প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নির্বাচন সুষ্ঠু করতে যদি সরকারের সদিচ্ছা লাগে তাহলে নির্বাচন বলে দেশে আর কিছু অবশিষ্ট থাকে না

 

ফিরোজ আহমেদ : ‘মাঝরাতে ভোট ডাকাতি করা জনপ্রতিনিধিত্বহীন সরকারের বৈধতা নেই’... এই সত্যি কথাটুকুই এখন সরকারের মনে ত্রাস তৈরি করে। রাতের বেলা জনগণের ভোট চুরির বর্ষপূর্তিতে সরকার তাই জোনায়েদ সাকিসহ নেতাকর্মীদের টুঁটি চেপে ধরতে চায়। এ রকম পরিস্থিতিতে একটা নির্বাচনে যাওয়া মানে সরকারের বৈধতার সঙ্গী হওয়া। আসন্ন ঢাকার মেয়র নির্বাচনকে তাই প্রত্যাখ্যান করছি। এই সরকার প্রমাণ করেছে তার অধীনে কোনো সুষ্ঠু নির্বাচন আর হতে পারে না। আসলে এখন প্রশ্ন যে, নির্বাচন সুষ্ঠু করতে যদি সরকারের সদিচ্ছা লাগে, তাহলে নির্বাচন বলে দেশে আর কিছু অবশিষ্ট থাকে না।

কেননা কোন নির্বাচনকে সুষ্ঠু করবে, কোনটা ইচ্ছামতো কারসাজি করবে, তা তখন সরকারের মর্জির বিষয় হয়ে দাঁড়ায়। কথা তাই পরিষ্কার, গণআন্দোলন ১৯৯০-এ মোটামুটি সুষ্ঠু একটা নির্বাচনকে নিশ্চিত করেছিলো। ১৯৭০ সালে গণআন্দোলনের মুখেই ইয়াহিয়াও বাধ্য হয়েছিলো নির্বাচনে হস্তক্ষেপ না করতে। এর আগে যারা সরকারের নির্বাচনী আমন্ত্রণ গ্রহণ করবেন, তারা জেনে বা না জেনে সরকারের সহযোগীর ভূমিকাই পালন করবেন। ফেসবুক থেকে

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত