প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

প্রথম মুসলমান
ইসলামের জন্য খাদিজা (রা.)-এর আত্মত্যাগ

আমিন মুনশি : ইসলাম যে চারজন নারীকে তাদের মহানুভবতা ও পরিশুদ্ধতার জন্য নারীদের মধ্যে শীর্ষস্থান দান করেছে তারা হলেন: মুহাম্মদ (সা.) এভাবে চার নারীকে পরিচয় করিয়ে দেন- (১) ফেরাউনের স্ত্রী হজরত আছিয়া। (২) হজরত ঈসা (আ.)-এর মা হজরত মরিয়ম। (৩) হজরত খাদিজা বিনতে খুয়াইলিদ। (৪) হজরত ফাতিমা বিনতে মুহাম্মদ। তাদের এই উচ্চ মর্যাদা পরিমাপের কারণ হল, আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের প্রতি তাদের আত্মনিবেদন।

হেরা গুহায় নবী (সা.) যখন ধ্যানমগ্ন ছিলেন তখন হঠাৎ তিনি শুনতে পেলেন কেউ যেন তাঁর নাম ধরে ডাকছে। ‘হে মুহাম্মদ!’ তিনি চোখ খুললেন, দেখলেন এক জ্যোতির্ময় ফেরেশতা সামনে দাঁড়ানো। তাঁর জ্যোতিতে হেরা গুহা আলোকিত। তিনি বললেন, ‘আমি আল্লাহর বাণী বাহক জিব্রাইল ফেরেশতা। হে মুহাম্মদ, পাঠ করুন আপনার প্রভুর নামে যিনি সকল কিছু সৃষ্টি করেছেন।’

মহাসত্যের প্রথম উপলব্ধিতে তিনি অভিভূত হয়ে পড়েন। নবী (সা.) দ্রুত বিবি খাদিজার কাছে ছুটে গেলেন। বিবি খাদিজা তাঁর অস্থিরতা দেখে বললেন, আপনার ভয় পাওয়ার কোনো কারণ নেই।

আল্লাহ কখনও আপনাকে নিরাশ করবেন না। অতঃপর বিবি খাদিজা চাচাতো ভাই ওয়ারাকা বিন নওফেলের কাছে নবীজীকে নিয়ে গেলেন। তিনি ছিলেন পবিত্র ইঞ্জিল কিতাবের অনুসারী জ্ঞানতাপস। ওয়ারাকা বললেন, এটা সেই নিদর্শন যা মূসা ও ঈসার প্রতি প্রেরিত হয়েছিল। সংবাদ শুনে বিবি খাদিজার অন্তর তৃপ্ত হল।

হজরত খাদিজা (রা.) ঘরে ফিরে এসে নবী (সা.)-এর হাতে হাত রেখে আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করেন। আল্লাহর দ্বীন ইসলাম গ্রহণের প্রথম সাক্ষ্যদাতার গৌরব অর্জন করেন। তিনিই প্রথম মুসলমান।

আর দ্বিতীয় সাক্ষ্যদাতা হলেন কিশোর হজরত আলী। এর পরই ইসলামের দাওয়াতি কাজ গোপনে গোপনে চলতে লাগল। ইসলামের দাওয়াতের ষষ্ঠ বছরের শেষপ্রান্তে মক্কার কাফের মুশরিকদের অত্যাচার চরম আকার ধারণ করলে হজরত আবু তালিব মুহাম্মদ (সা.) স্বগোত্রীয় লোকদের সঙ্গে নিয়ে গিরিপর্বতে আশ্রয় নেন। যা ‘শেবে আবু তালিব’ নামে পরিচিত। সংকীর্ণ গিরিপথে তিনটি বছর অতিবাহিত করা যে কষ্টকর ছিল তা বর্ণনাতীত। মক্কা ত্যাগ করে গিরিপথে আশ্রয় নেয়া ইমানদার ছিল প্রায় চারশ’।

হজরত খাদিজা (রা.) বিলাসবহুল জীবনযাপনে অভ্যস্ত হলেও গিরিপথে তার স্থিরভাবনার জীবন ছিল ইসলামের জন্য ত্যাগের। অবরোধের শুরুতে হজরত আলীর বয়স ছিল ষোলো। কিন্তু তার সমগ্র প্রচেষ্টাই ছিল অবরুদ্ধ গোত্রের জন্য খাদ্যসামগ্রী গোপনে সংগ্রহ করা। মাত্র এক মশক পানির জন্যও ব্যয় হতো একটি স্বর্ণমুদ্রা। পানির জন্য শিশুরা সব সময় কাতর থাকত। হজরত খাদিজা ত্যাগ ও ইবাদতের মাধ্যমে আল্লাহর সাহায্য প্রার্থনা করতেন।

এই তিন বছরের অবরোধে হজরত খাদিজা (রা.)-এর বিশাল ধন-সম্পদ প্রায় শেষ পর্যায়ে চলে আসে। হজরত খাদিজা নবীজীর মক্কা থেকে আবিসিনিয়ায় হিজরতের সম্পূর্ণ ব্যয়ভার বহন করেছিলেন। হজরত মুহাম্মদ (সা.) হজরত খাদিজা (রা.)-এর সব সম্পদ ইসলামের পথে ব্যয় করেন। মানব জাতির ইতিহাসে এর চেয়ে সর্বশ্রেষ্ঠ বিনিয়োগ আর একটিও নেই।

অবরোধের বছরগুলোতে হজরত খাদিজা (রা.) ঈমানদারদের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র সংগ্রহ করতে গিয়ে সব সম্পদ ব্যয় করেছিলেন। এমনকি তার মৃত্যুর পর কাফনের কাপড় কেনার অর্থও তার ঘরে ছিল না। প্রিয় স্বামীর চাদর তার দাফন হিসেবে ব্যবহৃত হয়। হজরত মা খাদিজা (রা.) ৬১৯ খ্রি. মৃত্যুবরণ করেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত