শিরোনাম
◈ মিয়ানমার সীমান্তে আগের পরিস্থিতি আর সৃষ্টি হবে না: প্রত্যাশা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর  ◈ জাতীয় পার্টিতে কোনো বিভেদ নাই: রওশন এরশাদ ◈ সাংবাদিকরা চাষাবাদ করছেন কি না, দেখার দায়িত্ব পেলেন শাইখ সিরাজ ◈ কারামুক্ত বিএনপি নেতা আলালের স্বাস্থ্যের খোঁজ নিলেন মঈন খান ◈ গাজায় যুদ্ধ নয়, গণহত্যা চলছে: প্রধানমন্ত্রী ◈ শুক্রবার বিশ্বে বাতাস দূষণের তালিকায় ঢাকা ছিল সপ্তম ◈ মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে নির্বাচন  নিয়ে কেউ প্রশ্ন করেনি: প্রধানমন্ত্রী ◈ লোহিত সাগরে হামলায় ব্যবহার করা হবে সাবমেরিন অস্ত্র: হুথি নেতা  ◈ ২১ বলে সেঞ্চুরি করে বিশ্ব রেকর্ড গড়লেন আসজাদ ◈ যারা সরকার উৎখাত করতে চায়, দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি তাদেরই কারসাজি: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত : ২৯ নভেম্বর, ২০২৩, ০২:৫৫ দুপুর
আপডেট : ২৯ নভেম্বর, ২০২৩, ০৮:৩১ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

ইউক্রেনকে অস্ত্র সহায়তা কমাচ্ছে আমেরিকা-জার্মানি! 

ইকবাল খান: [২] ২০২২ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে সেনা অভিযান শুরু করেন রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিন। রাশিয়ার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ইউক্রেনকে সমর্থন জানিয়েছিল জো বাইডেনের মার্কিন সরকার। যুদ্ধের শুরুতে অস্ত্রশস্ত্র দিয়ে সাহায্যও করেছিল। আনন্দবাজার

[৩] কিন্তু জার্মানির সঙ্গে জোট বেঁধে সেই আমেরিকাই নাকি এ বার ইউক্রেনকে যুদ্ধ থেকে সরে আসার কথা বলছে! জার্মানির ট্যাবলয়েড ‘বিআইএলডি’-র প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মার্চ মাসে রুজভেল্ট কক্ষে বৈঠকে বসেছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এবং জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ শলৎজ। সেই বৈঠকে বাইডেন এবং শলৎজ উভয়েই নাকি ইউক্রেনে অস্ত্র সরবরাহ সীমিত করার বিষয়ে সম্মতি জানান। পাশাপাশি, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিনের সঙ্গে শান্তি আলোচনায় বসার জন্যও নাকি ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কির উপর পরোক্ষ ভাবে চাপ দিতে সম্মত হন তাঁরা।

[৪] কিয়েভ-মস্কোর মধ্যে যুদ্ধ শুরুর পর থেকেই ইউক্রেনকে সামরিক সাহায্য প্রদানকারী দু’টি প্রধান শক্তি ছিল আমেরিকা এবং জার্মানি। কিন্তু সেই অস্ত্র সরবরাহের হিসাব নাকি বদলেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তাকে উদ্ধৃত করে ‘বিআইএলডি’ জানিয়েছে, দুই দেশই এখন শুধুমাত্র ‘নির্দিষ্ট পরিমাণ’ অস্ত্র সরবরাহ করতে চায় ইউক্রেনকে। যাতে রাশিয়ার বিরুদ্ধে তারা যুদ্ধ চালিয়ে যেতে পারে। পাশাপাশি রাশিয়ার সঙ্গে শান্তি আলোচনার জন্য যাতে পর্যাপ্ত সুযোগ থাকে, সেই অবকাশ রাখতেও ইউক্রেন সেনাবাহিনীর হাতে বেশি অস্ত্র তুলে দিতে রাজি নয় আমেরিকা এবং জার্মানি।

[৫] প্রতিবেদনে উল্লেখ রয়েছে যে, জার্মানির ফেডারেল সরকার এখন ইউক্রেনকে ‘আলোচনার জন্য কৌশলগত ভাবে ভাল অবস্থানে’ রাখার লক্ষ্য নিয়ে যাবতীয় সিদ্ধান্ত নিচ্ছে। সরকারি সূত্র জার্মানির ওই সংবাদমাধ্যমকে বলেছে, “ইউক্রেনের উচিত ‘সার্বভৌমত্ব এবং আঞ্চলিক অখণ্ডতা’ নিয়ে পুতিনের সঙ্গে আলোচনায় বসা। হোয়াইট হাউস এবং চ্যান্সেলার বিষয়টি দেখছেন।’’

[৬] বার্লিন এবং ওয়াশিংটন মনে করছে, কিয়েভ এবং মস্কো যদি আলোচনায় বসতে রাজি না হয়, তা হলে দুই দেশের মধ্যে সমস্যার কোনও সমাধান হবে না। দুই সরকারের মধ্যে কোনও আনুষ্ঠানিক চুক্তিও হবে না।

[৭] সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, রাশিয়া এবং ইউক্রেনকে শান্তি আলোচনায় বসাতে ব্যর্থ হলে ‘প্ল্যান বি’-ও রয়েছে আমেরিকা এবং জার্মানির হাতে। জার্মানি সংবাদমাধ্যমে সূত্র বলেছে, ‘‘দু’দেশের (রাশিয়া এবং ইউক্রেন)-এর মধ্যে শান্তি আলোচনা সম্ভব না হলে বিকল্প হিসাবে কোনও চুক্তি ছাড়াই সংঘাত থামাতে চাইছে বার্লিন এবং ওয়াশিংটন।’’

[৮] এর অর্থ হল, শান্তি আলোচনা বাস্তবায়িত না হলেও, ইউক্রেন এবং রাশিয়ার মধ্যে একটি নতুন সীমানা টানতে চাইছে আমেরিকা এবং জার্মানি। হার্ভার্ডের কেনেডি স্কুলের বেলফার সেন্টারের মতে, ক্রিমিয়া ছাড়াও ইউক্রেনের প্রায় ১৭.৫ শতাংশ জমি এখন রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণে। রাশিয়ার দাবি, সেই জমি তাদের দেশেরই অংশ।

[৯] যদিও ইউক্রেন এই বিকল্প রাস্তাতেও হাঁটবে বলে মনে করছেন না বিশেষজ্ঞেরা। রাশিয়া অধিকৃত জমি পুনরুদ্ধার করার দাবিতে বহু দিন ধরেই অনড় জেলেনস্কি সরকার।

আইকে/এইচএ

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়