প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

খান আসাদ: আপনি কার জন্য রাজনীতি করছেন?

খান আসাদ: আমি রিকশা চালাই, গার্মেন্টসে কাজ করি, ছোট দোকানদার, কৃষি শ্রমিক, কাজের বুয়া। আপনি আমারে বোঝাচ্ছেন, ‘ভোটের অধিকার নেই’, ‘দেশে গণতন্ত্র নেই’,‘সংবিধান বদলাইতে হবে’। ভোটের অধিকার দিয়ে কী হবে ভাই? গণতন্ত্র ধুয়ে কি পানি খাওয়া হবে? সংবিধান পড়ে কী ব্যাংকলুট করছে, ঘুষ খাচ্ছে, বিদেশে টাকা পাচার করছে? আমি বেকার। আপনি এসে আমাকে বোঝাচ্ছেন ‘আওয়ামী লীগ ফ্যাসিস্ট’। ‘ফ্যাসিস্ট’ কী আমি বুঝি না, কিন্তু আমি বুঝি আপনি আওয়মী লীগেরে গালি দিচ্ছেন। কারণ আপনি বিএনপি জামায়াতের লোক। আপনার ধান্দা আপনার পছন্দের দলকে ক্ষমতায় নেওয়া। আপনি আমাকে নিয়ে দল ভারী করতে চান। আমার সোমত্ত মেয়ে একা চলতে ভয় পায়। চ্যাংড়া পোলা থেকে থেকে শুরু করে পাকা দাঁড়ির বুইড়া লোকটাও চোখ দিয়ে গিলতে চায়। আপনি বলছেন, পর্দা করতে, শালীন পোশাক পরতে। আপনারা এ জানোয়ারগুলোকে খাঁচায় না রাইখা, আমার মেয়েকে বলছেন- হিজাব ধরতে, এ গরমের মধ্যে। আপনের হিজাবের ব্যবসা আছে, তাই না?

সকল মানুষের উন্নয়নের কথা বলছেন। কিন্তু বানাইতেছেন পদ্মা সেতু। ওই সেতু দিয়ে গাড়ি ওয়ালারা যাবে, গরিব মানুষের লাভ কী? যে বিদেশিরা ওই সেতু বানিয়েছে, আসল লাভ তো তাদের। গরিব মানুষের ছেলে-মেয়েগুলোকে উন্নত শিক্ষা দিয়ে মানুষ বানানোর বাজেট আপনাদের নেই, কিন্তু সেতু বানানোর টাকা ঠিকই আছে।

গরিবের বাচ্চারা মাদ্রাসায় পাস দিয়ে কোথায় চাকরি পাবে? কথায় কথায় মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বুলি আওড়ান, কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ কি আছে? ভাইলোগ, আপনার রাজনীতির তত্ত্ব, কে স্বৈরাচার, কে ফ্যাসিস্ট, কে চেতনাধারী, আর কার ধর্মঅনুভূতি খসে গেলে, এ নিয়ে ব্যস্ত থাকতে পারেন, আপনার ইচ্ছা। কিন্তু তাতে বাংলাদেশের বেকার, দরিদ্র শ্রমজীবী, সহিংসতার শিকার নারী ও শিশুদের অবস্থার পরিবর্তন হবে না। বৈষম্য ও সহিংস এ ব্যবস্থার বদল হবে না। আপনি কার জন্য রাজনীতি করছেন? কী আপনার লক্ষ্য? কী ধরনের সমাজ, অর্থনীতি, সংস্কৃতি, শিক্ষা ও রাষ্ট্র ব্যবস্থা আপনি দেখতে চান? আসেন আগে এগুলো পরিষ্কার করি। একমত হওয়ার চেষ্টা করি। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত