শিরোনাম

প্রকাশিত : ১৫ মে, ২০২৪, ০৫:০০ সকাল
আপডেট : ১৫ মে, ২০২৪, ০৫:০০ সকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

নুসরাত ফাতেহ আলীর গান শুনলে চোখ দুটো ছলছল হয়ে যায় 

জীবন কেন এমন হয় : [১] নুসরাত ফাতেহ আলী খান ১৯৮০ সালে প্রথম ভারত সফর করেন। মূলত সেটাই ছিল তার প্রথম বিদেশ সফর। রাজ কাপুর তার ছেলে ঋষি কাপুরের বিয়েতে গান গাওয়ার জন্য খান সাহাবকে আমন্ত্রণ জানান। সেই বিয়ের অনুষ্ঠানে বলিউডের সব বড়ো বড়ো গায়ক ও গায়িকারাও উপস্থিত ছিলেন। চুক্তি অনুযায়ী কথা ছিল, নুসরাত ফাতেহ আলী খান ৩০ মিনিট গান গাইবেন। কিন্তু নুসরাত যখন গান শুরু করলেন তখন রাজ কাপুর, ঋষি কাপুরসহ উপস্থিত সবাই মুগ্ধ হয়ে গেলেন। রাজ কাপুর এতোটাই মুগ্ধ হলেন যে, নুসরাত সাহাবকে অনুরোধ করে পুরো চার ঘণ্টা গান শুনলেন।

[২] নুসরাত ফাতেহ আলী খানের তখন বিশ্বজোড়া নাম। ফ্রান্সের একটি কালচারাল ক্লাব নুসরাত সাহাবকে সেখানে আমন্ত্রণ জানায়। নুসরাত সাহাব চিন্তা করলেন, ফ্রান্সের মানুষজন তো উর্দু বুঝবে না। তাই গানগুলো ইংরেজিতে অনুবাদ করে নিয়ে যান। নুসরাত সাহাব যখন বললেন, তিনি ইংরেজিতে গান গাইবেন তখন উপস্থিত দর্শকরা আপত্তি জানালেন। তারা বললেন, আপনি আমাদের সাথে জুলুম করবেন না। আপনি উর্দু ভাষাতেই গান গাবেন। আমরা গানের সুরে গানের কথা বুঝে নিবো।

[৩] একবার এক অনুষ্ঠানে পাকিস্তান ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক ইমরান খান বলেছিলেন, ’৯২ এ বিশ্বকাপ জেতার পেছনে নুসরাত ফাতেহ আলী খানেরও অবদান আছে। ৯২ বিশ্বকাপে পাকিস্তান প্রথম দিকের ম্যাচগুলোতে হারতে থাকে। দলের সবাই আপসেট, আমিও আপসেট। হোটেল রুমে নুসরাত সাহাবের গান শুনছিলাম। যখনই নুসরাত সাহাবের ‘আল্লাহু আল্লাহু আল্লাহ...’ গান শুনলাম, আমার ভিতরে আত্মবিশ্বাস ফিরে আসতে লাগল। পরের ম্যাচে নামার আগে আমি দলের সবাইকে নিয়ে নুসরাত সাহাবের ‘আল্লাহু আল্লাহু আল্লাহু’ গান শুনলাম। তারপর লক্ষ্য করলাম সবাই উজ্জীবিত ও আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠছে। আমরা ফাইনালের দিনও গানটা শুনেই মাঠে নেমেছিলাম।  তারপর ইমরান খান বলেন, ‘নুসরাত সাহাবের গানে ও কণ্ঠে এমন কিছু একটা আছে, যা ব্যাখ্যাতীত। তার গান শুনে পাগল হবে না, এমন লোক দুনিয়ায় পাওয়া যাবে না।’

[৪] ১৯৯৩ সালের কথা। ভারতের রাজস্থান থেকে এক বয়স্ক লোক নুসরাত সাহাবের বাড়িতে আসলেন। নুসরাত সাহাবের সাথে দেখা করে বললেন, ‘আমার মেয়ে বিয়েতে আমার থেকে কোনো উপহার নিতে চাচ্ছে না। তবে একটি আবদার করেছে। তার বিয়েতে আপনি গান গাইবেনÑএই আবদারটুকু করেছে।’ পাশেই নুসরাত সাহেবের সেক্রেটারি বসা ছিল। সেক্রেটারি বয়স্ক লোকটার কাছে ১ লাখ টাকা চাইল। তাহলে নুসরাত সাহাব আপনার মেয়ের বিয়েতে গান গাইবে। তখন নুসরাত সাহাব বললেন, ‘না। এক টাকাও দিতে হবে না। আমি বিনা পয়সাতেই আপনার মেয়ের বিয়েতে গান গাইতে যাবো।’ বিয়ের দিন নুসরাস সাহাব ঠিকই তার দলবল নিয়ে উপস্থিত হলেন। বিয়েতে গান গাইলেন। গানের আসর শেষে ফেরার পথে নুসরাত সাহাব সেই মেয়েকে বিয়ের উপহার হিসেবে ৫০ হাজার টাকা উপহার দিয়েছিলেন। গান শুনলে কারোর কান্না আসে কিনা জানি না। তবে নুসরাত সাহাবের গান শুনলে চোখ দুটো ছলছল হয়ে যায়। নুসরাত সাহাবের গানে কী জাদু আছে, কেউ কি বলতে পারবেন!  ১২-৫-২৪। ফেসবুক থেকে 

 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়