শিরোনাম

প্রকাশিত : ১৪ জুন, ২০২৪, ০২:১৫ রাত
আপডেট : ১৪ জুন, ২০২৪, ০২:১৫ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

লায়লা, প্রিন্স মামুন, কন্যাদায়গ্রস্ত বাবা-মা ও সমাজ ব্যবস্তা

সৈয়দা সাজিয়া আফরিন

সৈয়দা সাজিয়া আফরিন: স্ত্রী, গার্লফ্রেন্ড, এসকর্ট এগুলোর অর্থ আলাদা শুধু সামাজিক সম্মানে। কিন্তু ব্যাপারটা এক। সুতরাং অর্থটাও একই। অন্যদিকে জিগোলো বা চিনি ছেলে ব্যাপারটা কাছাকাছি, কিন্তু স্বামী ব্যাপার আলাদা। স্ত্রী, গার্লফ্রেন্ড এসকর্ট ওদের কোনো সামাজিক ক্ষমতা না থাকলেও জিগোলোর আছে আর স্বামী মানে তো ঈশ্বর। ধনী না হইলেও, ক্ষমতা না থাকলেও পুরুষ সামাজিকভাবে দুর্বল না। সারভাইভিং ইন্টেলেক্ট ওদের যেকানো ধনী, শিক্ষিত, প্রতিষ্ঠিত মেয়েদের চেয়ে অনেক বেশি। লায়লা টাকা দিয়ে তরুণের সঙ্গ নিলেও, মামুনকে ব্যবহার করে কনটেন্ট বানালেও লাভ ছিলো বলেই মামুন ছিলো। সামাজিক লজ্জার মাথা খেয়ে লায়লার কন্টেন্টে শোভা বাড়াতো মামুনের মাও। 

মামুন দরিদ্র, মামুন অযোগ্য হলেই সে অসহায় নয়। সে পুরুষ। তাই ভাত-কাপড়ে, লাইফস্টাইলে তার পোষায় না। সে বাড়ি চায়। মামুনের মা বাড়ি চায়। অথচ এসকর্ট সুগার বেবি তো দূর কী বাত; সুন্দরী, সেক্সি, যোগ্য ও গুণী স্ত্রীরাও বাড়ি চায়া সংবাদ সম্মেলন দিতে পারবে না। স্ত্রী পরিবার সাজাতে, সন্তানসমেত যৌথ জীবনের জন্য যদি বাড়ি-গাড়ি চায়, তবুও আপনাদের মনে হবে লোভী, যদি স্ত্রী না হয় সুগার বেবি হয়? সে যদি সম্পর্কে স্টে করার বিনিময় গাড়ি বাড়ি চায় ওকে আপনারা কী করবেন? স্লাট ডেকে অসম্মানে  ছিড়েফেড়ে রাখবেন। কিন্তু কিন্তু কিন্তু! মামুনের বাড়ি চাওয়াটা লজিক্যাল মনে হবে, বুড়া বেটিকে ডিনাই করে চলে যাওয়াটা লজিক্যাল মনে হবে। সেইটাই হইলো মামুনের সামাজিক ক্ষমতা। মামুন দরিদ্র হলেও সারভাইব করবে, লায়লা করবে না। 

এই দেশে দারিদ্র্যের কারণে অসম ব্যবধানে অনেক বেশি বিয়ে হয় নারীর। বিনা এক্সপেক্টেশনে যৌনসঙ্গ, হাউজ লেবার, আর বিনিময় হলো শুধু ভাত-কাপড়। মামুন ভালো খেয়ে ভালো পরে ঋষ্টপুষ্ট হয়, ত্বক চকচক করে আর ওই নারীদের শ্রমে ঘামে, অপরিণত বয়সে যৌনসঙ্গ দিয়ে, উপর্যুপরি সন্তান জন্ম দিয়ে শরীর ভেঙে পড়ে, হাড় থেকে মাংস ঝরে পড়ে, অসুস্থ হয়, দ্রুত বার্ধক্য নামে। কটা বছর গেলেই দ্বিগুণ বয়সী স্বামীর কাছাকাছি বয়সের বলে মনে হয়। এবং মারা যায়। তো, এই বিনিময় মেয়ের বাবা-মা করে। তাদের লজ্জা হয় না। যেমন মামুনের মায়ের হয় না। তবে মামুনের মা ডিমান্ডিং। কারণ যে কোনো সাধারণ দরিদ্র পুরুষ অবলীলায় রিকশা চালাবে। কিন্তু লায়লাকে বিয়ে করবে না। 

অন্যদিকে মেয়েগুলার মা বাবা ডিমান্ড করতে পারেন না কারণ আরও ডজনখানেক দরিদ্র কন্যাদায়গ্রস্ত বাবা-মা দাঁড়ায়ে আছেন ভাত কাপড়ের বিনিময়ে বে দিতে প্রয়োজনে যৌতুক দিতে! লায়লা ধনী সেটা বোঝা যায়, কিন্তু কেমন তা আমি জানি না। তিনি বারবার দাবি করেন তিনি শিক্ষিত তিনি অবস্থাসম্পন্ন, তিনি মামুনের থেকে বেটার। কিন্তু তিনি মামুনের মতো ছেলেকে ভালোবাসতে পারেন, সঙ্গে থাকতে পারেন, নিম্ন রুচির ভিডিয়ো বানাতে পারেন। সেহেতু তাকে শিক্ষিত বা রুচিশীল বলতে আমার বাঁধে। আমি অবশ্যই বিশ্বাস করি, জিগোলো হইলেও তার এক্সিট করার অধিকার আছে। কিন্তু আমি বিশ্বাস করি না যে মামুন অসহায়। মামুন লায়লার চেয়ে বেশি ক্ষমতা রাখে এবং সেগুলো এক্সারসাইজ করেছে অলরেডি। লেখক: সাংবাদিক

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়