প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভাঙলো শ্রীলঙ্কার জোট সরকার, প্রধানমন্ত্রী হলেন রাজাপাকসে

ডেস্ক রিপোর্ট : শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী রানিল ভিক্রেমেনসিংহকে বরখাস্ত করে সাবেক প্রেসিডেন্ট মাহিন্দা রাজাপাকসেকে প্রধানমন্ত্রীর করার মাধ্যমে ভেঙে গেল দেশটির জোট সরকার। শুক্রবার শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট মৈত্রিপালা সিরিসেনা রানিল ভিক্রেমেনসিংহকে বরখাস্ত করেন। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম দ্য হিন্দু এ খবরটিকে ২৭ অক্টোবর শনিবার প্রধান শিরোনাম করেছে।২০১০ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত রাজাপাকসে প্রেসিডেন্ট থাকার সময় তার স্বাস্থ্যমন্ত্রী ছিলেন সিরিসেনা।

২০১৫ সালে রানিলের সঙ্গে জোট বেঁধে রাজাপাকসেকে নির্বাচনে পরাজিত করেন তিনি। রানিলের ইউনাইটেড ন্যাশনাল পার্টির (ইউএনপি) সমর্থনেই তিনি প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। কিন্তু শুক্রবার সিরিসেনার নেতৃত্বাধীন ইউনাইটেড পিপলস’ ফ্রিডম অ্যালায়েন্স (ইউপিএফএ) জানায়, তারা ক্ষমতাসীন জোট থেকে বের হয়ে যাচ্ছে। ফলে তিন বছর আগে গড়ে ওঠা জোট সরকারের ইতি ঘটতে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীকে আকস্মিক বরখাস্তের ঘটনায় শ্রীলঙ্কার রাজনীতিতে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

শুক্রবার প্রেসিডেন্টের কার্যালয়ের এক বিবৃতিতে প্রধানমন্ত্রীকে বরখাস্তের কথা বলা হয়েছে। তবে বরখাস্ত হওয়া প্রধানমন্ত্রী দাবি করেছেন, প্রেসিডেন্টের এই পদক্ষেপ অসাংবিধানিক এবং তিনিই প্রধানমন্ত্রী। রাজাপাকসের শপথ গ্রহণ বিষয়ে স্থানীয় টেলিভিশন চ্যানেলে রানিল বলেন, আমিই এখনো প্রধানমন্ত্রী। এই শপথগ্রহণ অসাংবিধানিক।

ইউএনপি’র জ্যেষ্ঠ নেতা এবং শ্রীলঙ্কার অর্থ ও সংবাদমাধ্যম মন্ত্রী মাঙ্গালা সামারাবিরা এক টুইট বার্তায় বলেন, সাবেক প্রেসিডেন্ট রাজাপাকসেকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেওয়া অসাংবিধানিক ও অবৈধ। এটা গণতন্ত্রবিরোধী একটি অভ্যুত্থান।

গত সপ্তাহে মন্ত্রিসভার এক বৈঠকে ক্ষোভ প্রকাশ করেন প্রেসিডেন্ট সিরিসেনা। তাকে হত্যার একটি ষড়যন্ত্রের অভিযোগ ও কলম্বোতে একটি কন্টেইনার টার্মিনাল নির্মাণের অগ্রগতি বিষয়ে এই ক্ষোভ প্রকাশ করেন সিরিসেনা। এরপরই প্রধানমন্ত্রীকে বরখাস্তের সিদ্ধান্ত নেন তিনি।
উৎসঃ banglatribune

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ