শিরোনাম
◈ আদালতের আদেশ তো শিক্ষার্থীদের পক্ষেই, তাহলে কার বিপক্ষে আন্দোলন: ওবায়দুল কাদের ◈ গণতন্ত্রের জন্যও শিক্ষার্থীদের লড়াই করার আহ্বান আমির খসরুর ◈ চাল কেজিতে ২ থেকে ৫ টাকা, সবজি ১৫ থেকে ২০ টাকা বেড়েছে ◈ কোটাবিরোধীরা পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা শনিবার ◈ ৫ শতাংশ কোটা পুনর্বহালের দাবিতে আন্দোলনে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর সদস্যরা ◈ আনোয়ারা-ফৌজদারহাট পাইপলাইন মেরামত সম্পন্ন, কমবে গ্যাস সংকট ◈ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চীন সফরে বাংলাদেশ, ভারত ও চীন তিনদেশই খুশি ◈ আইনশৃঙ্খলার অবনতি ঘটালে বরদাশত করা হবে না: ডিএমপি কমিশনার ◈ কোটা আন্দোলনকারীরা ঘরে ফিরে যাবে বলে আশাবাদ আইনমন্ত্রীর ◈ অতি বৃষ্টিতে রাজধানীর বেশিরভাগ এলাকায় হাঁটুপানি, জনজীবন বিপর্যস্ত

প্রকাশিত : ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২৩, ০১:৪১ দুপুর
আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২৩, ০১:৪১ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

বিদ্যালয়ে শিক্ষক-কর্মচারী ১২ জন, ছাত্র-ছাত্রীও ১২

রাশেদুল ইসলাম, গাইবান্ধা: [২] বিদ্যালয়ের শ্রেণি কক্ষে চেয়ার-টেবিল থাকলেও শিক্ষার্থীর উপস্থিতি নগণ্য। শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে একজন, সপ্তম শ্রেণিতে ৭ জন ও অষ্টম শ্রেণিতে ৪ জনসহ মোট ১২ জন শিক্ষার্থী উপস্থিত রয়েছে। এদিকে ওই বিদ্যালয়ে শিক্ষক ও কর্মচারীর সংখ্যাও ১২ জন। অন্য দিকে কাগজে কলমে শিক্ষার্থী ভর্তি আছে ১৬০ জন। এছাড়াও বিদ্যালয়ে গিয়ে পাওয়া যায়নি প্রধান শিক্ষক কেএম সরোয়ার কায়েনাত কাজী লাবলুকে।

[৩] সরেজমিনে গিয়ে এমন চিত্র দেখা গেছে গাইবান্ধার পলাশবাড়ির ২নং হোসেনপুর ইউনিয়নের কদমতলী নিম্ন ম্যাধমিক বিদ্যালয়ে।

[৪] অভিযোগ রয়েছে, বিদ্যালয়টিতে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতি করে গোপনে নিয়োগ বাণিজ্যের মাধ্যমে ইতোমধ্যে প্রধান শিক্ষকসহ ৫ জনকে নবনিয়োগ করা হয়েছে। বিদ্যালয়ে নেই শিক্ষার পরিবেশ। ফলে দিন দিন শিক্ষার্থী শূন্যতা হয়ে পড়ছে বিদ্যালয়টি।

[৫] সপ্তম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী বলেন, প্রতিদিন আমরা তিন থেকে চার জন ক্লাস করি। প্রত্যেক ক্লাসেই তিন-চার জনের বেশি ছাত্র-ছাত্রী হয় না। কিছু ক্লাসে কোনো শিক্ষার্থীই নেই। স্যারেরা ক্লাস করিয়ে দুপুরের মধ্যেই ছুটি দিয়ে দেন। ফাঁকা ক্লাসে এভাবে লেখাপড়া করতে ভালো লাগে না।

[৬] অষ্টম শ্রেণির আরেক শিক্ষার্থী বলেন, এই স্কুলের বেশিরভাগ ছাত্র-ছাত্রীই গরিব পরিবারের। এজন্য লেখাপড়ার প্রতি তেমন একটা গুরুত্ব দেয় না পরিবার। আবার স্কুল থেকেও তেমন একটা চাপ দেওয়া হয় না। এই কারণেই দিন দিন স্কুলের অবস্থা খারাপের দিকে যাচ্ছে।

[৭] নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক অভিভাবক জানান, বিদ্যালয়ে ১০-১২ জনের বেশি ছাত্র-ছাত্রী আসে না। তাছাড়া শিক্ষার মান একেবারে ভালো না। বিদ্যালয়টিতে শিক্ষার পরিবেশ ফিরে আনতে অভিভাবক সমাবেশসহ সংশ্লিষ্টদের প্রয়োজনীয় তদারকির কথা জানান অভিভাবকরা।

[৮] মোবাইল ফোনে কথা হয় কদমতলী নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কেএম সরোয়ার কায়েনাত কাজী লাবলু'র সঙ্গে। তিনি বলেন, বিদ্যালয়ের কাজের জন্য উপজেলা শিক্ষা অফিসে আছি। আজ আর বিদ্যালয়ে ফিরব না।

[৯] পলাশবাড়ী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মাহাতাব হোসেন বলেন, প্রধান শিক্ষক অফিসে এসেছিলেন তিনি বিদ্যালয়ে ফিরে গেছেন। বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর অনুপস্থিতির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন বিস্তারিত প্রধান শিক্ষক বলতে পারবেন।

[১০] বিদ্যালয়টির শিক্ষার পরিবেশ ফিরে আনতে জেলা ও বিভাগীয় শিক্ষা অফিসের কর্মকর্তাগণের হস্তক্ষেপ কামনা করেন সচেতন নাগরিক ও এলাকাবাসী।

প্রতিনিধি/একে

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়