শিরোনাম
◈ চার বছর পর বিধিনিষেধহীন মুক্ত পরিবেশে পহেলা বৈশাখ ◈ পহেলা বৈশাখে ইলিশের দাম চড়া ◈ নববর্ষ ১৪৩১ বঙ্গাব্দকে বরণে বর্ণাঢ্য র‌্যালি করবে আওয়ামী লীগ ◈ নতুন বছর মুক্তিযুদ্ধবিরোধী অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে প্রেরণা জোগাবে: প্রধানমন্ত্রী ◈ নতুন বছর মানে ব্যর্থতা পেছনে ফেলে সমৃদ্ধ আগামী নির্মাণ করা: মির্জা ফখরুল ◈ ইসরায়েলের তেল আবিব থেকে সরাসরি ঢাকায় ফ্লাইট অবতরণ ◈ বিএনপি গুম-নির্যাতনের কাল্পনিক তথ্য দিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করছে: ওবায়দুল কাদের ◈ সরকারি খরচে ৩০৪৮টি মামলায় আইনি সহায়তা প্রদান ◈ রেল ভ্রমণে মানুষের আস্থা তৈরি হয়েছে: রেল মন্ত্রী  ◈ অস্ট্রেলিয়ায় শপিংমলে ছুরি হামলায় নিহত ৫, আততায়ী মারা গেছে পুলিশের গুলিতে

প্রকাশিত : ০৪ মার্চ, ২০২৪, ০১:৪৮ রাত
আপডেট : ০৪ মার্চ, ২০২৪, ০১:৪৮ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

কয়েকদিন পরেই বেইলি রোডের অগ্নিকাণ্ডের ফাইল হিমঘরে চলে যাবে 

মনজুরুল হক

মনজুরুল হক: কয়েকদিন পরেই বেইলি রোডের অগ্নিকাণ্ডের ফাইল হিমঘরে চলে যাবে। তার আগে দুটো কথা বলে রাখি, এদেশে যেকোনো দুর্ঘটনা-বিপর্যয় পরবর্তী সরকারি সাফাই আগুন লাগার পর বলা হবে-ভবনের অনুমোদন ছিলো না। লঞ্চডুবির পর বলা হবে-ফিটনেস সার্টিফিকেট ছিল না, অতিরিক্ত যাত্রী ছিল। সড়ক দুর্ঘটনার পর বলা হবে-ফিটনেস ছিল না, চালকের লাইসেন্স ছিল না। গার্মেন্টস কারখানায় আগুন লাগার পর বলা হবে-ফায়ারস্কেপ সিঁড়ি ছিল না, মেইন গেটে তালা ছিল। ভুল চিকিৎসায় রোগী মরার পর বলা হবে-হাসপাতালটির অনুমোদন ছিল না...। কিন্তু কখনোই বলা হবে না-এসব দেখার জন্য জনগণের ট্যাক্সের টাকায় পোষা গাইড পাস মূর্খ অপদার্থরা টাকা খেয়ে এইসকল অবৈধ প্রতিষ্ঠানগুলোকে চলতে দিয়েছে এবং শতশত মানুষের অপমৃত্যুর কারণ আসলে এরাই।

দুই. হোটেল-রেস্টুরেন্ট ব্যবসা শুরু করতে গেলে কমপক্ষে বার-চৌদ্দটি সংস্থার অনুমোদন বা সার্টিফিকেট লাগে। এসব যদি কেউ বৈধ উপায়ে যোগাড় করতে চায়, সে আর ব্যবসা শুরু করতে পারবে না। গাইড পাস মূর্খ অপদার্থ কর্মকর্তারা এমন সব জটিল এবং দীর্ঘমেয়াদি সিস্টেম তৈরি করে রেখেছে যাতে কেউ যেন বৈধ উপায়ে অনুমোদন না পায়। তখন কী করতে হবে? সেটা তারাই বলে দেবে। লাখ লাখ টাকা ঢেলে ব্যবসা চালু করতে এবং চালু রাখতে হবে এবং নিয়মিত মাসোহারা দিয়ে যেতে হবে। এই অপদার্থ কর্মকর্তাবহর ফায়ার ব্রিগেড, পরিবেশ অধিপ্তর, শ্রম অধিদপ্তর, রাজউক, ওয়াসা, ডেসকো, তিতাস, সিটি কর্পোরেশন থেকে শুরু করে সর্বত্র নির্বিঘ্নে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। সেই টাকার কাফফারা দিচ্ছে ভোক্তাগণ। ৬০ টাকা বার্গার খাচ্ছে ২৫০ টাকা দিয়ে এবং কিছুদিন পর পর আগুনে পুড়ে মরছে।

তিন. এখন করণীয় কী? কিছুই না। কারণ সর্ষেতেই ভূত। সিআইডি, দুদক ওইসকল কর্মকর্তাদের ধরতে গেলে তারা বলবে, ‘আয়নায় নিজেদের দেখে আসেন’। এবার তাদের ধরতে গেলে তারাও বলবে, ‘আমরা কি বানে ভেসে এসেছি? রীতিমতো লাখ লাখ খচ্চা করেই এই পোস্ট পেয়েছি’। তাদেরও ‘উপর’ আছে। সেখানে যাবেন? যেতে পারবেন? যদি পারেনও প্রাণ নিয়ে ফিরতে পারবেন না। সুতরাং সরকারের বাগাড়ম্বর,  ‘কানাডা-সিঙ্গাপুর’ হয়ে যাওয়া এই রাজধানী নামক মৃতনগরীতে মাঝে মাঝেই এ ধরনের প্রাণঘাতি দুর্ঘটনা, বিপর্যয়, ডিজাস্টার ঘটবে। আপনার-আমার নিকটজন মরবে। আপনি-আমিও মরব। আমাদের আত্মিয়স্বজনরাও এরকম পোস্ট লিখবে। লিখতে লিখতে কম্পিউটার ক্র্যাশ করবে, কিন্তু এসব প্রিপ্ল্যান্ড সিস্টেম বদলাবে না। ২ মার্চ ২০২৪। লেখক ও ফ্রিল্যান্স জার্নালিস্ট

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়