শিরোনাম
◈ বিএনপি নেতাদের জামিন বিষয়ে আমাদের কিছু করার নেই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ◈ ‘কিছু ভালো লাগে না’ গ্রুপ দেশের নামে দুর্নাম রটায়: প্রধানমন্ত্রী ◈ বিদেশি ঋণের সুদ পরিশোধে কিছুটা চাপে আছে দেশের অর্থনীতি: অর্থমন্ত্রী ◈ সমালোচনা হবেই, এটা দেখাটা জরুরি না: নান্নু ◈ প্রতিবেশীদের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রেখে ‘সামুদ্রিক সম্পদ’ আহরণ করুন: প্রধানমন্ত্রী ◈ ২০০ ইউনিটের বেশি ব্যবহার করলে বিদ্যুতের দাম ৫ শতাংশ বাড়বে, ১ মার্চ থেকে কার্যকর ◈ ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় রাশিয়ার ‘৬০ সেনা নিহত’ ◈ দোষী প্রমাণিত হলে অবহেলাকারী ও চিকিৎসকদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা: স্বাস্থ্যমন্ত্রী  ◈ খুলনাকে ৬৫ রানে হারিয়ে প্লে-অফে চট্টগ্রাম ◈ এরশাদ সর্বস্তরে বাংলাভাষা প্রচলনে আইন করেন: জি এম কাদের 

প্রকাশিত : ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ০১:১৭ রাত
আপডেট : ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ০৩:০৬ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

মায়ের চেষ্টায় মেডিকেলে পড়ার স্বপ্ন পূরণ হলো বগুড়ার যমজ ৩ ভাইয়ের

আইনুর ইসলাম, বগুড়া: [২] মাফিউল, সাফিউল এবং রাফিউল। একসঙ্গে বেড়ে উঠা তাদের। শিক্ষা জীবনের শুরুটাও একসঙ্গে। জন্মের প্রায় ৫ বছরের মধ্যেই হৃদরোগে মারা যান বাবা। জমজ তিন সন্তানকে নিয়ে বিপাকে পড়েন মা আর্জিনা বেগম। বাবা হারালেও মা আর্জিনা বেগম জমি বিক্রি করে তাদের পড়ালেখা করানোর হাল ধরেন। এরপর সন্তানদের মানুষের মতো মানুষ করতে শুরু হয় মায়ের জীবন যুদ্ধ।

[৩] তাদের বাড়ি বগুড়া শহর থেকে প্রায় ৩০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত ধুনট উপজেলার বথুয়াবাড়ি এলাকায়। তিন ভাইয়ের মধ্যে এক ভাই গত বছর এবং অপর দুই ভাই এ বছরের মেডিকেল পড়ার চান্স পান।

[৪] মেডিকেল চান্স পাওয়া ওই তিন ভাই হলেন- মাফিউল হাসান, সাফিউল হাসান এবং রাফিউল হাসান। তারা তিনজনই ধুনট নবির উদ্দিন পাইলট হাই স্কুল থেকে মাধ্যমিক ও পরে বগুড়ার সরকারি শাহ সুলতান কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করেন। এদের মধ্যে মাফিউল গত বছর ঢাকার শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজে এবং এ বছর সাফিউল দিনাজপুর মেডিকেল কলেজে ও রাফিউল নোয়াখালী মেডিকেল কলেজে চান্স পেয়েছেন।

[৫] ২০০৪ সালের ৩০ নভেম্বর ধুনটের বথুয়াবাড়ি এলাকায়  গোলাম মোস্তফা ও আর্জিনা বেগম দম্পতির ঘরে জন্ম নেয় তিন জমজ ভাই। তিন ভাইয়ের মধ্যে সাফি বড়, তারপর কয়েক মিনিটের ব্যবধানে জন্ম নেয় মাফি ও রাফি। ২০০৯ সালে  তাদের বাবা হৃদরোগে মারা যান। বাবা হারালেও মা আর্জিনা বেগম জমি বিক্রি করে তাদের পড়ালেখা করানোর হাল ধরেন। তিন জমজ ভাই এসএসসি পরীক্ষাতে জিপিএ-৫ পেলেও এইচএসসিতে তিন ভাইয়ের মধ্যে সাফি জিপিএ-৫ প্রাপ্তিতে বঞ্চিত হয়।

[৬] পরে তারা গত বছর একসঙ্গে মেডিকেল কলেজে ভর্তি দিলে শুধু  মাফিউল ঢাকার শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজে চান্স পায়। তবে অপর দুই ভাই প্রথমবার চান্স না পেলেও পরের বার চান্স নিতে কঠোর পরিশ্রম শুরু করেন। সেই ফলশ্রুতিতে এ বছর অপর দুই ভাই মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন।

[৭] জমজ তিন ছেলের সাফল্যে আঁচলে চোখ মুছে মা আর্জিনা বেগম বলেন, ২০০৯ সালে ওদের বাবা গোলাম মোস্তফা হৃদরোগের মারা যায়। তখন ওদের বয়স পাঁচ বছর। বাবার স্নেহ-মমতা পায়নি ওরা। বাবা মারা যাওয়ার পর তিন সন্তানকে পড়ালেখা করানো নিয়ে বিপাকে পড়ি। নিজে কষ্ট করে এবং জমি বিক্রি করে ওদের পড়ালেখা করিয়েছি। প্রায় পাঁচ বিঘা জমি ছিল। বাবার বাড়ির জমিও বিক্রি করে ওদের পিছে লাগিয়েছি। বাকি যা আছে তাও প্রয়োজনে বিক্রি করব। তবুও ওদের চিকিৎসক বানাব; যাতে আমাদের মত গরিব মানুষদের সেবা করতে পারে।

[৮] মায়ের অবদানের কথা উল্লেখ করে মাফিউল হাসান বলেন,  তিন জমজ ভাই বগুড়ায় মেসে একইসঙ্গে থেকে সরকারি শাহ সুলতান কলেজে পড়েছি। মা, কষ্ট করে এবং জমি বিক্রি করে পড়ালেখা করিয়েছে। কখনোই আমাদের কষ্ট করতে দেয়নি।

[৯] জমজ আরেক ভাই শাফিউল হাসান বলেন, 'আজ বাবা থাকলে অনেক খুশি হতো। বাবাকে হারিয়েছি শিশুকালে। এখন মা,ই বাবার  অভাব পূরণ করছে। মানুষের সেবা করার জন্য চিকিৎসক হতে পারি এই দোয়া চাই সবার কাছে।

[১০] অসুস্থ অবস্থায় বাবা মারা যাওয়ার কথা শুনে ডাক্তার হওয়ার প্রতিজ্ঞা করেন রাফিউল ইসলাম। তিনি বলেন, অসুস্থ অবস্হায় বাবা মারা যায়। যখন বুঝতে পারলাম বাবার সেই কথা তখন থেকেই তিন ভাই প্রতিজ্ঞা করি ডাক্তারি পড়বো এবং মানবতার তাগিদে গরীব মানুষদের পাশে দাঁড়িয়ে চিকিৎসা করবো। এই গ্রাম থেকে কেউ আগে মেডিকেলে চান্স পায়নি। আমরা এক পরিবার থেকে তিনজন মেডিকেলে চান্স পেয়েছি। এটা একদম অবিশ্বাস্য।

[১০] নায়েব আলী নামে এক প্রতিবেশি বলেন, তিন ভাইয়ের একসঙ্গে মেডিকেলে চান্স পাওয়া আমাদের গ্রামের জন্য গর্বের বিষয়। আমরা অনেক খুশী হয়েছি। আমরা চাইবো তারা ডাক্তার হয়ে গরীব দুখীদের পাশে দাঁড়াবে।'

[১১] তিন জমজ ভাইয়ের শিক্ষক গোলাম রব্বানী বলেন, 'এরা তিন ভাই মেডিকেলে চান্স পেয়েছে আল্লাহর কাছে শুকরিয়া জ্ঞাপন করি। আমি চাইবো তারা যেন দেশ ও দশের  কল্যাণে দাঁড়াতে পারে এই দোয়া করি। সম্পাদনা: হ্যাপী

প্রতিনিধি/এইচএ

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়