প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে মিয়ানমারের জান্তা সরকারকে জাতিসংঘের কাজে লাগানো উচিত: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

কূটনৈতিক প্রতিবেদক: [২] বুধবার রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় জাতিসংঘ শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকে প্রয়োজনে রোহিঙ্গাদের তৃতীয় দেশে অন্তর্ভুক্তি চেয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন।

[৩] মিয়ানমারে মিলিটারি সরকার আসছে এবং এই সুযোগ কাজে লাগানো উচিত উল্লেখ করে বলেন, রোহিঙ্গা ইসুতে জাতিসংঘের কর্মকর্তারা যদি মিলিটারিদের চাপে রাখেন এ সময় ওরা কথা শুনবে। এতে রোহিঙ্গাদের যাওয়ার পথ হবে আরো সহজ হবে।

[৪] পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এখানে যে মাঝিরা আছে তাদেরকে আমরা রাখাইনে পরিদর্শনে নিয়ে যেতে ইউএনএইচসিআর প্রতিনিধিদের প্রস্তাব দিয়েছে। সেখানে গিয়ে তারা জাতিসংঘের প্রজেক্টগুলো দেখে আসুক। এতে তাদের ফেরার আগ্রহ তৈরি হতে পারে।

[৫] রোহিঙ্গারা কী করবে, তারা তাদের ভবিষ্যৎ দেখতে পাচ্ছে না। নিজ দেশে চার বছরেও ফিরতে না পেরে রোহিঙ্গারা হতাশ। এ কারণেই তারা ভাসানচরে বিক্ষিাভ করেছে এবং সেখান থেকে পালিয়েছিল।

[৬] তাদের বাচ্চাদের পড়ালেখা নাই। তাদের মধ্যে হতাশা বিরাজ করছে। ফলে তারা নিজ দেশে না হয় তৃতীয় কোন দেশে যেখানে উন্নত জীবন-জীবিকার ব্যবস্থা রয়েছে সেখানে তারা ফিরতে চায়।

[৭] বুধবার রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় জাতিসংঘ শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর এর দুই সহকারী হাইকমিশনার রাউফ মাজাও ও গিলিয়ান ট্রিগসের সঙ্গে বৈঠক শেষে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত