শিরোনাম
◈ স্বল্প সংখ্যক কোটা থাকতে পারে অনগ্রসর ও প্রতিবন্ধিদের জন্য: জি এম কাদের ◈ ৫ শতাংশ কোটা রেখে সংসদে আইন পাসের দাবিতে ২৪ ঘণ্টার আলটিমেটাম ◈ রেলওয়ের চাকরিতে ৪০ শতাংশ পোষ্য কোটা কেন অবৈধ নয়: হাইকোর্ট ◈ আন্দোলনকারীদের ওপর পুলিশ লেলিয়ে দেবেন না: সুপ্রিম কোর্ট বার সভাপতি ◈ জামালপুরে বন্যার পানিতে গোসলে নেমে ৪ জনের মৃত্যু ◈ সাংবাদিকদের পেনশন স্কিমে যুক্ত হওয়ার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর ◈ মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের বিরুদ্ধে এতো ক্ষোভ কেনো, প্রশ্ন প্রধানমন্ত্রীর ◈ ট্রাম্পের ওপর হামলা নিন্দনীয়: শেখ হাসিনা  ◈ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটিকে আর্তমানবতার সেবায় আরও আন্তরিকতার সাথে দায়িত্ব পালনের আহ্বান রাষ্ট্রপতির ◈ কোটা প্রসঙ্গে আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে এখন আমার বলার কিছুই নাই: প্রধানমন্ত্রী 

প্রকাশিত : ২৯ মার্চ, ২০২৩, ০৮:২৯ রাত
আপডেট : ২৯ মার্চ, ২০২৩, ০৮:২৯ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

গণমাধ্যমের স্বাধীনতা কেড়ে নেওয়া হচ্ছে: আমীর খসরু

বক্ততাকালে আমীর খসরু

রিয়াদ হাসান: আজকে পেটের ক্ষুধা নিয়ে একটি বাচ্চার বক্তব্য দিয়ে রিপোর্ট করায় প্রথম আলোর সাংবাদিককে তুলে নিয়ে গেছে। তার আগে একজন সরকারি নারী কর্মচারীকে তুলে নিয়ে গেছে। মূলত ক্ষমতায় থাকা ও জোর করে ক্ষমতা দখলের জন্যই এসব করা হচ্ছে। সেজন্যই গণমাধ্যমের স্বাধীনতা, বিচারের স্বাধীনতা ও জনগণের নিরাপত্তা কেড়ে নেওয়া হচ্ছে। একটি দখলদার সরকার এসব করছে বলে মন্তব্য করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী।

বুধবার (২৯ মার্চ) রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবে ইফতার পূর্ব সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ‘স্বাধীনতার ৫২ বছর, বিপর্যস্ত টেক্সটাইল সেক্টর’ শীর্ষক এ আলোচনা সভার আয়োজন করে জাতীয়তাবাদী টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার্স অ্যাসোসিয়েশন (জেটেব)। কালবেলা

তিনি বলেন, একটি জায়গায় গিয়ে বাংলাদেশ আটকে আছে। সেটি হচ্ছে ভোটের অধিকার। সেটিকে আটকাতেই আজকে দেশে গুম, খুন, অনিয়ম সব হচ্ছে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য বলেন, সরকার বলছে সংবিধান মোতাবেক নাকি নির্বাচন করতে হবে। আর তারা অন্যদিকে গুম খুন করছে। মিথ্যা মামলা দিচ্ছে। আপনারা কোন সংবিধানের কথা বলছেন? এই যে লোকগুলোকে তুলে নিয়ে গেছে এগুলো কি সংবিধানের কাজ? এগুলো তো সংবিধানবহির্ভূত কাজ।

তিনি বলেন, সংবিধানে তো তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা ছিল না। কিন্তু জনগণের দাবিকে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া সংবিধানে তত্ত্বাবধায়ক সরকার সংযুক্ত করেছিলেন। অতএব আপনাদের সংবিধান সংশোধন করতে হবে। আগামী নির্বাচন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে হতে হবে।

আমীর খসরু বলেন, সংবিধান পরিবর্তন করা হবে। যেভাবে সাহাবুদ্দিন সাহেবের আমলে সংবিধান সংশোধন হয়েছিল। যদি মনে করেন আগে সংশোধন করা হবে, করেন। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে হবে। সংবিধানের দোহাই দিয়ে লাভ নেই।

আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন ও কেন্দ্রীয় নেতা রিয়াজ উদ্দিন নসু প্রমুখ।

আরএইচ/একে

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়