শিরোনাম
◈ সংঘাতের পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে ◈ দেশজুড়ে সহিংসতার ঘটনায় অভিযান, গ্রেপ্তার ২৭৪৭ ◈ আজ বিদেশি কূটনীতিকরা ধ্বংসযজ্ঞ পরিদর্শনে যাবেন ◈ চলমান সংকটে রাজশাহীতে কৃষিখাতে দিনে ২০ কোটি টাকার ক্ষতি ◈ কারফিউ শিথিল সময়ে চলবে দূরপাল্লার বাস ◈ প্রাণহানি ও ধ্বংসাত্মক ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করেছে সম্পাদক পরিষদ ও নোয়াব ◈ ড. ইউনূস রাষ্ট্রদ্রোহী কাজ করেছেন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ◈ বাংলাদেশের সহিংসতা বন্ধে বিশ্ব নেতৃবৃন্দের প্রতি জরুরি আহ্বান জানিয়েছেন ড. ইউনূস ◈ নরসিংদী কারাগার থেকে পালানো ১৩৬ কয়েদির আত্মসমর্পণ ◈ কতজন শিক্ষার্থী মারা গেছেন, জানতে সময় লাগবে: শিক্ষামন্ত্রী

প্রকাশিত : ১২ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ০৬:১৪ সকাল
আপডেট : ১২ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ০৬:১৪ সকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

বইমেলা এখন স্রেফ এক করপোরেট ইভেন্ট

মনজুরুল হক

মনজুরুল হক: [১] আপনার-আমার মানা না-মানায় কিসসু আসে-যায় না। সত্য হলো অমর একুশে বইমেলা এখন আর প্রকাশক-লেখক-পাঠকের মিলনমেলা নয়। এটা এখন স্রেফ এক কর্পোরেট ইভেন্ট। যেখানে লেখক-প্রকাশক-পাঠক সকলেই মেলা কর্তৃপক্ষ তথা ক্ষমতাসীন সরকারের ক্রীড়ানক। সরকারের শক্তিশালী হাতের পেশি আপনি দেখতে পাবেন না বটে, তবে প্রতি পদে তাদের দোর্দণ্ড উপস্থিতি টের পাবেন।

[২] বইমেলায় প্যানোরমা চিত্র কেমন? এখানে জোর লবিং করে সরকারের নেকনজর হাসিল করে তাদেরই বরকন্দাজদের কারো হাত থেকে বাংলা একাডেমির পুরস্কার হাতানোর প্রতিযোগিতার পাশাপাশি ‘হেফাজতি বাংলার’ কবি-সাহিত্যিকরা নিজেদের বইপত্র নিজেরাই পড়া, নিজেরাই একে অন্যের প্রশংসা করে পিঠ চুলকে দেওয়া, ঘন ঘন বিভিন্ন মাধ্যমে আত্মীয় কুটুম্বর শক্তিবলে বিজ্ঞাপন প্রচার করা, রাবিশ আর বস্তাপচা কাগজের বান্ডিল ছেপে নিয়ে পুরস্কারের জন্য এ দুয়ার সেদুয়ারে হত্যে দিয়ে থাকা এবং সরকার তথা সরকারের ‘স্পোকসম্যান’ মেলাকর্তৃপক্ষের অন্যায়-অবিচার-পক্ষপাতিত্ব-দাদাগিরি নতমস্তকে মেনে নেওয়া। 

[৩] ২০১৩ সালের পর থেকে একটা চিহ্নিত মহল সুচিন্তিত ছক কষে বইমেলাকে সংক্ষিপ্তকরণ, বিধিনিষেধের ঘোটালায় ফেলে প্রায় মিলিটারি আইন জারি করেছে। একবার বই ‘চেক’ করে তো অন্যবার টাইম বেঁধে দেয়। পরেরবার মেলার সময় কমিয়ে আনে তো তার পরেরবার কোন কোন বই বা প্রকাশক মেলায় ঢুকতে পারবে না সেই ফরমান জারি করে। স্টলের টাকাপয়সার ঘ্যানতাড়া তো আছেই। সে ফি বছর বেড়েই চলেছে। 

[৪] এবার প্রথম সপ্তাহটা নিরামিষ জাউ জাউ কাটলেও দুম করে এক অসম বয়সের দম্পতিকে মেলা থেকে বলপূর্বক বের করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। কেন? কে কে নাকি অভিযোগ করেছিল তারা সমাজ কলুষিত করছে। হা হোতষ্মি। একটা পঁচাগলা এঁদো নর্দমার মতো সমাজের খারাপ করতে বাকি আছে কিছু? হ্যাঁ, ওই দম্পতি ব্যক্তিত্বহীন ক্যালাসের মতো তাদের বিয়ে নিয়ে মিডিয়ার খোরাক হওয়া উপভোগ করছে। সেটা তাদের নিজস্ব ব্যাপার। সেখানে বইমেলা কর্তৃপক্ষ বাম হাত ঢোকানোর কে? কোন এখতিয়ারে এটা করলো? একজন ব্যক্তি ৬৫ বছর ১৮ পেরুনো নারীকে তার সম্মতিতেই বিয়ে করেছেন। এখানে রাষ্ট্র, সরকার, সমাজ, বাংলা একাডেমির নাক গলানোর আইনগত কোনো অধিকার আছে? নেই। তারপরও তারা গলাবেন। কারণ তারা নিজেদের প্রভু ভাবেন এবং প্রভুদের নাক সব সময়ই বেশ খানিকটা গলে থাকে। প্রতিবাদ জানিয়ে রাখলাম। ১০ ফেব্রুয়ারি ২৪। লেখক ও ফ্রিল্যান্স জার্নালিস্ট 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়