প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বোরহানউদ্দিনে দখল-দূষণে খাল, বোরো আবাদ ব্যাহত

মনিরুজ্জামান:[২] যে যার মতো করে দখল করছে খাল। দখল-দূষণে অস্তিত্ব হারাচ্ছে ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার খালগুলো। প্রভাবশালীরা বাড়াচ্ছে তাদের স্থাপনার দৈর্ঘ্য- প্রস্থ । এতে করে খালের পানির স্বাভাবিক গতি ব্যাহত হচ্ছে। নাব্য সংকট তীব্র আকার ধারণ করছে। এ সমস্ত কারণে চলতি বোরো মৌসুমী উপজেলার ৪ ইউনিয়নের ১১ টি খালের ১২.১৯ হেক্টর ‌জমি পতিত প্রায়।

[৩] ২২৯২ জন কৃষক ৩-৪ ফসলি জমির আবার থেকে বঞ্চিত। যার কারণে কৃষক পেশা পরিবর্তন করছেন। কমছে কৃষি পণ্য উৎপাদন।উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি বোরো মৌসুমে বোরহানউদ্দিন উপজেলায় ১০ হাজার ২০০ হেক্টর জমি আবাদ হয়েছে। যেখানে গড় উৎপাদন হবে ৫১ হাজার মেট্রিক। উপজেলার পৌর ১ নং ওয়ার্ড, পক্ষিয়া, কুতুবা, বড়মানিকা, কাচিয়া ইউনিয়নের ১১ টি খাল দখল দূষণ আর নাব্য সঙ্কটে ভুগছে।

[৪] এসব কারণে এখানে ৩০০৯ একর (১২.১৯) হেক্টর জমির বোরো আবাদ ব্যাহত হচ্ছে। এতে করে ৬০.৯২ মেট্রিক টন বোরো আবাদ কম হচ্ছে প্রতি মৌসুমে। এর সাথে সংশ্লিষ্ট২২৯২ জন কৃষক পেশা পরিবর্তন করতে বাধ্য হয়েছেন। টবগী,হাসাননগর ,গঙ্গাপুর, সাচড়া,দেউলা ইউনিয়নের পরিসংখ্যান তাহলে এর মাত্র দ্বিগুণের বেশি হবে বলে জানান কৃষকরা।

[৫] কৃষি বিভাগের দাবি, বোরো আবাদে সেচ সুবিধা বৃদ্ধির জন্য খাল পুনঃখনন কিংবা বারিড পাইপ স্থাপনের জন্য বিএডিসি বরিশাল রিজনে চাহিদা পত্র প্রেরণ করলেও ফলাফল পাওয়া যায়নি।

[৬] উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা খায়রুল আলম মুন্সী জানান, পক্ষিয়া ইউনিয়নের বোরহানগঞ্জ বাজার থেকে নোওয়াব মিয়ার হাট হয়ে মেঘনার বেড়িবাধ পর্যন্ত এলাকায় বর্তমানে ২৭৫ হেক্টর জমি আবাদ হয়।খালগুলোর দখলমুক্ত কিংবা পূন:খনন করতে পারলে বাড়তি ১ হাজার হেক্টর ৩-৪ ফসলি জমি চাষাবাদের আওতায় আনা যাবে। উৎপাদন বাড়বে প্রায় ৫ হাজার মেট্রিকটন বোরো ধান । সম্পাদনা:অনন্যা আফরিন

সর্বাধিক পঠিত