প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

লাশ নিয়ে বিপাকে দুই থানা

ডেস্ক রিপোর্ট  : হাত-মুখ বাঁধা অবস্থায় শফিকুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করা নিয়ে বিপাকে পড়েছে টাঙ্গাইলের দুটি থানা। থানা দুটি হচ্ছে দেলদুয়ার ও টাঙ্গাইল মডেল থানা।

টাঙ্গাইল সদর ও দেলদুয়া উপজেলার সংযোগস্থল থেকে বুধবার দুপুরে লাশটি উদ্ধার করে দেলদুয়ার থানা পুলিশ। সকালে টাঙ্গাইল মডেল থানার পুলিশ এসে লাশটি সদর এলাকার মধ্যে লাশটি নেই ভেবে দেলদুয়ার থানায় খবর দেয়।

টাঙ্গাইল মডেল থানার এসআই মানিক চন্দ্র দে জানান, লাশের খবর পেয়ে সকালে সদর উপজেলার সুবর্ণতলী গ্রামে লাশটি উদ্ধারের জন্য আসি। পরে দেখি লাশটি দেলদুয়ার উপজেলার ব্রাহ্মনখোলা মৌজায় পড়ে আছে। তাৎক্ষণিক দেলদুয়ার থানা পুলিশকে খবর দেই। পরে দেলদুয়ার থানা পুলিশ এসে লাশটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

এদিকে দেলদুয়ার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইদুল হক ভূইয়া বলেন, ‘নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। তবে লাশটি উদ্ধার করা হয়েছে মূলত টাঙ্গাইল সদর এলাকা থেকে। লাশটি পড়েছিল টাঙ্গাইল সদর থানার সিলিমপুর ইউনিয়নের সুবর্ণতলী গ্রামে। গ্রামটি সদর থানা এলাকার। এ ঘটনায় মামলা কোন থানায় হবে এটা নিয়ে ভাবা হচ্ছে।

নিহতের পরিবার সূত্রে জানা যায়,সন্ধ্যা পর্যন্ত শফিকুল নিজ বাড়িতেই ছিলেন। সন্ধার পর বের হয়ে রাতে বাড়ি ফেরেনি। সকালে তার মৃতের খবর পায় পরিবার। কি কারণে মৃত্যু হয়েছে প্রাথমিকভাবে জানা যায়নি। তবে পুলিশ ধারণা করছে, শ্বাসরোধ করে তাকে হত্যার পর দুর্বৃত্তরা লাশ ফেলে গেছে।

ঢাকাটাইমস

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত