প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিশ্ব অর্থনীতিকে নিয়ন্ত্রণ করবে রোবট!

মোস্তফা আরিফ : প্রযুক্তির কাছে প্রতি নিয়ত মানুষ হার মানছে। বিশেষ করে রোবোট সব কিছু ছাড়িয়ে যাচ্ছে। সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ জীব মানুষ রোবোটের কাছে হার মানছে। ব্যাবসা বাণিজ্যে এবং কল কারখানায় যেভাবে রোবোট প্রযুক্তি ব্যবহার হচ্ছে এর ফলে মানুষের কর্মক্ষমতা যে হ্রাস পাচ্ছে তাতে কোন সন্দেহ নেই। উন্নত বিশ্বের বহু শিল্প প্রতিষ্ঠান ও কল কারখানায় রোবোটের ভান্ডার গড়ে উঠেছে, অনেকেই মনে করছে এই প্রযুক্তি আগামী বিশ্বকে নিয়ন্ত্রণ করবে, মানুষ তাদের দ্বারা প্রভাবিত হবে। প্রশ্ন এসে দাঁড়িয়েছে তাহলে রোবোট কি অর্থনীতিকে নিয়ন্ত্রণ করবে? আরো যে প্রশ্নটি সামনে এসে দাঁড়িয়েছে তা হচ্ছে কৃত্রিম বুদ্ধিসত্তার এই প্রযুক্তি মানুষের বন্ধু নাকি শত্রুতে পরিণত হবে অদূর ভবিষ্যতে?

রোবোটের উথান এত দ্রুত গতিতে ঘটছে যে এ সম্পর্কে সামান্য কিছু ও উপাত্তই যথেষ্ঠ। মানুষের রোগ নির্ণয়ে এবং কোন ওষুধ ব্যবহার করতে হবে, ড্রাইভারবিহীন গাড়ি চালানো এবং রাস্তা ঘাটে কিভাবে চলবে সেটাও ঠিক করে নিচ্ছে। অবস্থা এমন পর্যায়ে গিয়ে দাঁড়িয়েছে কৃত্রিম বুদ্ধিসত্তার এই রোবোট জীবনের সর্বত্র তার উপস্থিতি জানান দিচ্ছে।

কৃত্রিম বুদ্ধিসত্তার এই রোবোট বিশ্ব অর্থনীতিতে কি প্রভাব ফেলবে তার ছোট্ট একটি উদাহরণ দেয়া যেতে পারে। আগামী ২০৩০ সালের মধ্যে অর্থাৎ এক যুগ পর সারা বিশ্বের শিল্প কল কারখানায় ৮০ কোটি রোবোট কাজ করবে। এর অর্থ ৮০ কোটি বা তারও বেশি কর্মক্ষম মানুষ বেকার হয়ে যাবে। সান ফ্রান্সিসকোর অর্থনীতিবিদ অ্যালেক ডাফনার এমন আভাষ দিয়েছেন। বিশ্বের প্রতিটি দেশে জাতীয় অর্থনীতিতে প্রত্যক্ষ অবদান রাখবে এই কৃত্রিম বুদ্ধিসত্তার রোবোট। ধারণা করা হ”েছ প্রবৃদ্ধির শতকার ৮ থেকে ১০ ভাগ অবদান রাখবে এই রোবোট। সারা পৃথিবীতে আগামী এক যুগে ৩৩৩ কোটে ট্রিলিযন ডলাার আয় হবে রোবোট দিয়েই। শিল্প কলকারখানার মালিক রোবোটের প্রতি নির্ভরশলি হওয়ার পিছনে অন্যতম কারন হচ্ছে এর কোন অতিরিক্ত পারিশ্রমিক মূল্য নেই। কর্ম ঘন্টা হিসাব করে না। দিন রাত ২৪ ঘন্টা তাকে দিয়ে কাজ করানো যাবে। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে গিয়েছে উন্নত বিশ্ব আগামী ২ বছরের মধ্যে বিভিন্ন সেবাখাতের শতকরা ৯৫ ভাগ কাজ রোবোটের দ্বারা সম্পন্ন হবে।

রোবোট ব্যবসা বাণিজ্য নিয়ন্ত্রণ করবে। এ কথা ভাবলে বলতে হয়, ব্যাপারটি অতি মানবীয় পর্যায়ে চলে যাচ্ছে। কিন্তু এটাই বাস্তবতা। আজকের এই যুগে, বিজ্ঞানের উন্নতির ফলে কম্পিউটার, মোবাইল এবং ইন্টারনেটে মানুষ যেভাবে দ্রুত গতিতে কাজ করছে এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণ করছে তাতে রোবোট দ্বারা ব্যবসা বাণিজ্য পরিচালনা করবে, অর্থনীতি পরিচালিত হবে, এতে অবাক হওয়ার কি আছে।

কৃত্রিম বুদ্ধিসত্তার এই রোবোটের উথানের ফলে পরবর্তী অবস্থা কি হবে? পরিস্থিতি যা ঘটতে পারে তা হচ্ছে, মানুষের অর্থনৈতিক মূল্য রোবোট দ্বারাই নির্ধারিত হতে পারে। যেহেতু জাতীয় আয়ের বিরাট অংশ রোবোট নিয়ন্ত্রণ করবে আর তাই রোবোট হবে বিশ্ব বানিজ্র এবং অর্থনীতির কর্ণধার।

রোবোটের বিরুদ্ধে আগামী এক দশক পরেই বানিজ্য যুদ্ধে নামতে হতে পারে। শিল্প কল কারখানায় উন্নত মানের পণ্য তৈরীতে কৃত্রিম বুদ্ধিসত্তার এই রোবোট নীতি নির্ধারকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হতে পারে। অর সেটা ঘটলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না।
লেখক : সিনিয়র সাংবাদিক ও কলামিস্ট
সম্পাদনা : মোহাম্মদ আবদুল অদুদ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত