প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ছেলেকে বাঁচাতে সালমানের উকিলের সাহায্য নিচ্ছেন শাহরুখ

বিনোদন ডেস্ক: বলিউড বাদশাহ শাহরুখ খানের ছেলে আরিয়ান খান ড্রাগস কেসে জেলে বন্দি। মুম্বইয়ের নামী আইনজীবী সতীশ মানশিণ্ডে তার মামলা লড়ছেন। তবে এখন শাহরুখ তার ছেলের জন্য নতুন এক আইনজীবীর সাহায্য নিচ্ছেন।

নতুন উকিল হলেন অমিত দেশাই। তিনি সেই আইনজীবী যিনি ২০০২ সালে বলিউড সুপারস্টার সালমান খানকে হিট অ্যান্ড রান কেস থেকে ছাড়িয়েছিলেন। শাহরুখের ছেলেকে জেল থেকে বের করে আনার জন্য এবার সেই অমিত দেশাইকে কাজে লাগানো হচ্ছে।

অমিত ১১ অক্টোবর আরিয়ানের জন্য কোর্ট গিয়েছিলেন। তিনি জামিনের আর্জি দাখিল করেছেন। এরপর এনসিবি কাউন্সিল আদালত জানিয়েছে, এজেন্সি আরও এক সপ্তাহ সময় চেয়েছে। নিজেদের কথা জানানোর জন্য আরও এক সপ্তাহ সময় চেয়েছে তারা।

অমিত দেশাই বলেছেন, তার মক্কেল আরিয়ান গেল এক সপ্তাহ ধরে জেলের মধ্যে রয়েছেন। জামিনের আবেদন তদন্তের ওপর নির্ভর করে না। আমি জামিনের জন্য বলছি না। আমি তারিখের জন্য বলছি। প্রশাসনিক কারণে কারও মুক্তি আটকে যাবে, এটা হতে পারে না। এনসিবি তদন্ত করতেই পারে।

তিনি আরও বলেন, আর যদি আরিয়ান এর কথা বলি, তা হলে বড় জোর এক বছরের শাস্তি হবে। তার বিরুদ্ধে কোনও তথ্যপ্রমাণ নেই। তার কাছ থেকে কিছু পাওয়া গিয়েছে, এমন কোনও প্রমাণ নেই। আর এরপরও যদি এনসিবি বলে তাদের আরও এক সপ্তাহ সময় চাই, তা হলে বলতে হয় এটা এক বছরের শাস্তির জন্য।

শাহরুখ খানের ছেলে আরিয়ান খান দায়রা আদালতে জামিনের আবেদন করেছিল। যার কোনও নির্দেশ এখনও আদালতের তরফ থেকে আসেনি। ২ অক্টোবরের মামলায় এনসিবি তাকে নিজেদের হেফাজতে নিয়েছিল। গত কয়েকদিন তাকে রাখা হয়েছে মুম্বইয়ের আর্থার রোড জেলে।

কিলা কোর্টের তরফ থেকে তার জামিনের আর্জি নাকচ হয়ে যায়। আর তারপর সে হাজির হয়েছে দায়রা আদালতে।

এদিকে ছেলে আরিয়ান খান গ্রেপ্তারের পর থেকেই মানসিক চাপের মধ্যে আছেন বলিউড বাদশা শাহরুখ খান। ছেলেকে মুক্ত করতে এদিক-সেদিক ছুটে বেড়াচ্ছেন তিনি। ছেলের দুশ্চিন্তায় ঠিকমতো খেতে পারছেন না শাহরুখ। এমনকি ঘুমাতেও পারছেন না কিং খান। ছেলে ঘরে না ফেরা পর্যন্ত আপাতত সিনেমার কাজ স্থগিত রাখছেন বাদশা।

প্রসঙ্গত, মুম্বাইয়ের একটি প্রমোদতরীর পার্টিতে মাদক সেবনের অভিযোগে গ্রেপ্তার হয়েছেন বলিউড বাদশা শাহরুখ খানের ছেলে আরিয়ান খান। নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো (এনসিবি)-এর কর্মকর্তাদের দীর্ঘ ৬ ঘণ্টার জিজ্ঞাসাবাদে মাদক গ্রহণের কথা স্বীকার করেছেন আরিয়ান। তাকে নারকোটিক ড্রাগস অ্যান্ড সাইকোট্রপিক সাবস্ট্যান্সেস (এনডিপিএস) আইনের আওতায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তারি পরোয়ানায় লেখা রয়েছে- ৩০ গ্রাম কোকেন, ২১ গ্রাম চরস, ২২টি এমডিএমএ বড়ি এবং নগদ ১ লাখ ৩৩ হাজার টাকা পাওয়া গেছে।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত