প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] মোহনগঞ্জে যুবলীগ নেতাকে রামদা দিয়ে কুপিয়ে জখম

সাইফুল আরিফ জুয়েল: [২] রাতের আঁধারে রাস্তায় দড়ি দিয়ে পথ রোধ করে মোটরসাইকেল থামিয়ে রামদা দিয়ে কুপিয়ে যুবলীগ নেতাকে জখম করেছে একদল সন্ত্রাসী।

[৩] এ ঘটনা নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে। সোমবার (২৮ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে পৌরশহরের দেওথান এলাকার সড়কে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় গোলাপ মিয়া নামে এক ধান ব্যবসায়ীর কাছ থেকে এক লাখ পাঁচ টাকা কেড়ে নেয় সন্ত্রাসীরা।

[৪] আহত ওই যুবলীগ নেতার নাম মোকাররম হোসেন (২৫)। তিনি উপজেলার বড় বেথাম গ্রামের সোহরাফ শাহর ছেলে। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় রাতেই তাকে ময়মনসিংহ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

[৫] মঙ্গলবার (২৯ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় সংবাদ সম্মেলন ডেকে ঘটনার বিস্তারিত বর্ণনা দেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও মাঘান-সিয়াধার ইউপির চেয়ারম্যান মো. আবু বকর সিদ্দিক। এ সময় উপস্থিত ছিলেন পৌর তাঁতী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান নান্টু, আওয়ামী লীগ নেতা সুলতান আহমেদ প্রমুখ।

[৬] চেয়ারম্যান আবু বকর বলেন, ‘সোমবার দিবাগত রাতে মোটরসাইকেল করে মাঘান থেকে মোহনগঞ্জ আসছিল ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা মোকাররম হোসেন। পথে দেওথান এলাকায় সড়কে দড়ি দিয়ে মোটরসাইকেল থামিয়ে তাকে রামদা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আতহ করে স্থানীয় সোহান, সোহাগ, সৈকত, রুমান ও মোফাজ্জলসহ একদল সন্ত্রাসী। এ সময় তার ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটি আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়।

[৭] হামলার এক পর্যায়ে কোন রকমে তাদের হাত থেকে পালিয়ে পাশের একটি বাড়িতে গিয়ে আশ্রয় নেয় মোকাররম। ওই বাড়ির লোকজন তাকে আমার বাসায় পাঠালে আমি রাতেই এ্যম্বুলেন্স ব্যবস্থা করে ময়মনসিংহ পাঠাই। পরে ফোনে ঘটনাটি ওসি’কে জানালে পুলিশ পাঠিয়ে তিনি মোটরসাইকেলটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে রাখেন।’

[৮] তিনি বলেন, এখানেই শেষ নয়, পরে বাজার থেকে বাড়িতে ফেরা গোলাপ মিয়া নামে এক ধান ব্যবসায়ীর কাছ থেকে এক লাখ পাঁচ হাজার টাকা কেড়ে নেয়। এসব ঘটনাকে সন্ত্রাসী কার্যক্রম উল্লেখ করে এর নিন্দা জানান।

[৯] আওয়ামী লীগ নেতা আবু বকর আরো বলেন, ‘হামলাকারীরা এলাকার চিহ্নিত মাদকসেবী। এদের নামে মাদকের অসংখ্য মামলা রয়েছে।’ এ ঘটনায় থানায় মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলেও জানান তিনি। সম্পাদনা: সাদেক আলী

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত