শিরোনাম
◈ সরকারের কাছে 'আট দফা দাবি' কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ◈ শুক্রবারের সহিংসতায় ঢাকায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩২ জনে ◈ এটা অবশ্যই কারফিউ, এটা নিয়ম অনুযায়ীই হবে এবং সেটা শুট অ্যাট সাইট হবে: ওবায়দুল কাদের ◈ কারফিউ’র পরিপত্র জারি ◈ কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা কোটা আন্দোলনকারীদের ◈ ওবায়দুল কাদের কারফিউ জারি প্রসঙ্গে যা বললেন ◈ সারা দেশে কারফিউ জারি, সেনা মোতায়েনের সিদ্ধান্ত ◈ নরসিংদীর কারাগারে হামলার পর বের হয়ে গেছে কয়েকশ কয়েদি ◈ বাংলাদেশে সহিংসতা ও মৃত্যুর ঘটনায় জাতিসংঘের উদ্বেগ ◈ রাজধানীর উত্তরা, মোহাম্মদপুর, বাড্ডাসহ বিভিন্ন এলাকায় আন্দোলনকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ

প্রকাশিত : ০৯ মার্চ, ২০২৩, ০১:৪০ দুপুর
আপডেট : ০৯ মার্চ, ২০২৩, ০১:৪০ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

আন্তর্জাতিক নারী দিবস

অধিকার নিয়ে তালিবানের সঙ্গে শান্তি আলোচনা চালিয়েছিলেন এক নারী

ফৌজিয়া কোফি

ইমরুল শাহেদ: আফগান সরকারের হয়ে তালিবানের সঙ্গে যারা আলোচনা চালিয়েছিলেন, তাদের মধ্যে ছিলেন এক নারী। তার নাম ফৌজিয়া কোফি। তালিবানের কারণে একসময় তাকে পড়াশোনা ছাড়তে হয়েছিল। তার স্বামীকে তালিবানরা হত্যা করেছিল। তাতে ভয় না পেয়ে তালিবানের সঙ্গে মেয়েদের অধিকার নিয়ে আলোচনা চালিয়েছেন তিনি। দি ওয়াল

ফৌজিয়া কোফির ছোটবেলার স্বপ্ন ছিল ডাক্তার হবেন। ডাক্তারি পড়তে ভর্তিও হয়েছিলেন। ১৯৯৬ সালে তালিবান আফগানিস্তানে ক্ষমতায় আসে। ফৌজিয়া মনে করতে পারেন, ১৯৯৬ সালের সেপ্টেম্বর মাসে তিনি প্রথমবার তালিবান সৈনিকদের দেখেছিলেন। তিনি তখন থাকতেন কাবুলের এক বহুতলের ছ’তলার ফ্ল্যাটে। সেখান থেকে দেখেছিলেন, রাস্তায় লড়াই চলছে। তালিবান যোদ্ধাদের হাতে স্বয়ংক্রিয় রাইফেল।

তার কিছুদিনের মধ্যেই তালিবান মেয়েদের পড়াশোনা বন্ধ করে দেয়। ফৌজিয়া তখনও কাবুলেই বাস করতে থাকেন। যে মেয়েদের স্কুলের পড়াশোনা বন্ধ হয়ে গিয়েছিল, তাদের তিনি প্রাইভেটে ইংরেজি শেখাতেন। পরে বলেছেন, ‘সেই দিনগুলি ছিল খুব হতাশাচ্ছন্ন।’

তালিবান ডিক্রি জারি করেছিল, প্রত্যেক মহিলাকে বোরখা পরতে হবে। তারা রাস্তায় ঘুরে ঘুরে দেখত কোনও মেয়ে বোরখা ছাড়া রাস্তায় বেরিয়েছে কিনা। তেমন দেখলে সেই মেয়েকে মারধর করত। ফৌজিয়া বলেছেন, ‘আমি কখনও বোরখা কিনিনি। আমি মনে করি না বোরখা আফগানিস্তানের সংস্কৃতির অঙ্গ।’ বোরখা না পরার জন্য ফৌজিয়ার রাস্তায় বেরোন বন্ধ হয়ে গিয়েছিল।

তালিবানের পতন হলে মহিলারা সকলেই আনন্দিত হয়েছিলেন। কারণ তারা রাস্তায় স্বাধীনভাবে চলাফেরা করার অধিকার ফিরে পেলেন। ততদিনে ফৌজিয়ার স্বামী মারা গিয়েছেন। দু’টি শিশুকন্যাকে নিয়ে তিনি থাকতেন কাবুলেই। চাকরি করতেন জাতিসংঘে। শিশু সৈনিকদের পুনর্বাসন দেওয়ার কাজ করতেন।

পরে আফগান সরকার তালিবানের সঙ্গে আলোচনার জন্য যে প্রতিনিধিদের পাঠায়, তাদের মধ্যে ছিলেন ফৌজিয়া। তালিবানের সঙ্গে আলোচনার অভিজ্ঞতা বর্ণনা করে ফৌজিয়া বলেন, মস্কোর এক হোটেলে আলোচনা হয়েছিল। তার কথায়, ‘আমি তালিবানের প্রতিনিধিদের বললাম, আফগানিস্তানের মানুষ বৈচিত্র্যে বিশ্বাস করেন। তারা চান না কোনও এক বিশেষ মতাদর্শের অনুগামীরা দেশ শাসন করুক।’ তিনি যখন কথা বলছিলেন, তালিবানের একজন প্রতিনিধি নোট নিচ্ছিলেন। বাকিরা তাকিয়েছিলেন অন্যদিকে। পরে তালিবান বলে, তারা আফগান সরকারের সঙ্গে আলোচনায় আগ্রহী নয়। কারণ এই সরকার যুক্তরাষ্ট্রের পুতুল। পরে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার চাপে তারা আফগান সরকারের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যেতে রাজি হয়।

আইএস/এইচএ

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়