প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ১ হাজার ৫০০ ক্রিকেটারকে ঈদ উপহার দিচ্ছে বিসিবি

নিজস্ব প্রতিবেদক : [২] করোনা ভাইরাসের কারণে বন্ধ রয়েছে মাঠের ক্রিকেট। সব ধরনের ক্রিকেটীয় কার্যক্রম স্থগিত হওয়ায় বিপাকে রয়েছেন দেশের ক্রিকেটাররা। যাদের আয়ের উৎস, মূলত ক্রিকেট। করোনাকালীন সময়ে দেশের শীর্ষ পর্যায়ের ক্রিকেটারদের পাশে দাঁড়িয়েছিল বিসিবি। দেশের ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থা সহযোগিতার হাত প্রসারিত করেছে চুক্তির বাইরে থাকা ক্রিকেটারদের জন্যও। এবার বিসিবির ঈদ উপহার পেতে যাচ্ছে প্রায় দেড় হাজার প্রান্তিক ক্রিকেটার।

[৩] বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের নির্দেশনা অনুযায়ী ঢাকার প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় বিভাগ ক্লাবগুলোতে খেলা প্রান্তিক ক্রিকেটাররা এবং নারী ক্রিকেটে বিভিন্ন ক্লাবে খেলা ক্রিকেটাররা এই সাহায্য পাবেন। বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী সুজনের দেয়া তথ্য মতে, প্রায় ১ হাজার ৫০০ ক্রিকেটারকে (পুরুষ-নারী) ঈদ উপহার দেবে বিসিবি। ঈদুল ফিতরের আগেই নির্দিষ্ট অঙ্কের অর্থ পৌঁছে যাবে ক্রিকেটারদের কাছে।

[৪] ক্লাব ক্রিকেটে নিচের স্তরে খেলা বিপুল সংখ্যক ক্রিকেটারকে আর্থিক সাহায্য দেওয়া প্রসঙ্গে জানতে চাইলে গতকাল বিসিবির প্রধান নির্বাহী বলেছেন, ‘এটা ঈদের সময় একটা সাপোর্ট দেওয়া। এই সময়ে সবাই তো কম-বেশি টানাটানির মধ্যে আছে। আমাদের মূল বিষয়টা তো খেলোয়াড়দের নিয়ে। এই সময়ে খেলোয়াড়দের পাশে থাকতে না পারলে, যতই আমরা বলি আমরা আর্থিকভাবে সচ্ছল তার তো কোনো অর্থ থাকে না। বোর্ড সভাপতি বলেছেন, আগে আমরা খেলোয়াড়দের জন্য কি করতে পারি, দেখ। ঐ নির্দেশনা থেকেই এটা আসছে।’

[৫] পুরুষ-নারী মিলে দেড় হাজারের বেশি ক্রিকেটার এই সাহায্য পাবেন। নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন বলেন, ‘আমরা পনেরো শতাধিক ক্রিকেটারকে দেব। যারা কেন্দ্রীয় চুক্তি, প্রথম শ্রেণির চুক্তিতে আছে তারা তো কিছু পাচ্ছেই। যারা একদম কিছু পাচ্ছে না, তাদের জন্য এটা করা। তাতে পনেরো শতাধিক ক্রিকেটার আছে ছেলে-মেয়ে মিলিয়ে।

[৬] ক্রিকেটারদের তালিকাও তৈরি হয়েই আছে। প্রত্যেক বিভাগে (প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় বিভাগ) সর্বশেষ লিগে নির্দিষ্ট ক্লাবের হয়ে খেলা ক্রিকেটাররা পাবেন অর্থ সাহায্য। বিসিবির প্রধান নির্বাহী বলেন, ‘এই তালিকা করা আছে। সর্বশেষ লিগ অনুযায়ী করা আছে। সে অনুযায়ী তাদের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নম্বর বা কোনোভাবে সরাসরি তাদের দিয়ে দেওয়া হবে।

[৭] ক্রিকেটাররা সবাই একই পরিমাণ অর্থ পাবেন না। নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন বলেন, ‘আমরা যতটুকু পারি দেব। সেটা ৫ হাজারও হতে পারে, ১০ হাজারও হতে পারে। কিছুটা তারতম্য হবে। প্রথম বিভাগ ও তৃতীয় বিভাগ সমান হবে না।

 

সর্বাধিক পঠিত