শিরোনাম
◈ মার্কিন পাইলটের মৃত্যু, ইউনাইটেড হাসপাতালের অবহেলাকে দায়ী করেছেন বোন  ◈ ২ ফেব্রুয়ারি দেশের প্রথম পাতাল মেট্রো রেলের নির্মাণ কাজ উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী  ◈ দৈনিক সমকাল পত্রিকার বিরুদ্ধে প্রেস কাউন্সিলে ঢাকা ওয়াসার মামলা ◈ সরকার ইসলামের বিরুদ্ধে কিছু করেনি, করবেও না: শিক্ষামন্ত্রী ◈ পেশোয়ারের মসজিদে শক্তিশালী বিস্ফোরণে নিহত ২৮, আহত ১৫০ ◈ জমজমের পানি বিক্রি বন্ধের নির্দেশ ভোক্তা অধিদপ্তরের ◈ ডান্ডাবেড়ি পরানো নিয়ে নীতিমালা প্রণয়নে হাইকোর্টের রুল ◈ চৌগাছার সাবেক পুলিশ কর্মকর্তার কারাদণ্ড ◈ অনির্বাচিত লোক দিয়ে কখনো দেশের উন্নতি হয় না:  প্রধানমন্ত্রী   ◈ ১১ উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত : ০৩ ডিসেম্বর, ২০২২, ১১:১৪ দুপুর
আপডেট : ০৪ ডিসেম্বর, ২০২২, ০৩:২৪ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

ইন্দোনেশিয়ায় বিয়ের আগে যৌনতা নিষিদ্ধ, ধরা পড়লেই জেল!

ধরা পড়লেই জেল!

রাশিদুল ইসলাম: শুধু বিয়ের আগে যৌনতা নয়, ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রপতি, সরকারি প্রতিষ্ঠান, এবং যে কোনও সরকারি সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধাচারণ করা মানেই জেল খাটতে হবে। নতুন আইনে বিয়ের আগে যৌনতায় লিপ্ত হলে, সহবাস করলে, দেশের প্রধানের অবমাননা করলে, কিংবা সরকারবিরোধী অবস্থান নিলে ১ বছর পর্যন্ত জেল হতে পারে। আগামী ১৫ ডিসেম্বর দেশটির পার্লামেন্টে পাস হতে যাচ্ছে এ আইন। এ মাসেই দেশটির পার্লামেন্টে এ আইন পাসের পক্ষে-বিপক্ষে ভোট হবে। ধারণা করা হচ্ছে, এ আইনের পক্ষেই ভোট পড়বে বেশি। দি ওয়াল

তবে শুধুমাত্র তখনই এ আইন সক্রিয় হবে যখন তৃতীয় কোনো পক্ষ এ নিয়ে মামলা করবে। এর ফলে বিয়ের পর অন্য স্বামী বা স্ত্রী ছাড়া অন্য কারও সঙ্গে যৌন সম্পর্ক অপরাধ হিসেবে বিবেচিত হবে। এছাড়া অবিবাহিতদের বাবা-মা চাইলেও এই মামলা করতে পারবেন। 

এ আইন নিয়ে উদ্বেগ জানিয়েছে ইন্দোনেশিয়ার ব্যবসায়ী গোষ্ঠীগুলো। তারা বলছে, এ ধরণের আইন ইন্দোনেশিয়ার পর্যটন নষ্ট করবে। বিদেশিরা আর ইন্দোনেশিয়ায় বিনিয়োগ করতে চাইবে না। মূলত দেশটির শিক্ষার্থীরাই সবথেকে বেশি এই আইনের বিরোধিতা করছে।

বছর দশেক আগে থেকেই অপরাধ আইনে একাধিক বদল আনার চেষ্টা করছিল ইন্দোনেশিয়া সরকার। ২০১৯ সালেই এই আইনের একটি খসড়া প্রস্তাব পাশ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু দেশব্যাপী প্রতিবাদ এবং প্রতিরোধের মুখে সাময়িকভাবে পিছু হটেছিল সরকার। দেশটির কয়েকটি ইসলামিক গোষ্ঠী এই আইনকে সমর্থন করলেও প্রতিবাদে পথে নেমেছিলেন হাজার হাজার মানুষ। কিন্তু তারপরেও সামান্য বদল করার পর ফের পাশ হতে চলেছে এই আইন।

নয়া বদলগুলির বিষয়ে মানুষকে অবহিত করতে দেশব্যাপী প্রচার চালিয়ে জনসমর্থন নিয়েছে ইন্দোনেশিয়া সরকার। একটি বদল আনা হয়েছে, যেখানে ১০ বছর ভাল ব্যবহার করলে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামির সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হবে। যদিও, ধর্ষণ ছাড়া অন্যান্য ক্ষেত্রে গর্ভপাতকে ‘অপরাধ’ হিসেবেই দেখা হচ্ছে নতুন আইনে। এছাড়াও ‘কালো জাদু’ চর্চা করলেও নতুন আইনে হাজতবাস বাঁধা। রাষ্ট্রপতির অবমাননা করলে সর্বোচ্চ তিন বছর পর্যন্ত জেল হতে পারে।

ইন্দোনেশিয়া বিশ্বের সবচেয়ে জনবহুল মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ। দেশটিতে নারী, এলজিবিটিকিউ গোষ্ঠী, এবং ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের প্রতি বৈষম্যমূলক অজস্র আইন এবং বিধি নিষেধ রয়েছে। তারপরেও নতুন এই আইন বলবৎ হলে তা ইন্দোনেশিয়ার গণতন্ত্রের অবনতি ঘটাবে বলে মনে করছেন মানবাধিকার কর্মী আন্দ্রেয়াস হারসোনো।

যদিও প্রতিবাদীদের দাবি উড়িয়ে দিয়েছেন দেশটির ডেপুটি আইনমন্ত্রী এডওয়ার্ড ওমর শরীফ হায়ারিয়েজ। তিনি জানিয়েছেন, নতুন নিয়ম জাতীয় আইন মেনে তৈরি করা হয়েছে, এবং তাতে গণতন্ত্রের মর্যাদা অক্ষুন্ন থাকবে। ‘ইন্দোনেশিয়ার মর্যাদা এবং বোধের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ অপরাধ আইন আনতে পেরে আমরা গর্বিত,’ সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন তিনি।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়