প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] জুভেন্টাস জিতেও লাভ হয়নি, কোয়ার্টার ফাইনালে লিওঁ

স্পোর্টস ডেস্ক : [২] নিজের সেরাটা দিয়েই খেললেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। একাই করেছেন জোড়া গোল। নিজেদের মাঠে ফিরতি লেগে দলকে জয়ও এনে দিয়েছেন। এরপর চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার-ফাইনালে ওঠা হলো না জুভেন্টাসের। প্রতিপক্ষের মাঠে গোল করার সুবিধা নিয়ে পরের রাউন্ডের টিকিট নিশ্চিত করল অলিম্পিক লিওঁ।

[৩] নিজেদের মাঠ তুরিনোয় শুক্রবার রাতে অনুষ্ঠিত ম্যাচটিতে লিওঁকে ২-১ গোলে হারায় জুভেন্টাস। এর আগে করোনা মহামারির আগে ফেব্রুয়ারিতে নিজেদের মাঠে সেরি আ’র ক্লাবটিকে নিজেদের মাঠে ১-০ গোলে হারিয়েছিল লিওঁ। দুই লেগ মিলিয়ে স্কোরলাইন দাঁড়ায় ২-২। কিন্তু প্রতিপক্ষের মাঠে গোল করার সুবিধা নিয়ে কোয়ার্টার-ফাইনালে উঠল প্যারিসের ক্লাবটি।

[৪] বাঁচা-মরার লড়াইয়ে অষ্টম মিনিটেই গোল খেতে বসেছিল জুভেন্টাস। তবে হোসাম আউয়ারের পোস্ট ঘেঁষে নেওয়া শট ঝাঁপিয়ে রুখে দেন দলটির গোলরক্ষক ভয়চেখ স্ট্যাসনি। চার মিনিট ঠিকই এগিয়ে যায় লিওঁ। তবে পেনাল্টি থেকে পাওয়া গোলটি ছিল বিতর্কিত। ডি-বক্সে ঢুকে পড়া ফরাসি মিডফিল্ডার হুসেম আউয়ারকে ফাউল করেন জুভেন্টাসের রদ্রিগো বেন্তানকুর। তাতে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি।

[৫] টিভি রিপ্লেতে পরিষ্কার ফাউলও মনে হয়েছে, বলে পাও লাগিয়েছিলেন আউয়ার। কিন্তু ভিএআর দেখার পরও সিদ্ধান্ত বহাল রাখা হয়। তবে নিখুঁত স্পট কিকে গোল করে অতিথিদের এগিয়ে নেন ডাচ ফরোয়ার্ড ডেপাই।

[৬] প্রথমার্ধের নির্ধারিত সময়ের খেলা শেষ হওয়ার দুই মিনিট আগে ম্যাচে সমতায় ফেরান রোনালদো। স্পট-কিক থেকে গোলটি করেন পর্তুগিজ এই ফরোয়ার্ড। ডি-বক্সে ডেপাইয়ের হ্যান্ড বল হলে পেনাল্টির সিদ্ধান্ত দেন রেফারি।

[৭] ৬০ তম মিনিটে আরও একটি গোল করে জুভেন্টাসের জয় নিশ্চিত করে রোনালদো। সতীর্থ ফেদেরিকো বের্নারদেস্কির পাস থেকে বল পেয়ে ডি-বক্সের বাইরে থেকে বাঁ পায়ের জোরালো শটে গোলটি করেন পাঁচবারের বর্ষসেরা ফুটবলার।

[৮] জুভেন্টাসের হয়ে এক মৌসুমে সব ধরনের প্রতিযোগিতায় ৩৭ গোলে মৌসুম শেষ করলেন রোনালদো। তাতে ভেঙে দিলেন ৯৫ বছর আগে গড়া স্ট্রাইকার ফেরেঙ্ক হিরজেরের রেকর্ড। ক্লাবটির হয়ে এক মৌসুমে ৩৫টি গোল করেছিলেন তিনি। কিন্তু জয় পেয়েও লাভ হয়নি রোনালদোদের। শুরুতেই একটি গোল হজম করায় কপাল পুড়েছে তাদের। – গোল ডটকম

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত