প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

স্বকৃত নোমান: আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে উন্নীত করা এখন অত্যাবশ্যকীয় কাজ!

স্বকৃত নোমান: ধান ভাঙার মেশিন দেখেছেন? মেশিনটায় ধান ঢোকালে চাল হয়ে বেরিয়ে আসে। পুষ্টিগুণসম্পন্ন ঝকঝকে চাল। ধান মেশিনে ঢোকানোর পর যদি ধানই বেরিয়ে আসে, কিংবা চালের সঙ্গে যদি ধানও থেকে যায়, তবে বুঝতে হবে সেই মেশিনে সমস্যা আছে। বিশ্ববিদ্যালয় কী? যে বিদ্যালয় বিশ্বের সকল জ্ঞানকে ধারণ করে, লালন করে, চর্চা করে সেটিই বিশ্ববিদ্যালয়। সেই বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রছাত্রীরা ঢুকে একেকজন পরিপূর্ণ মানুষ হিসেবে বেরিয়ে আসবে, যে মানুষের মধ্যে সংকীর্ণতা থাকবে না, সাম্প্রদায়িকতা থাকবে না, একদেশদর্শিতা থাকবে না। সে হবে প্রগতিশীল। সকল মানুষ, সকল জ্ঞান, সকল ধর্ম, সকল সংস্কৃতির প্রতি তার শ্রদ্ধাবোধ থাকবে। মানুষকে সে প্রগতির দিকে আহ্বান করবে, উদারতার দিকে আহ্বান করবে, বুদ্ধির মুক্তির দিকে আহ্বান করবে। সে গাইবে সর্বমানবের মহামিলনের গান।

বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢুকে ছাত্রছাত্রীরা যদি পশ্চাৎপদ থেকে যায়, কূপমণ্ডূক থেকে যায়, সাম্প্রদায়িক থেকে যায়, একদেশদর্শী থেকে যায়, অনুদার থেকে যায়, তবে সেটি বিশ্ববিদ্যালয় নয়, সেটিকে বড়জোর প্রাথমিক বিদ্যালয় বলা যেতে পারে। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে উন্নীত করা এখন অত্যাবশ্যকীয় একটি কাজ। তা করা গেলে একদিন বাংলাদেশ থেকে জ্ঞান রপ্তানি করা যাবে। করা না গেলে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের মুক্তি নেই। করা না গেলে আমাদের সন্তানদের একেকজন হয়ে ওঠবে কুয়োর ব্যাঙ, গ্রামের বর্বর মোড়ল। লেখক : কথাসাহিত্যিক

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত