প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] সাতক্ষীরায় যৌতুকের দাবিতে অন্তঃস্বত্বা গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে স্বামীসহ ছয়জনের নামে মামলা

আসাদুজ্জামান: [২] শ্যামনগরে যৌতুকের দাবিতে এক গৃহবধূকে নির্যাতন চালিয়ে হত্যার পর গলায় ওড়ান পেঁচিয়ে আত্মহত্যার প্রচারের অভিযোগে স্বামীসহ ছয়জনের নামে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

[৩] নিহত গৃহবধূর বাবা খুলনা জেলার কয়রা উপজেলার বেদকাশি গ্রামের মোকছেদ শেখ বাদী হয়ে সোমবার সাতক্ষীরার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে এ মামলাটি দায়ের করেন। বিচারক গোলাম আযম তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য পুলিশ ব্যুরো ইনভেস্টিগেশন জেলার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে নির্দেশ দিয়েছেন।

[৪] মামলায় যাদের আসামী করা হয়েছে তারা হলেন, নিহত গৃহবধুর স্বামী শ্যামনগর উপজেলার পাতাখালি গ্রামের মারুফ বিল্লাহ, শ^শুর মোস্তফা গাজী, শ^াশুড়ি ফরিদা পারভিন, দেবর জিএম মহিবুল্লাহ, নোনদের স্বামী কয়রা উপজেলার বেদকাশি গ্রামের বাচ্চু ঢালী ও নোনদ আলেয়া বেগম।

[৫] মামলার বিবরণে জানা যায়, দু’ বছর আগে খুলনার কয়রা উপজেলার বেদকাশি গ্রামের মোকছেদ শেখের মেয়ে সাদিয়া খাতুনের সঙ্গে শ্যামনগর উপজেলার পাতাখালি গ্রামের মোস্তফা গাজীর ছেলে মারুফ বিল্লাহ’র বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে এক লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে স্বামী মারুফ বিল্লাহ ও তার পরিবারের সদস্যরা সাদিয়াকে প্রায়ই নির্যাতন করতো।

[৬] এরই জের ধরে গত ১৫ মে সন্ধ্যায় সাদিয়া বাপের বাড়ি থেকে টাকা আনতে অপারগতা প্রকাশ করায় কাঠ ও বাঁশের লাঠি দিয়ে নির্যাতন চালিয়ে হত্যার পর লাশের গলায় ওড়না পেঁচিয়ে রান্না ঘরের আড়ার সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখে। পওে ঘটনাকে ধামাচাপা দেয়ার জন্য আত্মহত্যার প্রচার দেয় তার স্বামী ও শ^শুর বাড়ির লোকজন।

[৭] এ ঘটনায় তড়িঘড়ি করে নিহতের দেবর জিএম মহিবুল্লাহ থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করেন। পরদিন খবর পেয়ে নিহতের বাবা মোকছেদ শেখ লাশ দেখার পর থানায় এজাহার দিলেও নতুন করে মামলা নেওয়া সম্ভব নয় বলে থানা থেকে জানিয়ে দেন। থানা মামলা না নেওয়ায় সোমবার আদালতে মামলাটি দায়ের করেন।

[৮] জেলা জজ কোর্টের আইনজীবী অ্যাড. অসীম কুমার মন্ডল মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। সম্পাদনা: জেরিন আহমেদ

 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত