প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

শাহজালালের তৃতীয় টার্মিনাল: ৩% বেশি এগিয়েছে নির্মাণকাজ

নিউজ ডেস্ক: হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনালের নির্মাণকাজ লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৩ শতাংশ বেশি এগিয়েছে বলে জানিয়েছেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী। তিনি বলেছেন, ২০২১ সালের জুনে এই টার্মিনালের ১৪.৫ শতাংশ কাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল, তবে এ পর্যন্ত শেষ হয়েছে সাড়ে ১৭ শতাংশ। গতকাল শনিবার বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনাল নির্মাণকাজের অগ্রগতি পরিদর্শন করে প্রতিমন্ত্রী এ কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, এই টার্মিনালের আকার হবে বর্তমান বিমানবন্দরের দ্বিগুণেরও বেশি। টার্মিনালের সঙ্গে আশকোনার হজ ক্যাম্প থেকে একটি টানেল যুক্ত থাকবে। এর মাধ্যমে হজযাত্রীরা হজ ক্যাম্প থেকে সরাসরি বিমানবন্দরে প্রবেশ করতে পারবেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী ও বহুমাত্রিক নেতৃত্বে উন্নয়নের মহাসড়কে পা রেখেছে বাংলাদেশ। এরই অংশ হিসেবে দৃষ্টিনন্দন তৃতীয় টার্মিনাল তৈরি হচ্ছে। এই টার্মিনালের সঙ্গে মেট্রো রেল সংযুক্ত থাকবে। টার্মিনালটি হবে সম্পূর্ণ অটোমেটেড। এই বিমানবন্দরে পা রেখেই একজন বিদেশি বাংলাদেশের সৌন্দর্য অনুধাবন করতে পারবেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘কভিডের আগ্রাসনে সারা বিশ্ব যখন থমকে ছিল, তখনো এক দিনের জন্যও বন্ধ হয়নি টার্মিনালের নির্মাণকাজ। ২০২৩ সালের জুন মাসে নির্মাণকাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। তবে আমরা আশা করছি নির্ধারিত সময়ের আগেই কাজ শেষ হবে।’

প্রতিমন্ত্রীকে কাজের সার্বিক অগ্রগতি ব্রিফ করেন সাইট ম্যানেজাররা। বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোকাম্মেল হোসেন, বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. আবু সালেহ মো. মোস্তফা কামালসহ অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

পাঁচ লাখ ৪২ হাজার বর্গমিটারের এই টার্মিনালে একসঙ্গে ৩৭টি প্লেন রাখার অ্যাপ্রন (প্লেন পার্ক করার জায়গা) করা হয়েছে। টার্মিনাল ভবন হবে দুই লাখ ৩০ হাজার বর্গমিটারের, যার ভেতরে থাকবে পৃথিবীর উল্লেখযোগ্য ও অত্যাধুনিক সব প্রযুক্তির ছোঁয়া। বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনালের সঙ্গে সংযুক্ত থাকবে মেট্রো রেল। তৈরি হবে পৃথক একটি স্টেশনও। এর মাধ্যমে বাংলাদেশে আসা যাত্রীরা বিমানবন্দর থেকে বের না হয়েই মেট্রো রেলে করে নিজেদের গন্তব্যে যেতে পারবেন। এ ছাড়া ঢাকার যেকোনো স্টেশন থেকে মেট্রো রেলের মাধ্যমে সরাসরি বিমানবন্দরে ডিপারচার বা বহির্গমন এলাকায় যাওয়া যাবে।

২০১৭ সালের ২৪ অক্টোবর শাহজালাল বিমানবন্দর সম্প্রসারণ প্রকল্পটির অনুমোদন দেয় একনেক। ২০১৯ সালের ২৮ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই কাজের উদ্বোধন করেন। – কালের কণ্ঠ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত