প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ইদ্রিসা-মেসির গোলে ম্যান সিটিকে হারালো পিএসজি

স্পোর্টস ডেস্ক : চ্যাম্পিয়ন্স লিগের গত আসরের সেমি-ফাইনালে ম্যানচেস্টার সিটির কাছে হেরে বিদায় নিয়েছিল পিএসজি। দুই লেগের হার ফরাসি জায়ান্টদের টানা দ্বিতীয়বার ফাইনালে উঠার স্বপ্নভঙ্গ করেছিল। এবার সেই ক্ষতে কিছুটা হলেও প্রলেপ দিয়েছে লিগ ওয়ানের দলটি। ইদ্রিসা গানা গুয়ে ও লিওনেল মেসির গোলে সিটিকে হারিয়েছে তারা।

আজ মঙ্গলবার রাতে পিএসজির ঘরের মাঠে পার্ক ডি প্রিন্সে এ গ্রুপের ম্যাচে ২-০ গোলের ব্যবধানে জিতেছে মাওরিসিও পচেত্তিনোর দল। প্রথম গোলটি করেন ইদ্রিসা পরে ব্যবধান বাড়ান মেসি। লিগ ওয়ানের দলটির হয়ে প্রথম গোলের দেখা পেয়েছেন এই আর্জেন্টাইন। বল দখল ও আক্রমণ উভয় দিকে এগিয়ে থাকলেও পিএসজির গোলরক্ষক ডোনারুমাকে পরাস্ত করতে পারেনি সিটি। এক গোলরক্ষকের কাছেই হার মানতে হয়েছে পেপ গার্দিওলার দলকে।

আক্রমণ-প্রতি আ্ক্রমণ দিয়ে ম্যাচ শুরু হয়। দুই দলই বিশ্বসেরা আক্রমণ ভাগ নিয়ে মাঠে নেমেছিল। ফল পেতে বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি পিএসজিকে। অষ্টম মিনিটে স্বাগতিকদের এগিয়ে নেন গানা। বাম পাশ থেকে কিলিয়ান এমবাপের বাড়ানো ক্রস ছুঁতে মিস করেন নেইমার, তাতে কি ডান প্রান্ত থেকে ক্রস ধরেই কোনাকুনি শটে বল জালে পাঠান এই মিডফিল্ডার।

পিছিয়ে পড়ে পিএসজির আক্রমণ সামলেই ক্লান্ত হয় সিটিজেনদের রক্ষণ। তবে ২৬তম মিনিটে উল্লেখযোগ্য আক্রমণ করে সিটি। ডি-বক্সের মুখ থেকে ডি ব্রুইনার শট স্টার্লিংয়ে মাথায় ছুঁয়ে গোল বারে লাগে। সেখান থেকে একাধিক চেষ্টা করেও দলকে সমতায় আনতে পারেননি স্ট্যার্লিংরা। এরপর আরও কয়েকবার বল নিয়ে পিএসজির গোলরক্ষক ডোনারুমাকে পরীক্ষা নেয় সিটিজেনরা।

৩৮তম মিনিটে দুই বার এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ আসে পিএসজির সামনে। মাঝ মাঠ থেকে বল নিয়ে সতীর্থদের উদ্দেশ্যে বাড়ান এমবাপে। কিন্তু প্রথমবার হেরার লম্বা শট লাফিয়ে ঠেকান সিটির গোলরক্ষক এদেরসন। খানিক পরই আবারও এমবাপের ক্রস অল্পের জন্য পায়ে লাগাতে ব্যর্থ হন মারকুইনহোস। পাঁচ মিনিটের ব্যবধানে রুবিন দিয়াজের জোড়ালো হেড দারুণভাবে কর্নারের বিনিময়ে ঠেকান ডোনারুমা। তাতেই পিছিয়ে থেকে বিরতিতে যায় সিটিজেনরা।

বিরতি থেকে ফিরে বেশ আক্রমণাত্মক হয়ে উঠে ম্যান সিটি। বিপরীতে ভুল পাসিং খেলে পিএসজি। তাতেই সিটির বেশ কয়েকটি জমাট আক্রমণ সামলাতে হয়েছে পিএসজির রক্ষণকে। ৭৪ মিনিটে পিএসজিকে এগিয়ে নেন মেসি। পিএসজির জার্সি গায়ে এটি তার প্রথম গোল। এমবাপের একবার বল দেওয়া নেওয়া করে দারুণ এক শটে স্কোরলাইন দ্বিগুণ করেন এই আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড।

শেষের দিকে সিটির আরো বেশ কয়েকটি আক্রমণ ঠেকান ডোনারুমা। গোলবারে একাই সাতটি আক্রমণ ঠেকিয়ে দলের জয়কে সহজ করে তোলেন ইতালির এই গোলরক্ষক।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত