প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

জাপার কাউন্সিল ২১ ডিসেম্বর জানালেন জিএম কাদের

ইউসুফ আলী বাচ্চু: ২১ ডিসেম্বর জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হবে। আইইবিতে জায়গা না পাওয়ায় পূর্ব নির্ধারিত তারিখ ৩০ নভেম্বরে কাউন্সিল করা যাচ্ছে না বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের এমপি।বুধবার (১১ সেপ্টেম্বর) বিকেলে আইইবি মিলনায়তনে জাতীয় ছাত্র সমাজ কেন্দ্রীয় সম্মেলন প্রস্ততি কমিটির সাংগঠনিক সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

জিএম কাদের বলেন, আমরা সব সময় আইইবি এলাকায় কাউন্সিল করেছি। এবারও ওই এলাকাতেই করতে চাই। তাই তারিখ পেঁছানো হয়েছে। নতুন তারিখের জন্য বুকিং দেওয়া হয়েছে।

জাতীয় পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, মাঝে কিছু সমস্যার কারণে আপনার দ্বিধাদ্বন্দে ছিলেন। সেই সংকট কেটে গেছে। যারা ষড়যন্ত্র করেছিলের ব্যর্থ হয়েছেন। জাপা এখন মুক্ত হয়েছে।

সিনিয়র নেতাদের উদ্দেশ্যে রাঙ্গা বলেন, প্রেসিডিয়াম সদস্যরা ঢাকায় বসে তামাশা করবেন, গোলযোগ করার চেষ্টা করবেন এমনটি করার সুযোগ দেওয়া হবে না। এলাকায় যেতে হবে পার্টিকে সংগঠিত করতে হবে। যে সব নেতার সন্তানরা অন্য পার্টি করেন তাদেরকে ভবিষ্যতে কোনো নির্বাচনে মনোনয়ন দেওয়া হবে না। যদি আমি মহাসচিব থাকি তাহলে তারা মনোনয়ন পাবেন না। আমি পার্টি ঠিক করতে এসেছি যদি না পারি নিজে ছেড়ে চলে যাবো।

আওয়ামী লীগের উদ্দেশ্যে বলেন, আমরা আপনাদের সঙ্গে নির্বাচনী জোট করেছি। তার মানে এই নয় আপনারা যাহা বলিবেন তাহাই করিতে হইবে এমনটা ভাবার দিন নেই।

ডাকসু নির্বাচন প্রসঙ্গ টেনে বলেন, ওখানে কিভাবে নির্বাচন হয়েছে উপর ওয়ালা জানে, পুলিশ, ভিসি আর ছাত্রলীগ জানে। ছাত্রলীগ সোনার ছেলে না হয়ে জঘন্য ছেলে হয়েছে।এর জবাব আপনাদেক দিতে হবে। সময় আসবে জবাব নেওয়ার। দুপুরে কীর্তন গাইলে হবে না। সময় মতো গাইতে হবে।

সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক জামাল উদ্দিনের সভাপতিত্বে সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু, অ্যাড. রেজাউল ইসলাম ভুইয়া, ভাইস চেয়ারম্যান আদেলুর রহমান এমপি, যুগ্ম মহাসচিব গোলাম মোহাম্মদ রাজু, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল হামিদ ভাসানী, সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব ফয়সল দিদার দীপু, সাবেক ছাত্রনেতা হেলাল উদ্দিন, মিজানুর রহমান মিরু, সিলেট মহানগর কমিটির আহ্বায়ক আফজাল হোসেন, কিশোরগঞ্জ জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক মকবুল হোসেন, নরসিংদী জেলা কমিটির সভাপতি মসিউর রহমানসহ সারাদেশ থেকে আগত বিভিন্ন জেলা ও মহানগর কমিটির নেতৃবৃন্দ।

জিএম কাদের বলেন, আমরা ছাত্র সমাজকে সংগঠিত করবো, তবে তা লেজুড়বৃত্তি কিংবা লাঠিয়াল বাহিনী তৈরি করার জন্য নয়। একটি আদর্শিক রাজনীতিকে প্রতিষ্ঠা করার জন্য।

জাপার সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। এরশাদ সাহেব যখন অসুস্থ ছিলেন, তখন অনেক প্রশ্ন উঠেছে, এরশাদ সাহেব মারা গেলে জাতীয় পার্টি থাকবে কিনা! ভেঙ্গে যাবে কিনা, টুকরা টুকরা হবে যাবে কিনা! অনেকে বলেছিলেন, এরশাদের অবর্তমানে ভেঙ্গে চৌচির হয়ে যাবে। আমি বলেছিলাম হবে না। হয়েছে কি? হয় নি। শক্তি বৃদ্ধি পেয়েছি না কমেছে সেটা প্রমানের দিন সামনে রয়েছে। তখন প্রমাণিত হবে।

জিএম কাদের বলেন, রাজনীতি করতে অর্থ লাগে। তবে অর্থের জন্য যে রাজনীতি সেই দুূবৃত্তায়ণের রাজনীতি। এই রাজনীতি করতে চাই না। তবে ছাত্র সমাজের প্রয়োজনে যৌক্তিক খরচ যে টুকু লাগে তাতে সমস্যা হবে না। দেওয়া হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত