উত্তর কোরিয়া, তুর্কমিনেস্তান, চীন ও জিবুতি।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত