প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বগুড়ায় অস্ত্রসহ শীর্ষ ৪ জেএমবি গ্রেফতার

আরএইচ রফিক, বগুড়া: দেশ জুড়ে এখনো সক্রিয় জেএমবি’র পূরাতন নেটওয়ার্ক । গোটা উত্তর জনপদের বিভিন্ন স্থানে এই সংগঠনের নতুনদের তৎপরতা থেমে নেই। অন্যদিকে থেমে নেই কেন্দ্রীয় পুলিশের ইনটেলিজেন্স ও বগুড়া জেলা পুলিশের গোয়েন্দা (ডিবি) ইউনিটের বিশেষ শাখা ।

এই কেন্দ্রীয় পুলিশ ইনটেলিজেন্স ও বগুড়া ডিবি ইউনিটের যৌথ জঙ্গী দমন অভিযানের ধারাবাহিকতায় এবার তারা রংপুরের গংগাচড়ার দুর্গম চর এলাকায় আবারো তাদের সফল অভিযান চালিয়েছে।

অভিযানে গ্রেফতার হয়েছে পুরাতন জেএমবির ৪ শীর্ষ সংগঠক , তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে ১টি একে ২২ রাইফেল , রাইফেলের ১টি ম্যাগজিন, ১৫ রাউন্ড গুলি ও ৩টি ম্যাগজিন সহ ২টি ৭.৬৫ বোরের বিদেশী পিস্তল, ২টি ছোরা ও নগদ অর্থ। এই ঘটনার পর জানা গেল নব্য জেএমবির পাশাপাশি পুরাতন জেএমবির তৎপরতা কমেনি বরং নিরবে তাদের তৎপরতা আগের মতই অব্যাহত রয়েছে । দেশ জুড়েই সক্রিয় রয়েছে তাদের সাংগঠনিক তৎপরতা ।

রোববার মধ্যরাতে সফল অভিযানের পরে সোমবার দুপুরে বগুড়ার পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংকালে মিডিয়াম্যানদের কাছে লিখিত বিবরণে বগুড়ার এসপি আলী আশরাফ ভূঞ্াঁ বিপিম জানান, গোপন সুত্রে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে রোববার রাত সাড়ে ১২টায় পুলিশ হেড কোয়াটর্সের ইন্টেলিজেন্সের একটি টিম ও বগুড়া ডিবি পুলিশের একটি টিম লালমনিরহাট পুলিশের সহায়তায় রংপুরের গংগাচরের দূর্গম চরে অভিযান চালায় ।

গোয়েন্দা তথ্য ও নিখুঁতভাবে প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে অভিযানিক দলটি এসময় জনৈক মো. ফারুক ওরফে সাজুর বাড়ি ঘেরাও করে । পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে কয়েকজন পালাতে পারলেও ধরা পড়ে জেএমবি সংগঠনের ৪ জন ।

তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় সাংগঠনিক কাজের জন্য রাখা নগদ ৫০ হাজার টাকা, ১টি একে ২ বোরের অটো রাইফেল, , ১৫ রাউন্ড গুলি ১টি ম্যাগজিন সহ অতিরিক্ত ৩টি ম্যাগজিন সহ ২টি ৭ .৬৫ বোরের বিদেশী পিস্তল ও ২টি ছোরা।

গ্রেফতারকৃতরা হল গংগাচড়ার কুড়ি বিশ্বাদোলা পাড়ার মোঃ সিরাজুল ইসলামের পুত্র রংপুর বিভাগের দাওয়াহ সদস্য আজহারুল ইসলাম ওরফে ওয়ানুর (৩২), গংগাচড়ার চর বাগডহড়া গ্রামের নৈয়ব আলীর পুত্র আকরামুজ্জামান ওরফে মুকুল ( ২৬), একই গ্রামের মমিন আলীর ছেলে ও বাড়িতে আশ্রয়দাতা মো. ফারুক ( ২২), জেএমবির সামরিক শাখা ইছাবা এর সদস্য আব্দুস সামাদের পুত্র আব্দুল হাকিম ওরফে মিলন।

গ্রেফতারকৃতরা জেএমবির সংগঠকদের পরিচয় উল্লেখ করে এসপি জানান , পুলিশী অভিযানকালে পালিয়ে যাওয়া পুরাতন জেএমবির বাংলাদেশ এর প্রধান সমন্বয়ক খোরশেদ আলম ওরফে মাষ্টার ওরফে জিয়া ওরফে মমিন ওরফে উদয় ( ৩৮) সহ তার সহযোগি শহিদুল্লাহ ওরফে ইয়মিন ওরফে গোপাল ওরফে নাদিম ( ৪৫) , মো. নুর হক ওরফে ওমর ওরফে ওসমান (৩০), ফুয়াদ ( ৩৮) ও হাদী ( ৩৮) ব্যাপকভাবে সাংগঠনিক তৎপরতা চালাচ্ছে । উদ্ধারকৃত অস্ত্র ও টাকা ও তারাই তাদেরকে দিয়েছিল ।

পুলিশের একটি সূত্র জানায় , পলাতকদের ধরতে সর্বাধিক প্রযুক্তির ব্যবহার ও গোয়েšদা তৎপরতা অব্যাহত থাকবে, ভেঙ্গে দেওয়া হবে তাদের সাংগঠনিক নেটওয়ার্ক ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ