প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] সাতক্ষীরায় সেন্ট্রাল অক্সিজেন বিপর্যয়ের কারণে ৮ রোগীর মৃত্যু

ফরিদ আহমেদ: [২] সাতক্ষীরা করোনা ডেডিকেটেড মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সেন্ট্রাল অক্সিজেন বিপর্যয়ের কারণে ৮ রোগী মারা যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে।বুধবার (৩০ জুন) সন্ধ্যায় পর এই বিপর্যয়ের সৃষ্টি হয়। এতে রোগীগুলো মারা গেছেন বলে একাধিক রোগীর স্বজনের অভিযোগ। তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ চারজনের মৃত্যুর কথা স্বীকার করেছেন। তবে দ্রুত সময়ের মধ্যে অক্সিজেন সরবরাহ স্বাভাবিক হয়েছে বলে জানা গেছে।

[৩] বুধবার সন্ধ্যার পর থেকে মৃত্যুবরণকারীরা হলেন-আইসিইউ ইউনিটের করোনা পজেটিভ রোগী কালিগঞ্জের ভাড়াশিমলা এলাকার মৃত আব্দুল হামিদের ছেলে আকরাম হোসেন খান (৬৩), সিসিইউ ইউনিটের মারা যায় শহরের ইটাগাছা এলাকার মফিজুল ইসলামের স্ত্রী খাইরুন্নেছা (৪০), শহরের কুকরালী আমতলা এলাকার মনিরুজ্জামানের স্ত্রী করোনা আক্রান্ত নাজমা খাতুন, শ্যামনগরের সোনাখালি এলাকার কাশেম গাজীর ছেলে আশরাফ হোসেন, সাধারণ ওয়ার্ডের সন্ধ্যা ৭টার পর মারা যায় শ্রীউলা ইউনিয়নের বক্সার গ্রামের মৃত সিরাজুল ইসলামের ছেলে রবিউল ইসলাম পারভেজ (৫৪), কালিগঞ্জের জগন্নাথপুর এলাকার সৈয়দ আলি পাড়ের ছেলে আবু জাফর মো: শফিউল আলম তুহিন, আশাশুনির নৈকাটি এলাকর বেনু গাজির ছেলে আব্দুল হামিদ (৭৫)।0

[৪] বুধবার রাত ৮টায় সরেজমিনে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজে হাসপাতালের ৪র্থ তলায় আইসিইউ ইউনিট ও সিসিইউনিটের সামনে দেখা যায়, স্বজনদের আহাজারিতে ভারি হয়ে উঠেছে সেখানকার বাতাস। আইসিইউ ওয়ার্ডের সামনে রোগীর স্বজনদের হুড়োহুড়ি এবং কান্নার রোল পড়তে দেখা যায়।আইসিইউ ইউনিটের আকরাম হোসেন খানের পুত্র তাজ মুহাম্মদ খান কান্না জড়িত কণ্ঠে বলেন, আমার বাবা করোনা পজেটিভ ছিলেন। গত ৪৫ দিন ধরে ভর্তি ছিলেন। কয়েকদিন ধরে শ্বাস কষ্ট দেখা দিচ্ছিল। গত কয়েকদিন ধরে এই হাসপাতালের সেন্ট্রাল অক্সিজিনের সমস্যা দেখা দিচ্ছিল। কিন্তু কর্তৃপক্ষ সেদিকে নজর দেয়নি।

[৫] সে কারণে আজ কতগুলো রোগী মারা গেল। কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারণে আমার বাবাকে হারালাম। তিনি আরও বলেন, সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা থেকে অক্সিজেন নেই। রাত ৮টা অক্সিজেন আসছে। এই সময়ে এই রোগীগুলো কিভাবে বাঁচবে।তিনি আরও বলেন, বাবা যখন মারা গেছে। তখন ফোন দিয়ে আমাদের ডাকছে। আগে থেকে আমাদের জানানো হলে বাবার সাথে শেষ দেখা করতে পারতাম। এখানকার চিকিৎসার সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করছেন না বলেও অভিযোগ করেন। আমার বাবাকে হারিয়েছি। ভবিষ্যতে এভাবে যেন আর কেউ তার বাবাকে না হারায় সেজন্য তিনি কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। এব্যাপারে বিভাগীয় তদন্তের দাবীও জানান তিনি।

[৬] রোগীর স্বজন ফিরোজ হোসেন বলেন, আমার মেয়ে করোনা আক্রান্ত আইসিউতে ভর্তি। অক্সিজেন ফুরিয়ে গেছে শুনে হতবাক হয়েছি। আইসিইউ রোগীদের কয়েক সেকেন্ড অক্সিজেন না থাকলে তাদের অবস্থা ক্রিটিকাল হতে পারে।শ্রীউলা ইউনিয়নের বক্সার গ্রামের আসাদুল্লাহ বলেন, আমার বড় ভাই রবিউল ইসলাম পারভেজকে ভর্তি করেছিলাম। আক্সিজেন সংকটের কারণে সাড়ে ৭টার দিকে আমার ভাই মারা যায়। এখানে ভালো চিকিৎসা হচ্ছে না। এব্যাপারে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তপেক্ষ কামনা করেন তিনি।কলারোয়া উপজেলার বীরমুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ও রোগীর স্বজন গোলাম মোস্তাফা বলেন, আমার স্ত্রী সিসিইউ ওয়ার্ডে ভর্তি।

[৮] এ ব্যাপারে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা: কুদরত-ই-খোদাকে একাধিকার ফোন করেও তাকে পাওয়া যায়নি।সাতক্ষীরা সিভিল সার্জন হুসাইন ডা: শাফায়ত বলেন, মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সেন্ট্রাল অক্সিজেনের সংকট দেখা দেওয়ার কথা ছিলনা। সেন্ট্রাল অক্সিজেন ছাড়াও ৭০টির অধিক সিলিন্ডার আছে। তবে করোনায় ৪জন মারা গেছে। এখানে কর্তৃপক্ষের কোন গাফিলতি ছিলো কিনা বিষয়টি খতিয়ে দেখবে প্রশাসন।

সর্বাধিক পঠিত