প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১]যুক্তরাজ্যে অতিরিক্তি গ্যাস ও বিদ্যুৎ বিলের কারণে দিশেহারা লাখ লাখ বাসিন্দা

লিহান লিমা: [২] গত আগস্টে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বলেছে, বিশ্ব লকডাউন থেকে সরে আসার পর উচ্চ চাহিদার কারণে গত ছয় মাসে গ্যাসের দাম রেকর্ড উচ্চতায় পৌঁছেছে। শুক্রবার থেকে জ্বালানির নতুন দাম কার্যকর করতে যাচ্ছে ব্রিটেনের এনার্জি রেগুলেটর। বিবিসি

[৩]নির্দিষ্ট মূল্য চুক্তি না থাকা ১ কোটি ৫০ লাখ গ্রাহকের জন্য মূল্যসীমা বাড়ানো হচ্ছে। চুক্তি ও পেমেন্ট পদ্ধতির কথা জানিয়ে তারা বলেছে ডিফল্ট জ্বালানি বিল ১৩৯ পাউন্ড বাড়তে পারে। প্রিপেমেন্ট মিটারের গ্রাহকদের আরো ১৫৩ পাউন্ড বাড়তি গুনতে হবে। ২০১৯ সালের জানুয়ারির পর এবার সর্বোচ্চ পরিমাণে দাম বাড়ছে।

[৪]এতে ইংল্যান্ড, ওয়েলস এবং স্কটল্যান্ডের প্রায় ১৫ মিলিয়ন পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। চ্যারিটি সংস্থাগুলো সতর্ক করে বলেছে, নতুন মূল্যবৃদ্ধির ফলে হাজার হাজার মানুষকে পরিবারকে খাওয়ানো এবং জ্বালানির বিল পরিশোধের মধ্যে যে কোনো একটিকে বেছে নিতে হবে। বর্ধিত এই মূল্যসীমা দেশটির ৪৮ লাখ ৮ হাজার মানুষকে ‘জ্বালানী দারিদ্রের মধ্যে ফেলবে। বাসিন্দাদের নিজেদের ঘর গরম/ঠান্ডা রাখার সামর্থ্য থাকবে না।

[৫] চ্যারিটি সংস্থা ইন্ড ফুয়েল প্রোভাটি বলেছে, বসন্তে আরেকদফা মূল্যসীমা বাড়ার ফলে জ্বালানি দারিদ্রের মুখে পড়া পরিবারের সংখ্যা ৫২ লাখ বা ইংল্যান্ডে বাস করা পরিবারগুলোর ২২.২৬ শতাংশ হতে পারে।

[৬]ব্রিটেনে সম্প্রতি জ্বালানি তেল ও খাদ্যপণ্য সরবরাহে ভারবাহী লরি চালকের সংকট দেখা গিয়েছে। তার ওপর ছোট ছোট কিছু ইউকে গ্যাস কোম্পানি দাম বাড়ার কারণে চাপের মুখে বাণিজ্য বন্ধ করে দিয়েছে।

[৭]যুক্তরাজ্যের বাণিজ্যমন্ত্রী কোয়াসি কোয়ার্তে জানান, সরবারাহে বিঘ্ন ঘটলেও ভোক্তাদের গ্যাস ও বিদ্যুৎ সরবরাহ নিরবিচ্ছিন্ন থাকবে। তিনি আরো বলেন, তেল ও গ্যাসের জন্য যুক্তরাজ্য রাশিয়ার ওপর নির্ভরশীল নয়। নরওয়ে বা আরো সহযোগী দেশ আছে। তবে দেশটিতে জ্বালানি তেল ও গ্যাসের সংকট অব্যাহত রয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত