শিরোনাম
◈ মিয়ানমারের ২৮৫ জন সেনা ফেরত যাবে, ফিরবে ১৫০ জন বাংলাদেশি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ◈ ভারতে লোকসভা নির্বাচনের প্রথম দফায় ভোট পড়েছে ৫৯.৭ শতাংশ  ◈ ভবিষ্যৎ বাংলাদেশ গড়ার কাজ শুরু করেছেন প্রধানমন্ত্রী: ওয়াশিংটনে অর্থমন্ত্রী ◈ দাম বেড়েছে আলু, ডিম, আদা ও রসুনের, কমেছে মুরগির  ◈ ২০২৫ সালের মধ্যে ৪৮টি কূপ খনন শেষ করতে চায় পেট্রোবাংলা ◈ ভিত্তিহীন মামলায় বিরোধী নেতাকর্মীদের নাজেহাল করা হচ্ছে: মির্জা ফখরুল ◈ বিনা কারণে কারাগার এখন বিএনপির নেতাকর্মীদের স্থায়ী ঠিকানা: রিজভী ◈ অপরাধের কারণেই বিএনপি নেতা-কর্মীদের  বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী  ◈ অ্যাননটেক্সকে জনতা ব্যাংকের সুদ মওকুফ সুবিধা বাতিলের নির্দেশ বাংলাদেশ ব্যাংকের ◈ চুয়াডাঙ্গায় তাপমাত্রা ৪১ দশমিক ৩ ডিগ্রি, হিট এলার্ট জারি 

প্রকাশিত : ০৪ এপ্রিল, ২০২৪, ১২:১৫ রাত
আপডেট : ০৪ এপ্রিল, ২০২৪, ১২:১৫ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

১২ কেজির এলপিজির দাম কমল ৪০ টাকা

মারুফ হাসান: রমজানে যখন নিতপণ্যের ঊর্ধ্বমুখী মূল্যে দিশেহারা জনগণ তখন স্বস্তির খবর দিল বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)। দৈনন্দিন ব্যবহারের তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাসের (এলপিজি) দাম ভোক্তা পর্যায়ে কমানোর ঘোষণা দিল সংস্থাটি। নতুন ঘোষিত মূল্যে ১২ কেজির সিলিন্ডারের দাম ৪০ টাকা কমিয়ে এক হাজার ৪৪২ টাকা নির্ধারিত হয়েছে। যা মার্চে ছিল ১ হাজার ৪৮২ টাকা। তবে বাজারে বিক্রেতাদের দৌরাত্ম্যে ন্যায্যমূল্যে কিনতে পারবে কি না তা নিয়ে শংকিত ভোক্তারা। 

বুধবার বিইআরসির হলরুমে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন দর ঘোষণা করেন সংস্থাটির চেয়ারম্যান মো. নূরুল আমিন। বিইআরসি প্রতি কেজি এলপিজির খুচরা দাম ১২০ টাকা ১৮ পয়সা নির্ধারণ করেছে। সে অনুযায়ী সাড়ে পাঁচ কেজি, ১২, ১৫, ১৬, ১৮, ২০, ২৫, ৩০, ৩৫ ও ৪৫ কেজি ওজনের সব সিলিন্ডারেরই দাম কমেছে। নতুন দাম এদিন সন্ধ্যা ছয়টা থেকেই কার্যকর হবে বলেও জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে।

এলপিজির পাশাপাশি গাড়িতে ব্যবহৃত অটোগ্যাসের দামও কমেছে। প্রতি লিটার অটোগ্যাসের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৬৬ টাকা ২১ পয়সা। সংবাদ সম্মেলনে নূরুল আমি বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সামঞ্জস্য রাখতে সৌদি আরামকো কোম্পানির প্রপেন ও বিউটেনের দামের সঙ্গে সমন্বয় করে নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। বিক্রেতাদের অবশ্যই নতুন এ দাম মেনে বিক্রি করতে হবে। 

বিশ্ববাজারে দাম কমার প্রভাবে এলপিজির দাম কমলেও আমদানিকারকরা তা বরাবরই মানেন না। দাম ঘোষণার দিনই বেশিরভাগ সময় মিল গেটে খুচরা বিক্রেতাদের কাছ থেকে বাড়তি দাম আদায় করা হয়। দীর্ঘদিন ধরেই তারা কৃত্রিম সংকট দেখিয়ে নির্ধারিত মূল্যের চাইতে অনেক বেশি দাম আদায় করে নিচ্ছে বাসাবাড়িতে রান্নার কাজে ব্যবহৃত এক একটি সিলিন্ডারে। বিইআরসি নির্ধারিত মূল্যের তোয়াক্কা না করেই উৎপাদনকারী কোম্পানিসহ খুচরা পর্যায়ের বিক্রেতারা ভোক্তাদের জিম্মি করে আদায় করছেন অতিরিক্ত অর্থ।

একেকটা সিলিন্ডার প্রতি ৩শ’ থেকে ৫শ’ টাকা বাড়তি আদায় করা যেন এখন নিয়ম হয়ে দাঁড়িয়েছে। আর এর জন্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান এবং খুচরা বিক্রেতারা দায়ী করছেন একে অপরকে। গত ফেব্রুয়ারিতে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণের এক জরিপে বলা হয়, এক সিলিন্ডার এলপি গ্যাস কিনতেই ভোক্তাদের মাসে অন্তত ২১৫ কোটি টাকা গচ্চা দিতে হচ্ছে। সমন্বিতভাবে এই অর্থ লোপাটে নেতৃত্ব দিচ্ছে উৎপাদনকারী মিল, ডিলার এমনকি খুচরা বিক্রেতারা। যার খেসারত দিতে হচ্ছে সাধারণ গ্রাহকদের।
প্রসঙ্গত, ২০২১ সালের ১২ এপ্রিলে দেশে প্রথমবারের মতো এলপিজির দাম নির্ধারণ করে বিইআরসি। তারপর থেকে প্রতি মাসে একবার দাম সমন্বয় করা হচ্ছে।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়