প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দণ্ড বাতিল না হলে বেগম জিয়া নির্বাচনে অযোগ্য হবেন : অ্যাটর্নি জেনারেল

প্রিন্স মাহামুদ আজিম : সংবিধানের বিধান অনুযায়ী আদালতে রায়ে দণ্ডিত কোনও ব্যক্তি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারবে না। অনেকের মতে আদালতের দেওয়া দণ্ড সাময়িকভাবে স্থগিত হলে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা যায়। কিন্তু দণ্ড কখনো স্থগিত করা যায় না। দণ্ড বাতিল করা যায়। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বেগম জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। সেটি বাতিল না হলে তিনি কোনভাবেই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারবেন না। সুতরাং দণ্ড বাতিল না হওয়া পর্যন্ত বেগম জিয়া নির্বাচনে অংশগ্রহণের অযোগ্য বলে বিবেচিত হবেন।

টিভিএনএর সাথে আলাপকালে এমনটাই জানান অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

বিচার বিভাগের অবক্ষয়ের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিচার বিভাগের দুর্নীতি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে সেটা নির্দিষ্ট করে বলা সম্ভব নয়। বিচার বিভাগের দুর্নীতির বিষয়সমুহ সুস্পষ্ট তথ্যসহ অনেকবার গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। এখন অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের দায়িত্ব এই সকল তথ্যের ভিত্তিতে দুর্নীতিবাজদের দুর্নীতি খুঁজে বের করা। বিচার বিভাগের দুর্নীতি প্রতিরোধে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য বর্তমান প্রধান বিচারপতিসহ যারা দায়িত্বে রয়েছেন তাদেরকে অনুরোধ করা হয়েছে। আশা করি তারা এই ব্যাপারে যথাযথ পদক্ষেপ নিবেন।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ৩২ ধারা নিয়ে তিনি বলেন, নতুন প্রস্তাবিত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন-২০১৮ এর ৩২ ধারা নিয়ে যে বিতর্ক চলছে সেটা একদমই ঠিক নয়। কারন এই ব্যাপারে ইতিমধ্যে আইন মন্ত্রণালয় বিস্তারিত ব্যাখ্যা দিয়েছে। সুতরাং ৩২ ধারা কোনও ভাবেই স্বাধীন ও অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের কাজের ওপর প্রভাব ফেলবে না।

মাহবুবে আলম বলেন, আপিল বিভাগের এখনো যে সমস্ত আসন খালি রয়েছে সেটা পূরণ করা আইন মন্ত্রণালয়ের এখতিয়ারে। ষোড়ষ সংশোধনীর বাতিল রায়ের বিরুদ্ধে রিভিউয়ের শুনানি এখনো কার্যতালিকায় উঠেনি। এখন রিভিউ শুনানীতে কারা থাকবেন, আপিল বিভাগে যারা নতুন আসবেন তারা। না যারা রায় দিয়েছে শুধু সেই বিচারকরাই থাকবেন। এ বিষয়টি ঠিক হবে রিভিউ শুনানির কার্যতালিকা আসার পর। এই ব্যাপারে আগাম কথা বলা সঠিক হবে না। সাময়িক ফরমান দ্বারা সংবিধানকে বহুবার ক্ষতবিক্ষত করা হয়েছে। ভবিৎষ্যতে এমন যেন না হয় তাই সংবিধান সংশোধন করা হয়েছে। যেখানে বলা হয়েছে, এই ধরণের কিছু করলে সেটা রাষ্ট্রদ্রোহিতা হবে এবং সে অনুযায়ী তাদের বিচার হবে।

অ্যাটর্নি জেনারেল আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণের ব্যাপারে বলেন, আমার জন্মভূমি লৌহজং টঙ্গিবাড়ি। সেখান থেকে আমি আওয়ামীলীগের মনোনয়ন চাইবো। তবে এই ব্যাপারে নেত্রীর কাছ থেকে কোনও আশ্বাস পেয়েছেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাব এড়িয়ে যান রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ এ আইন কর্মকর্তা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত