প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

৭ মাসের মধ্যেই ছাড়া পেলেন ১০ রোহিঙ্গাকে হত্যায় দণ্ডিত মিয়ানমারের ৭ সেনাসদস্য

সান্দ্রা নন্দিনী : পশ্চিম রাখাইনরাজ্যে ২০১৭ সালে ১০জন সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলিমকে হত্যার দায়ে গ্রেফতার ৭ সেনাসদস্যকে একবছরেরও কম সময়ের মধ্যেই মুক্তি দিয়েছে মিয়ানমার। দেশটির দুইজন কারাকর্মকর্তা, সাবেক দুই কারাবন্দি ও অভিযুক্ত সেনাদের একজন রয়টার্স’কে এতথ্য নিশ্চিত করে। রয়টার্স

তাদের সাথে বন্দি থাকা দুই কারাবন্দি জানান, ২০১৮ সালের নভেম্বরে তাদের মুক্তি দেওয়া হয়। অর্থাৎ, ইন দিন গ্রামে হামলা চালিয়ে কিশোরসহ ১০ রোহিঙ্গাকে হত্যার অপরাধে ১০ বছরের কারাবাসের জায়গায় তারা কারাগারে ছিলো একবছরেরও কম সময়। অন্যদিকে, রয়টার্সের দুই সাংবাদিক রোহিঙ্গাদের ওপর চলা সেনানিপীড়নের তথ্য প্রকাশের অপরাধে ১৬ মাস কার ভোগ করতে হয়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে দুই কারাকর্মকর্তা জানান, ‘কারাবন্দি ওই ৭ সেনার সাজা সেনাবাহিনী-কর্তৃক হ্রাস করা হয়েছে। সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে এবিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে অস্বীকৃত জানানো হয়েছে।

খালাসপ্রাপ্ত ওই ৭ সেনাসদস্যকেই কেবল মিয়ানমার সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট রাখাইনে সংখ্যালঘু রোহিঙ্গাদের ওপর চালানো সেনা অভিযানে ১০জনকে হত্যার জন্য দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে। যে অভিযানকে শতশত মানুষকে হত্যা, নারীদের গণধর্ষণ ও লুটতরাজের জন্য জাতিসংঘের পক্ষ থেকে ‘জাতিগত গণহত্যা’ হিসেবে আখ্যা দেওয়া হয়। জাতিসংঘের হিসেবমতে, বর্তমানে প্রতিবেশী বাংলাদেশে রাখাইন থেকে পালিয়ে আসা সাড়ে ৭ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে অস্থায়ীভাবে রয়েছে।

প্রথমে স্বীকার না করলেও পরবর্তীতে আন্তর্জাতিক চাপে পড়ে মিয়ানমার জানায়, এ ঘটনা অতটা বিস্তৃত ছিলো না যতটা গণমাধ্যমে এসেছে। আর তাতে অভিযুক্ত ৭ সেনাসদস্যকে ইতোমধ্যেই কারদণ্ড দেওয়া হয়েছে। ২০১৮ সালের এপ্রিলে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের কর্মকর্তাদের মিয়ানমার সেনাবাহিনীর চিফ কমান্ডার সিনিয়র জেনারেল মিন অং হ্ল্যাইং জানান, ‘আমি নিশ্চিত করছি যে প্রতিটি ঘটনার তদন্তসাপেক্ষে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। সম্প্রতি সাজা দেওয়া ইন দিন মামলার কথা বলতে পারি, সেখানে ৭ হত্যাকারীকে ১০বছর করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। অপরাধ করে কেউ ছাড় পাবে না।’

এদিকে, খালাসপ্রাপ্ত ৭জনের এক সেনাসদস্য জিন পেইং সোয়েকে বৃহস্পতিবার ফোন করা হলে তিনি এখন মুক্ত বলে জানান। তবে বিস্তারিত কিছু জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমাদের মুখবন্ধ রাখতে বলা হয়েছে।’

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ