প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] লকডাউনের সুযোগে তরুণদের প্রভাবিত করছে চরমপন্থী গোষ্ঠিগুলো: জাতিসংঘ মহাসচিব

লিহান লিমা: [২] জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তনিও গুতেরেস সতর্ক করে বলেছেন, কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে তরুণ সমাজের মধ্যে বেড়ে যাওয়া হতাশা ও ক্ষোভকে সুযোগে পরিণত করতে তৎপর রয়েছে জঙ্গি গোষ্ঠীগুলো। গুতেরেস আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, এই বৈশ্বিক সংকটের সময় হারিয়ে যাওয়া প্রজন্মের ( দ্য লস্ট জেনারেশন) ক্ষতিপূরণ দেয়ার সামর্থ্য রাখে না বিশ্ব। টাইমস অব ইন্ডিয়া, হিন্দুস্তান টাইমস

[৩] জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের সঙ্গে এক ভিডিও কনফারেন্সে গুতেরেস আরো বলেন, বর্তমান এই সংকটের পূর্বেও তরুণরা নানা চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে। গুতেরেস বলেন, পাঁচ জনের মধ্যে একজন তরুণ শিক্ষা, প্রশিক্ষণ ও কর্মসংস্থানের সুযোগ পায় না এবং চারজনের মধ্যে একজন তরুণ ইতোমধ্যেই সহিংসতা ও সংঘর্ষের শিকার। এই পরিস্থিতে হতাশ তরুণদের সহজেই নিজেদের ফাঁদে ফেলতে পারে চরমপন্থী গোষ্ঠিগুলো।

[৪] গুতেরেস বলেন, ‘বর্তমানে ক্ষমতাসীন সরকারগুলো তরুণদের এই হতাশা কাটাতে ব্যর্থ, তাদের রাজনৈতিক দল ও প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর আস্থা কমে যাচ্ছে। আর যখন এইরুপ পরিস্থিতি হয় তখন জঙ্গি গোষ্ঠিগুলো এই হতাশা, ক্ষোভ আর ক্রোধকে পুঁজি করে তরুণদের জঙ্গীবাদে উদ্বুদ্ধ করে।

[৫] জাতিসংঘ মহাসচিব সুস্পষ্ট করে বলেন, আমরা ইতোমধ্যেই দেখেছি যে কোভিড-১৯ লকডাউনের সুযোগে এই জঙ্গী গোষ্ঠিগুলো সামাজিক মাধ্যমে তাদের অবস্থান জোরদার করেছে। তরুণরা যখন ঘরে বসে ইন্টারনেটে সময় ব্যয় করছে ঠিক এই অবস্থানের সুযোগ নিয়ে জঙ্গি গোষ্ঠিগুলো প্রচারণা চালাচ্ছে ও ঘৃণা-বিদ্বেষ ছড়াচ্ছে।

[৬] গুতেরেস শান্তি, নিরাপত্তা ও সুরক্ষিত তারুণের জন্য পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানান। তিনি বলেন, তরুণের মেধা দ্বারাই আমরা এই মহামারী মোকাবেলা করতে পারি। আমাদের এমন একটি পরিকল্পনা প্রণয়ন করা প্রয়োজন যাতে কিনা ভবিষ্যত শান্তিপূর্ণ ও স্থিতিশীল হয়।

[৭] ইউনেস্কোর বিশ্লেষণে দেখা গিয়েছে, কেভিড-১৯ পরিস্থিতিতে অতিরিক্ত ৪ কোটি ২০ লাখ থেকে ৬ কোটি ৬০ লাখ শিশু ‘চরম দারিদ্রের’ মধ্যে পড়তে পারে এবং বিশ্বের ৯১ শতাংশ শিক্ষার্থীর স্কুল জীবন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ১৯১টি দেশের ১৫০ কোটিরও বেশ শিক্ষার্থী পড়াশোনা চালিয়ে যেতে সমস্যায় পড়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত