প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] মাঠে ক্রিকেট না থাকায় তামিম-মুশফিকদের কোটি টাকার ক্ষতি

স্পোর্টস ডেস্ক : [১] করোনার কারণে একের পর এক টুর্নামেন্ট, সিরিজ স্থগিত হচ্ছে। ঘরোয়া এবং আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের বিনোদন থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন ক্রিকেটপ্রেমীরাও।

[২] তবে মানসিক ও আর্থিক দিক থেকে বড় ক্ষতিটা হচ্ছে ক্রিকেটারদের। প্রথমত ম্যাচ খেলতে না পারায় ক্রিকেটীয় দিক থেকে পিছিয়ে পড়ছেন তারা। অন্যদিকে অর্থকড়ি উপার্জনে প্রভাব পড়ছে। টাকার অঙ্কে হিসেব করলে শুধু ম্যাচ ফি বিবেচনায় গত চার মাসে প্রায় ৬৮ লাখ টাকা ক্ষতির মুখে পড়েছেন বাংলাদেশের শীর্ষ ক্রিকেটাররা।

[৩] বিশেষ করে ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিমসহ তিন ফরম্যাটের জন্য বিসিবির কেন্দ্রীয় চুক্তিতে ঠাঁই পাওয়া ক্রিকেটাররা। চলতি বছরে কেন্দ্রীয় চুক্তিতে লাল ও সাদা বলের ক্যাটাগরিতে ক্রিকেটারদের ভাগ করেছে বিসিবি। লাল ও সাদা বল তথা তিন ফরম্যাটের চুক্তিতেই আছেন সাত ক্রিকেটার। তারা হলেন; তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম, লিটন দাস, নাজমুল হোসেন শান্ত, মোহাম্মদ মিঠুন, তাইজুল ইসলাম ও মেহেদী হাসান মিরাজ। তিন ফরম্যাটের চুক্তিতে থাকলেও তারা সব সিরিজের দলে থাকতেন এমন নয়। তবে তাদের খেলার সম্ভাবনা প্রবল ছিল।

[৪] ২০২০ সালে বাংলাদেশের ১০টি টেস্ট খেলার কথা ছিল। বছরের শুরুতে পাকিস্তান ও জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে একটি করে টেস্ট খেলছে বাংলাদেশ। তারপর ইতোমধ্যে করোনার কারণে পাকিস্তান সফরের একটি, হোমে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে চারটি (দুটি করে) ও শ্রীলঙ্কা সফরের তিনটি টেস্ট স্থগিত হয়ে গেছে। মোট আটটি টেস্ট করোনার পেটে বিলীন হয়ে গেছে। আইসিসির টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের প্রথম চক্রের ফাইনাল না পিছিয়ে গেলে এসব টেস্ট আর হওয়ার সম্ভাবনাও শূন্যের কোটায়।

[৫] টেস্টে এখন বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের ম্যাচ ফি ৬ লাখ টাকা। সেদিক থেকে চলতি বছর স্থগিত হওযা ৮ টেস্টে শুধু ম্যাচ ফি’র হিসেবেই ৪৮ লাখ টাকা হাতছাড়া হয়েছে তামিম-মুশফিক-মুমিনুলদের।

[৬] আয়ারল্যান্ড সফরে বাংলাদেশের ৩টি ওয়ানডে খেলার কথা ছিল। ওয়ানডের ম্যাচ ফি এখন ৪ লাখ টাকা। যেখানে ১২ লাখ টাকা ক্ষতি হয়েছে ক্রিকেটারদের। ক্রিকেটের ক্ষুদে ফরম্যাট টি-২০ তেও ৪টি ম্যাচ ছিল টাইগারদের, সেটা আয়ারল্যান্ড সফরেই। টি-২০’র ম্যাচ এখন ২ লাখ টাকা। তিন ঘন্টার পিকনিক ক্রিকেট থেকে ৮ লাখ টাকা আয় থেকে বঞ্চিত হয়েছেন ক্রিকেটাররা।

[৭] সব মিলিয়ে তিন ফরম্যাটে স্থগিত হওয়া ১৫ আন্তর্জাতিক ম্যাচ থেকে ম্যাচ ফি বাবদ ৬৮ লাখ টাকা হাতছাড়া হয়েছে ক্রিকেটারদের। এছাড়া টিএ-ডিএ, আনুষাঙ্গিক ভাতা ও ব্যক্তিগত স্পন্সর তো আছেই। অঙ্কটা তাই প্রায় কোটি টাকা। প্রথমবারের মতো তিন ফরম্যাটের কেন্দ্রীয় চুক্তিতে আসা লিটন দাস কিংবা বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল ইসলামও এত টাকা হাতছাড়া হওয়ার আক্ষেপ করতেই পারেন। -ক্রিকফ্রেঞ্জি

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত