শিরোনাম

প্রকাশিত : ১১ আগস্ট, ২০২২, ০৯:১০ রাত
আপডেট : ১২ আগস্ট, ২০২২, ০২:৫৪ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

হাইকোর্টে গেলেন প্রেমের টানে বাংলাদেশে এসে মার খাওয়া সেই যুবক 

প্রেমকান্ত

ডেস্ক রিপোর্ট: শেষ পর্যন্ত হাইকোর্টেই যেতে হচ্ছে প্রেমের টানে বাংলাদেশে এসে মারধর ও অপমানের শিকার হওয়া তামিলনাড়ুর যুবক প্রেমকান্ত। আইনি পরামর্শের জন্য তিনি হাইকোর্টে আসেন বলে জানান দুই আইনজীবী।

বৃহস্পতিবার (১১ আগস্ট) সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান ও অ্যাডভোকেট নিশাত ফারজানা নিপার চেম্বারে সে আইনি পরামর্শ করেন পেমকান্ত।

পরে অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান ও অ্যাডভোকেট নিশাত ফারজানা নিপা বলেন, প্রেমকান্ত আমাদের কাছে আইনি পরামর্শের জন্য এসেছিলেন। আমরা মনে করি তিনি বিদেশি নাগরিক হলেও বাংলাদেশে তার আইনের আশ্রয় লাভের অধিকার রয়েছে।

জানা যায়, ভারতের তামিলনাড়ুর যুবক প্রেমকান্ত। বাংলাদেশে থাকেন ‘প্রেমিকা’। তার টানে গত জুলাইয়ের শেষ দিকে তামিলনাড়ু থেকে বরিশালে আসেন প্রেমকান্ত। তবে ‘প্রেমের টানে’ বাংলাদেশে ছুটে আসা আর সব বিদেশির মতো তার ভাগ্যে শিকে ছেঁড়েনি। বরিশাল শহরে উল্টো পিটুনি খেয়েছেন তামিল এই যুবক।

বাংলাদেশি তরুণীর প্রেমে পড়া প্রেমকান্ত একজন নৃত্যশিল্পী। বরিশালে প্রেমিকার সঙ্গে দেখাও হয়েছিল। তবে প্রেমকান্তের বুক ভেঙে দেন বরিশালের এক যুবক। চয়ন হালদার নামে ওই যুবকের দাবি, তিনিই মেয়েটির ‘আসল প্রেমিক’। চয়নের হাতে পিটুনিও খেয়েছেন প্রেমকান্ত, থানায় থেকেছেন তিন রাত।

তবে ভারতের তামিলনাড়ু থেকে বরিশালে এসে ‘মারধরের শিকার’ হয়েছেন প্রেমকান্ত এমন অভিযোগের কোনো সত্যতা পায়নি পুলিশ। দেখা করতে আসা কিশোরীর সঙ্গে গাড়িতে বসে খারাপ আচরণ করায় দুজনের মধ্যে বাগবিতণ্ডার সৃষ্টি হলে স্থানীয়রা সেটি সমাধানের চেষ্টা চালায়। উত্তেজিত প্রেমকান্তকে অটো থেকে নামানোর চেষ্টা করেন স্থানীয়রা। মূলত দেখা হওয়ার পর পরই কিশোরীকে কু-প্রস্তাব দিয়েছিল প্রেমকান্ত। সেই সূত্রেই সর্ম্পকের অবনতি হয়।

স্থানীয়রা ভারতীয় নাগরিক দেখে তাকে সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর করলে আত্মরক্ষার্থে মিথ্যার আশ্রয় নেন প্রেমকান্ত। অভিযোগ তোলেন মারধর ও টাকা, মোবাইল নিয়ে যাওয়ার। প্রেমকান্তের এসব অভিযোগ ‘অসত্য’ বলে জানিয়েছেন পুলিশ।
 
৫ আগস্ট (শুক্রবার) বরগুনা জেলার তালতলী থানায় প্রেমকান্তের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন তার কথিত প্রেমিকার বাবা। সেখানে তাদের দুজনের প্রেমে ফাটল ধরার কারণ স্পষ্ট। মূলত সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পরিচয়ের সূত্র ধরে বন্ধু হলে ২৪ জুলাই প্রেমকান্ত বরিশালে চলে আসেন। ২৫ জুলাই একটি রেস্তোরাঁয় ওই কিশোরী তার তিন বান্ধবীসহ দেখা করে দুপুরের খাওয়া শেষে চলে যায়। এরপর প্রেমকান্তের অনুরোধে ২৭ তারিখ কাশিপুর এলাকায় দেখা করে। সেখানে অটোরিকশার মধ্যে প্রেমকান্ত ওই কিশোরীকে খারাপ সর্ম্পক স্থাপনের প্রস্তাব দেয়। একইসঙ্গে তার সঙ্গে ঢাকা যাওয়ার জন্য চাপ সৃষ্টি করে। ওই ছাত্রী প্রেমকান্তের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করলে দুজনের মধ্যে ঝামেলা শুরু হয়। এক পর্যায়ে তা মারাত্মক রূপ নেয়। তাদের বহনকারী গাড়িটি থামিয়ে স্থানীয়রা বাগবিতণ্ডা বন্ধ করে নিকটস্থ পুলিশ স্টেশনে (বিমানবন্দর থানায়) জানায়। সেখান থেকে পুলিশ এসে প্রেমকান্তকে হেফাজতে নেয়।

তালতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী সাখাওয়াত হোসেন বলেন, ভারতীয় ওই যুবকের বিরুদ্ধে এক কিশোরীকে কু-প্রস্তাব দেওয়া ও তাকে চাপ সৃষ্টি করে নিয়ে যাওয়ার লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। যদি এমন ঘটনা তিনি ঘটান তা অবশ্যই অপরাধ। আমরা অভিযোগটির তদন্ত করছি। অভিযোগের সত্যতা পেলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 

তবে সবঅভিযোগ অস্বীকার করে প্রেমকান্ত বলেন, তালতলী থানায় যে অভিযোগের কথা বলা হচ্ছে, আসলে এমন কোনো আচরণ আমি করিনি। তার সঙ্গে হোটেলে, কলেজে এবং কাশিপুর চৌমাথায় দেখা হলেও খারাপ কোনো প্রস্তাব দেইনি।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়