প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বগুড়ায় মেয়েকে ধর্ষণের ঘটনায় বাবা গ্রেপ্তার

বগুড়া প্রতিনিধিঃ [২] জেলার শেরপুুর উপজেলার দ্বাড়কিপাড়া এলাকায় ১২বছরের মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগে লম্পট বাবা আবুল খালেককে (৪৫)কে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এছাড়া গ্রেপ্তারকৃত খালেককে শনিবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

[৩] শুক্রবার দিবাগত রাতে শেরপুুর উপজেলার কুসুম্বী ইউনিয়নের দাড়কিপাড়া এলাকায় ঘটনাটি ঘটে। উক্ত ঘটনায় নির্যাতনের শিকার শিশুটির মাতা মোছাঃ লাভলী খাতুন বাদি হয়ে থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন।

[৪] মামলার সূত্রে জানা যায়, উপজেলার বাগড়া বস্তিপাড়া গ্রামের আয়েজ উদ্দীনের ছেলে আব্দুল খালেক বিগত তিনবছর আগে মামলার বাদি স্ত্রী লাভলী খাতুনকে তালাক দেন। এরপর আবার বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন আব্দুল খালেক। তবে তাদের একমাত্র কন্যা শিশুটি তার বাবার সঙ্গে দ্বাড়কিপাড়া এলাকাস্থ ভাড়া বাসায় থাকতেন। আর পার্শ্বেই অবস্থিত উপজেলা সদর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ালেখা করতো।

[৫] প্রতিদিনের ন্যায় গত ২০অক্টোবর রাতের খাওয়া দাওয়া শেষে ঘুমিয়ে পড়ে মেয়েটি। আর তার সৎ মা স্থানীয় একটি রাইস মিলে কাজ করার জন্য যান। এই সুযোগে রাত অনুমান দেড়টায় লম্পট বাবা খালেক মেয়ের শয়ন কক্ষে ঢুকে জোরপূর্বক তাকে ধর্ষণ করে। সেইসঙ্গে ধর্ষণের বিষয়টি গোপন রাখার জন্য নানা ভয়ভীতি দেখায়। তাই সামাজিক মান-মর্যাদা ও লোকলজ্জার ভয়ে বিষয়টি গোপন রাখলেও ধীরে ধীরে শারিরীক ও মানসিকভাবে দূর্বল হতে শুরু করে মেয়েটি।

[৬] এরপর প্রতিবেশী দুই নারীকে ঘটনাটি জানালে এর একপর্যায়ে ঘটনাটি এলাকায় জানাজানি হওয়ার পর স্থানীয় লোকজন লম্পট খালেককে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। এসময় উপস্থিত লোকজনের সামনেই নিজ মেয়েকে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেন তিনি। পরে থানায় খবর দেয়া হয় এবং পুলিশ ঘটনাস্থলে এলে তাকে সোপর্দ করা হয় বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে।

[৭] শেরপুর থানার পুলিশ অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শহীদুল ইসলাম এ প্রতিবেদক-কে বলেন, এ ঘটনায় থানায় মামলা নেয়া হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আব্দুল খালেক নিজের কৃতকর্মের জন্য ভুল স্বীকার করে বলেন, মাথা ঠিক ছিলো না তাই এমনটি করেছি। শিশুটির ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য বগুড়া (শজিমেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়। সম্পাদনা: জেরিন আহমেদ

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত