শিরোনাম
◈ হত্যাচেষ্টার অভিযোগ: থানায় জিডি করলেন চিত্রনায়িকা বুবলি ◈ যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্র সফর শেষে দেশের পথে প্রধানমন্ত্রী  ◈ সেপ্টেম্বরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৪৭৬, নিহতদের এক-পঞ্চমাংশের বেশি পথচারী ◈ ‘অর্থনীতিসহ সার্বিক পরিস্থিতি নাজুক হওয়ায় দেশ এখন দেউলিয়ার পথে’ ◈ বঙ্গোপসাগরে চলতি মাসে ২-১টি লঘুচাপ সৃষ্টি হয়ে ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে: আবহাওয়া অধিদপ্তর ◈ প্রেস ক্লাবে তোয়াব খানের দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত ◈ নেতাকর্মীদের পুলিশের সামনে ঠেলে দিয়ে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে চায় বিএনপি: তথ্যমন্ত্রী ◈ সব আন্দোলনে নেতৃত্ব দিবেন বেগম খালেদা জিয়া: মির্জা ফখরুল ◈ দুর্গাপূজায় জঙ্গি হামলার কোনো হুমকি নেই: র‍্যাব ডিজি ◈ তোয়াব খানের প্রথম জানাজা সম্পন্ন

প্রকাশিত : ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১২:৩২ দুপুর
আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ০৬:৩৬ বিকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

তিন কারণে চড়া সবজির বাজার

মহসীন কবির: তিন কারণে সবজির দাম বাড়তি । সার ও জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি এবং বাড়তি সেচের কারণে উৎপাদন খরচ বেড়ে যাওয়া। পথে পথে চাঁদাবাজির কারণে বেড় যায় সবজির দাম। শুক্রবার এসব কথা জানান মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেটের কাঁচাবাজারের আড়তদার রবিউল হোসেন। তিনি জানান, আগামি মাসে শীতের সবজি বাজারে আসলে দাম কিছুটা কমতে পারে। 

ক্রেতা সোহরাব হাসান জানান, বাজারে ৬০ টাকার নিচে কোন সবজি নেই । শুধু কাঁচা পেপে ও মিষ্টি কুমড়ার দাম কিছুটা কম। এছাড়া শাকের দামও বাড়তি, এক আটি লাল শাক ২০ টাকা । যেটা গত মাসে কিনেছি ১০টাকায়। এ দাম নিয়ে ক্রেতা-বিক্রেতাদের মধ্যে তৈরি হয়েছে অসন্তুষ্টি।

কাঁচা মরিচের ঝাঁজ কমলেও কমেনি গাজর ও টমেটোর দাম। টমেটো ১৪০ টাকা ও গাজর বিক্রি হচ্ছে ১৩০ টাকায়। আর আলু বিক্রি হচ্ছে ৩৫ টাকায়। অধিকাংশ সবজির দামই গত সপ্তাহের তুলনায় কেজিতে বেড়েছে ৫ থেকে ১০ টাকা। 

সবজি বিক্রেতা সেলিম মিয়া বলেন, বেগুন গত সপ্তাহে কিনেছি ৬৫ টাকায়। আজ তা কিনতে হয়েছে ৭৫ টাকায়। বিক্রি তো ৮০ টাকার নিচে করা যাচ্ছে না। গোল বেগুন ৯০, লম্বা বেগুন ৮০ টাকায় বেচতে হচ্ছে। 

গত সপ্তাহেও ঢেড়স ছিল ৫০ টাকা, আজ তা ৬০ টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে। কাকরোলে কেজিতে বেড়েছে ২০ টাকা। গত সপ্তাহেও যা ছিল ৫০ টাকা, আজ ৭০, শশা ৬০ টাকা কেজি।  

লাউ ৫০ থেকে ৬০, কচুর লতি ৬০ টাকা, ১০ টাকা বাড়তিতে করলা বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকায়, মিষ্টি কুমড়া ৪০ টাকা। ৫০০ গ্রাম ওজনের ছোট পাতা কপির পিস ৫০ টাকা, ঝিঙ্গা ৭০, চিচিঙ্গা ৭০, পটল ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। মূলা বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকা কেজি দরে। কাঁচা কলার হালি ৪০ টাকা। এসব সবজি গত সপ্তাহে ১০ থেকে ১৫ টাকা কমে পাওয়া গেছে। তবে শুধু পেঁপেই মিলছে ২৫ থেকে ৩০ টাকায়।

পাট শাকের জোড়া আঁটি ২৫ টাকা, কলমি শাক  জোড়া আঁটি ২০ টাকা, কচুর শাক দুই আঁটি ২০ টাকা, মূলার শাক দুই আঁটি ৩০ টাকা, লাল শাকের জোড়া আঁটি ৩০ টাকা, পুঁই শাক ৪০ টাকা, শাপলা ডাটা ১৫ টাকা। আর ধনিয়ার পাতা ১০০ গ্রাম ৩০ টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে। লেবুর হালি ১৫ থেকে ২০ টাকায় মিলছে। এছাড়া লাল ১৪৫ ও সাদা ডিম ১৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। 

 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়